রোনালদো জুভেন্টাসে? আসলেই? নাকি নিছক গুজব?

রোনালদো জুভেন্টাসে? আসলেই? নাকি নিছক গুজব?

বিশ্বকাপে পর্তুগালের উপস্থিতি যতদিন ছিল, ততদিন ব্যাপারটা নিয়ে কানাঘুষা একটু বন্ধ ছিল। বিশ্বকাপে উরুগুয়ের সাথে দ্বিতীয় রাউন্ডে হেরে গিয়ে বিদায় নিয়েছে পর্তুগাল। আর সাথে সাথে আবারও শুরু হয়ে গিয়েছে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো এর রিয়াল মাদ্রিদ ছাড়া নিয়ে গুঞ্জন। গত কয়েক বছর ধরেই দলবদলের সময় আসলেই “এই ছাড়ছি”, “এই ছাড়লাম”, “এই ছেড়ে দেব” করে করে শেষতক সেই রিয়াল মাদ্রিদেই থেকে গিয়েছিলেন রোনালদো। মাদ্রিদের হয়ে গত তিন মৌসুমে  টানা তিনবার চ্যাম্পিয়নস লিগও জিতেছেন। ছাড়ব ছাড়ব করার কারণে যেটা হয়েছে, বেশ কয়েকবার নতুন চুক্তি করে রোনালদোর বেতন বাড়ানো হয়েছে আরকি। বর্তমানে লিওনেল মেসি ও নেইমার জুনিয়র দুইজনই রোনালদোর তুলনায় অনেক বেশী সাপ্তাহিক বেতন পান। প্রতি সপ্তাহে নেইমার পাচ্ছেন ৭৫০,০০০ পাউন্ড ও মেসি পাচ্ছেন ৮৫০,০০০ পাউন্ড করে। সে তুলনায় রোনালদোর সাপ্তাহিক বেতন বেশ ‘কম’ই’।

রিয়াল মাদ্রিদে বর্তমানে প্রতি সপ্তাহে ৩৫০,০০০ পাউন্ড করে কামাচ্ছেন রোনালদো, যা মেসির অর্থেকের থেকেও কম। এরকম অবস্থা রোনালদো মানবেন কেন?

তাঁর উপর মাথায় ট্যাক্স ফাঁকি দেওয়ার গুরুতর অভিযোগ। স্পেনে খেলা চালিয়ে গেলে মোটামুটি ২৮ মিলিয়ন পাউন্ডের মত কর পরিশোধ করতে হবে রোনালদোকে, যেটা পরিশোধ করা মানে প্রতি সপ্তাহের বেতনের একটা অতি বৃহৎ অংশ চলে যাবে কর শোধ করার পেছনেই। এই অবস্থা থেকে মুক্তি পাবার দুটি উপায় –

১. স্পেন তথা রিয়াল মাদ্রিদ ছেড়ে অন্য দেশের অন্য কোন ক্লাবে যাওয়া

২. রিয়াল মাদ্রিদে থাকলে কোনভাবে নিজের বেতন বাড়ানো

এখন কথা হল, কিছুদিন আগেও রিয়াল মাদ্রিদ রোনালদোর বেতন বাড়ালেও এখন ৩৩ বছর বয়সী রোনালদোর বেতন এর থেকে বেশী বাড়াতে নারাজ মাদ্রিদ। এর চেয়ে বেশী বেতন দিয়ে তারা বরং নেইমার বা এমবাপ্পে দের কিনতে আগ্রহী। মাদ্রিদ মনে করছে রোনালদো তাঁর ক্যারিয়ারের বালুকাবেলা স্পর্শ করেছেন, তাই বেশী বেতন দিয়ে রোনালদোকে পোষা আর সাদা হাতি পোষার মাঝে বিশেষ কোন ফারাক নেই। ফলে ২ নম্বর পয়েন্ট বাস্তবায়িত হবার সম্ভাবনা অনেক কম। মাদ্রিদ আর রোনালদোর বেতন বাড়াতে চাচ্ছেনা, অনেক হয়েছে।

শোনা যাচ্ছে, রোনালদোর বাই আউট ক্লজ (যে অর্থমূল্য রিয়াল মাদ্রিদকে দিলে মাদ্রিদ রোনালদোকে বেচতে সম্মত হবে) তা ১ বিলিয়ন ইউরো থেকে কমিয়ে মাত্র ১২০ মিলিয়ন ইউরো করেছে রিয়াল মাদ্রিদ। ঘটনা সত্যি হয়ে থাকলে এটা একটা স্পষ্ট ইঙ্গিত, রোনালদোকে আর রাখতে চাইছেনা রিয়াল মাদ্রিদ।

ফলে বাকী থাকে ১ নাম্বার পয়েন্ট। মার্কা সহ মাদ্রিদভিত্তিক বেশ কিছু সংবাদমাধ্যমের খবর, রিয়াল মাদ্রিদ ছাড়তে চাইছেন ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো, যোগ দিচ্ছেন ইতালিয়ান জায়ান্ট জুভেন্টাসে! এর মধ্যেই রিয়াল মাদ্রিদের কাছে ১০০ মিলিয়ন ইউরোর একটা প্রস্তাব পাঠিয়েছে বলে জুভেন্টাস, আর রোনালদোকে প্রতি বছর ৩০ মিলিয়ন পাউন্ড বেতন বাবদ দিতে সম্মত হয়েছে তারা। রোনালদো বর্তমানে রিয়াল মাদ্রিদে প্রতি বছর বেতন পান ২২ মিলিয়ন পাউন্ড করে। অর্থাৎ রোনালদোকে বর্তমান বেতনের চেয়েও বেশী দিতে চাইছে জুভেন্টাস। রোনালদো নিজেও বলে প্রস্তাবটা গুরুত্বের সাথে বিবেচনা করছেন।

এদিকে রিয়াল মাদ্রিদও সন্দেহজনক কিছু কার্যক্রম করে রোনালদোর রিয়াল ছাড়ার গুজবে সলতে দিচ্ছে আরও। গতকাল খবর রটেছিল নেইমারকে পাওয়ার জন্য ৩১০ মিলিয়ন ইউরোর প্রস্তাব পাঠিয়েছে তারা। পরে রাতারাতি নিজেদের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে সেই খবর যে ভুল এবং মাদ্রিদ কে নেইমারকে চায়না এ ব্যাপারে বেশ বড়সড় একটা বিবৃতি দিয়েছে! দেখুন কারবার! কতশত খেলোয়াড়ের নামের সাথেই ত মাদ্রিদের নাম জড়িয়ে প্রতিদিন কত গুজব রটে। মাদ্রিদ কি নিজে থেকে এভাবে আয়োজন করে যাদের কিনবেনা তাদের ব্যাপারে এভাবে নিজেদের ওয়েবসাইটে আগ্রহের কথা অস্বীকার করে? অবশ্যই করেনা! এতে বোঝা যাচ্ছে, পর্দার আড়ালে যা ঘটে, তা কিছু হলেও বটে!

আবার আজকে নিজেদের অফিসিয়াল টুইটার অ্যাকাউন্ট থেকেও সন্দেহজনক টুইট করেছে মাদ্রিদ। “আমাদের হয়ে রোনালদোর যত গোল” ক্যাপশনে একটা ভিডিও আপলোড করেছে তারা। কেন? রোনালদো কি আর মাদ্রিদের হয়ে গোল করবেন না যে এই ভিডিও এখনই প্রকাশ করতে হবে?

পর্দার আড়ালে কিছু না কিছু একটা ঘটছেই, সেটা নিশ্চিত। হয় রোনালদো আসলেই মাদ্রিদ ছাড়ছেন, আর না হলে এবারো এসবকিছুই রোনালদো আর মাদ্রিদের যৌথ স্টান্টবাজি, রোনালদোর বেতন বাড়ানোর একটা উপলক্ষ্য মাত্র!

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

seventeen + 17 =