বিদায়বেলায় এক মাদ্রিদিস্তার কুর্নিশ গ্রহণ করুন রোনালদো!

বিদায়বেলায় এক মাদ্রিদিস্তার কুর্নিশ গ্রহণ করুন রোনালদো!

ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো! একটা নাম, একটা আভিজাত্য। যেখানে গিয়েছে সর্বজয়ী হয়েছে। যার ছোটবেলা থেকেই লালিত স্বপ্ন ছিল সেরাদের সেরা হওয়া; খুব সম্ভবত তিনি পেরেছিলেনও।

মাদ্রিদে এসেছিলেন ২০০৯ এর জুলাইয়ে চলেও যাচ্ছেন জুলাইয়ে; মাঝে কেটে গেল নয়টি বছর। সব জেতার নয় বছর।

এসে দেখেছিলেন ক্লাব প্রতিদ্বন্দ্বীর আধিপত্যকাল; চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী যে সব জিতে যাচ্ছে। খানিক সময় নিলেন এরপরে একে একে জিতে নিলেন সব। যাওয়ার আগে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করে যাচ্ছেন রিয়াল মাদ্রিদ ইতিহাসের অন্যতম সেরা ফুটবলার হিসেবে।

পৃথিবীর সর্বকালের সেরা ক্লাবের জার্সিতে ৪৩৮ ম্যাচে করেছেন ৪৫০ গোল। জিতেছেন চারটি চ্যাম্পিয়নস লীগ, তিনটি ক্লাব বিশ্বকাপ, তিন উয়েফা সুপার কাপ, দুইবার লীগ টাইটেল, দুইটি কোপা দেল রে, দুইটি স্প্যানিশ সুপার কাপ। মাদ্রিদের থাকাকালীন নয় বছরে নিজের ব্যক্তিগত ঝুলিতে জমা হয়েছে চারটি ব্যালন ডি’অর, তিনটি গোল্ডেন বুট, তিনবার উয়ফেরা বর্ষসেরা ফুটবলার, দুইবার ফিফার বেস্ট ফুটবলার! এসমস্ত অর্জন জানায় দেয় মাদ্রিদের জার্সিতে রোনালদোর প্রতিটি উদযাপন, হুংকার আর আভিজাত্য।

রোনালদো মাদ্রিদে আসার আগের পাঁচ মৌসুমে মাদ্রিদ কাটতে পারিনি চ্যাম্পিয়নস লীগের শেষ ষোলোর গেরো; রোনালদো আসার পরে মাদ্রিদ চ্যাম্পিয়নস লীগে খেলেছে আটটি আসরের সেমিফাইনাল; চারটি ফাইনাল যার সবকয়টি আবার বিজয়ী বেশে উঁচিয়ে ধরেছে ক্লাব ফুটবলের সবচেয়ে মর্যাদাপূর্ণ চ্যাম্পিয়নস লীগ টাইটেল! আবার সর্বশেষ শেষ ছয়টি চ্যাম্পিয়নস লীগের সর্বোচ্চ স্কোরার এই রোনালদো।

জীবদ্দশায় যেকোনো ক্লাবের সমর্থকরা কয়টি চ্যাম্পিয়নস জেতার স্বপ্ন দেখেন কে জানে? তবে আমরা মাদ্রিদিস্তারা আমাদের প্রিয় ক্লাবকে এখনই জিততে দেখে ফেলেছি চার চ্যাম্পিয়ন লীগ; যার তিনটি আবার টানা। ভাবা যায়? অনেক ক্লাবের কাছে যা স্বপ্নেও ভাবা পাপ আর আমাদের কাছে তা অতীত। যা সম্ভব করার অন্যতম প্রধান কারিগর ছিলেন রোনালদো।

আজ রোনালদো আমাদের ছেড়ে জুভেন্টাসে পাড়ি জমাচ্ছে! আমি ভাবতেই পারছিনা রোনালদো ছাড়া মাদ্রিদের ম্যাচ দেখতে বসব! শুধু আমি না। সান্টিয়াগো বার্নাবুর প্রতিটি ঘাস রোনালদোকে মিস করবে, গ্যালারী কম্পিত হবে না আর ‘রোনালদো রোনালদো’ কম্পনে! ভাবা যাচ্ছেনা! তবুও বাস্তবতা মেনে নিলাম।

প্রিয় ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো, আপনি শুধু একটা নাম না, একজন ফুটবলার না। তারচেয়েও বেশি কিছু। আপনি এক অনুপ্রেরণা, জেতার অভ্যাস গড়ার দীক্ষাগুরু। পরিশ্রম দিয়ে ভাগ্য বদলানো এক মহানায়ক। বিদায় বেলায় এই ক্ষুদে মাদ্রিদিস্তার কুর্নিশ গ্রহণ করবেন আর সবকিছুর ধন্যবাদ। ভালো থাকুন…

প্রিয় রোনালদো, আপনি আর সব মাদ্রিদ প্লেয়ারের আগে এসে অনুশীলনে হাজির হবেন না! কেউ অনুশীলন সময়ের এক ঘণ্টা আগে এসেও আর দেখবে না আপনি তার আগে থেকেই অনুশীলন শুরু করে দিছেন!

প্রিয় রোনালদো; ভুলে গোল খাওয়ার জন্য আপনি আর কখনো ভারানে,নাচো, কার্ভার উপর চটবেন না! গোল করার পর মার্সেলোর সাথে আপনার সেই বিখ্যাত উদযাপন করবেন না। গোলের পরে আপনার দিকে ক্যাসেমিরো, লুকাস, ইস্কো, অ্যাসেন্সিয়রা আর ছুটে যাবেনা!

আমরা গোল খেয়ে পিছিয়ে গেলে আর কখনো বলতে পারবনা ‘আমাদের রোনালদো আছে ব্যাপার না!’ সান্টিয়াগো বার্নাবুর গ্যালারী কম্পিত হয়ে আর কখনো শুনব না ‘ক্রিস্টিয়ানো ক্রিস্টিয়ানো’ কম্পন!

রোনালদো, আপনি জুভেন্টাসে গোল দেওয়ার পরে এখানে নয় বছর একসাথে কাটানো সতীর্থ রামোসকে ভুলেও খুঁজবেন না উদযাপন করার জন্য? মার্সেলোর ক্রসে আপনি আর হেডে গোল দিবেন না? কিংবা গোলের পরে উদযাপন করতে মনে পড়বে না মার্সলোকে? টনি ক্রুস, লুকা মদ্রিচের ডিফেন্স চেরা পাসকে আপনি কী একটুও মিস করবেন না? ভাবা যাচ্ছেনা আর!

মাদ্রিদের জার্সিতে আপনার কাটানো মাঠে প্রায় ৩৭৮৩১ মিনিট কী করে ভুলবে মাদ্রিদিস্তারা? মাদ্রিদের জার্সিতে আপনার করা ৪৫০ গোল আর ১৩১ এসিস্ট মনে রাখবে সব মাদ্রিদিস্তারা মৃত্যুর আগ পর্যন্ত।

যেভাবে খুশি যেভাবে থাকবেন; খুব বেশি ভালো থাকবেন প্রিয় রোনালদো।

লিখেছেন – রিফাত এমিল

আরও পড়ুন –

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

3 × four =