রবিনহুড লিভারপুল

রবিনহুডের নাম শোনেনি এমন মানুষের খোঁজ পাওয়া যাবে না । যে ধনীর সম্পদ লুট করে বিতরণ করতেন দরিদ্রদের মধ্যে । লিভারপুলকে তাই ইপিএল এর রবিনহুড বললে খুব বেশি ভুল হবে না বোধ করি। বক্সিং ডে তে তারই এক নজির স্থাপন করলো লিভারপুল । লেস্টারের বিপক্ষে ১-০ গোলের জয়ে তিন পয়েন্ট জয়ে সমর্থকরা যতোটা না খুশি তার চাইতে বেশি উদ্বিগ্ন এই ভেবে যে কোন পচা শামুকে পা কেটে তিন পয়েন্ট হারাবে লিভারপুল! বক্সিং ডে তে লীগ লিডার লেস্টারসিটির আতিথ্য দেয় অলরেডরা। স্কারটেলের অনুপস্থিতে ব্যাক ফোরে লিড দেন লভ্রেন আর সাখো। ডিভক অরিগির ফ্রন্ট ম্যান হিসেবে ম্যাচ স্টার্ট করা ছিল সময়ের অপেক্ষা মাত্র। খেলার শুরু থেকেই দারুন স্টার্ট করে লিভারপুল। জেজেনপ্রেসিং এর যেই ছোঁয়া লিভারপুলের খেলায় ক্লপ আসার পর ছিল তা যেন মাঝে কিছুদিন ম্রিয়মাণ ছিল। তবে লেস্টারের বিপক্ষে খেলায় তা প্রথম মিনিট থেকেই ছিল। প্রেসিং, দুর্দান্ত পাসিং আর একের পর এক আক্রমনে লেস্টার সিটিকে ব্যতিব্যস্ত করে রাখে লিভারপুল। অরিগি, লালানা আর কৌটিনিয়োর দুর্দান্ত পাসিং এ গোলের খুব কাছে গিয়েও বারবার ফিরে আসে লিভারপুল। কিন্তু হঠাৎ ই বাধ সাথে অরিগির ইঞ্জুরি। হাফ টাইমের মিনিট পাঁচেক আগে হ্যামস্ট্রিং ইঞ্জুরিতে পড়া অরিগির জায়গায় বদলি খেলোয়াড় হিশেবে নামেন নিজেকে হারিয়ে খোঁজা বেলজিয়ান স্ট্রাইকার ক্রিশ্চিয়ান বেন্টেকে। লো ওয়ার্ক রেট, পুওর ফিনিশিং এর কারনে বেঞ্চে জায়গা হওয়া ক্রিশ্চিয়ান বেন্টেকের তাই এই ম্যাচটি ছিল নিজেকে প্রমান করার ম্যাচ, নিজেকে ফিরে পাওয়ার ম্যাচ। খেলার দ্বিতীয়ার্ধে আসে সেই মাহেন্দ্রক্ষণ। লেফট উইং থেকে ফিরমিনোর করা এক লো ক্রস কে গোলে রুপান্তরিত করেন নাম্বার ৯ বেন্টেকে। এনফিল্ডের ৪৫ হাজার দর্শককে সুখের সাগরে ভাসান বেলজিয়ান “বিস্ট” । এইদিন পুরো লীগের শুরু থেকে ক্রিসমাস পর্যন্ত দাপট দেখানো ভার্ডি- মাহরেজ ছিলেন নিজেদের ছায়া হয়ে। মাঠে খুব একটা খুঁজে পাওয়া যায়নি লেস্টারের হয়ে খেলতে থাকা ২০১৩-১৪ মৌসুমের লিভারপুলের “সাস” । দুজনকে বদলি করেন কোচ রানিয়েরি। কিন্তু ভাগ্যের কোন পরিবর্তন হয়নি। মিনোলেটের অসাধারণ পার্ফরমেন্স, লভ্রেনের দায়িত্বশীল ডিফেন্ডিং এ ১-০ গোলে ম্যাচ জেতে লিভারপুল। ম্যাচের শেষ মিনিটে বেন্টেকে শিশুসুলভ মিস করলে হয়তো ২-০ গোলের এক স্কোরলাইন পেতে পারতো লিভারপুল।

2F9F30EC00000578-3374732-image-a-59_1451147717076

২০১৫-১৫ মৌসুমে এখন পর্যন্ত সবার সাথে গোল করা লেস্টারের রথ থামল এনফিল্ডে এসে। ইউর্গেন ক্লপ এখান থেকে ভবিষ্যতের প্রেরনা নিতেই পারেন। দুইদিন বাদেই খেলা সান্ডারল্যান্ডের বিপক্ষে। লিভারপুলের সাবেক খেলোয়াড় বরিনি মুখিয়ে আছেন নিজেকে প্রমান করার জন্য। দেখা যাক, প্রিমিয়ার লীগের রবিনহুড এ মৌসুমের বিগ ফিশ লেস্টারের সাথে অর্জন করা পয়েন্ট অপেক্ষাকৃত দুর্বল দল সান্ডারল্যান্ডের বিপক্ষে পয়েন্ট বিলিয়ে আসে নাকি রবিন হুড নাম থেকে নিজেকে ঘুচিয়ে ফেলতে সচেষ্ট হয়। সময়ই বলে দেবে সব!

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

five × three =