যে গল্পের শিরোনাম দেওয়া কঠিন

কোথায় শুরু করব ? ক্লাইম্যাক্স হিরো রুবেলকে দিয়ে শুরু করলে আপনি আমাকে বলবেন গোল্ডফিশ মেমোরি … আপনি আমাকে জিজ্ঞাসা করবেন রিয়াদকে ভুলে গেলে হবে ? সে তো ইতিহাস গড়ল । বিশ্বকাপে বাংলাদেশের প্রথম সেঞ্চুরি ! পথ দেখালো …আবার ম্যান অফ দি ম্যাচও হলো । বিশ্বকাপে বাংলাদেশের সবচাইতে বড় ইনিংস খেললো। মুশফিককেই বা কেন দূরে রাখবেন ? সাইজে ছোটো , আধিপত্যে বড় । বড় বড় সব শট ! সুন্দর সুন্দর সব শট ! আর বোলার আর ফিল্ডারকে সারাটা ইনিংসজুড়ে ব্যস্ত রাখা সব শট ! যে ইনিংসের হাইলাইটস নয় , প্রতিটা বলই রিওয়াইন্ড করে দেখা যায় বারবার !

দিনটি শুধুই আমাদের !
দিনটি শুধুই আমাদের !

এমন দিনে শুরু করা কঠিন । এমন দিনে আবেগ ছাড়া লিখতে যাওয়া কঠিন ।

দিনের প্রথম হাসিটা মরগানের । টসে জিতে ইংলিশরা যখন ফিল্ডিং এ নামে , বাংলাদেশ ক্রিকেটের ভক্তকূলের একটা বড় অংশ ভালোরকমের ভ্যাবাচ্যাঁকা খেয়েছে ইমরুলকে একদম প্লেয়িং ইলেভেনে দেখে । বিস্ময়টা যে অমূলক ছিলো না , তা প্রমাণ করবার দায়টা নিলেন ইমরুল নিজেই । ‘খোঁচা’- বাংলাদেশের ব্যর্থ ম্যাচগুলির পোস্টমর্টেম করতে গিয়ে কতবার যে এ শব্দটা ব্যবহার করতে হয়েছে তার হদিস নেই । বাংলাদেশের ক্রিকেটের এই ওল্ড ফ্যাশনটি গায়ে জড়িয়ে নিলেন দুই ওপেনার তামিম আর কায়েস । দুজনেই স্লিপে ! ঘাতক একই বোলার- জিমি এন্ডারসন !
৮/২ !!!!

প্রথমে জোড়া আঘাত , আবার ইনিংসের বয়স ২০ ওভার পেরোতেই আবার জোড়া আঘাত । প্রথমটায় তামিম-কায়েস … আর এ যাত্রায় সাকিব-সৌম্য । ৯৯/৪ …
তবে মাঝে রিয়াদ আর সৌম্যের ৮৬ রানের ভয় তাড়ানো জুটি । তারপরের স্টোরি বর্তমানের বাংলাদেশের ক্রিকেটের সবচাইতে সেরা ব্যাটসম্যান মুশফিক আর সবসময় পার্শ্বনায়ক হয়ে থাকা রিয়াদের । সেট হতে মুশি সময় নেন নি একদম ! নামার পর থেকেই উইকেটের চারপাশে খেলছিলেন দারুন সব শট । আর অন্যদিকটা থেকে রিয়াদ যেন সৌম্যের আউটের পর থেকেই একটু আস্তে আস্তে বুঝে শুনে খেলতে লাগলেন ।

অনন্য প্রথম !
অনন্য প্রথম !

৪০ ওভারে বাংলাদেশের সংগ্রহ যখন ১৯৭/৪, তখন মুশফিককে লাগছিলো অপ্রতিরোধ্য । আর চোখটা ছিলো রিয়াদের দিকে … অনেক আকাঙ্ক্ষিত বিশ্বকাপ সেঞ্চুরির দিকে । দলের ২২৬ এ এসেও গেলো সেটা । উদযাপনটা হলো দেখার মতো ! কিন্তু রাস্তার যেখানটায় গিয়ে বাতাসে কান পেতে স্বস্তির হাসি হাসা যায় , সেখান থেকে ইনিংস আরো অনেক দূরে । এডিলেড যে রান প্রসবা ! ৩০০-৩২০ যে এ বিশ্বকাপে নিরাপদ নয় !

ইনিংস শেষে হাসিটা ঠোঁটে খেললো না । বোর্ডের ২৭৫ নিরাশাবাদীকে কেন , স্বস্তি দিতে পারে না চরম আশাবাদীদের দলের অধিনায়কটিকেও । ফিসফাঁস কানকথা হয় নিজের সাথে নিজেরই । হবে তো ? ২৭৫ আর এমন কী ?

কথোপকথনের দৈর্ঘকে আরো লম্বা করে মঈন আলী আর বেলের সূচনা । ৪৩ রানের জুটিতে রানরেট এগোচ্ছিলো রিকোয়ার্ড রেটের চাইতে জোরেশোরে । ৯৭ রানে মাশরাফির দারুন এক ডেলিভারিতে হেলস যখন ফিরে যান , আসল চমকটা তখনো আসে নি । রুবেল আর তাসকিন মিলে বানিয়ে দিলেন ১৩২/৫ । ম্যাচ থেকে অন্যকোন দল হলে হয়তো সরিয়েই দেওয়া যেত । কিন্তু আজকের ইংলিশ লাইনে ব্রডের মত ভালো হিটারও যে নামলেন ১০ নাম্বারে । তাই পথটা তখনো ভালোই লম্বা বাংলাদেশের । রুট-বাটলার আর ওকস তো দফায় দফায় দারুন সব শট খেলে ভিতরের পানি শুকিয়ে দিচ্ছিলেন । দিনটি ছিলো আমাদের ! তাই দাঁড়াতে পারে নি কেউই ! তাই ১৫ রান দূরে থাকতেই শেষ নাক উঁচু ইংলিশদের ইনিংস ! … কোয়ার্টারে বাংলাদেশ …

কখনো মাশরাফি রুটকে ফিরিয়ে , কখনো তাসকিন দুশমন হওয়া বাটলারকে সরিয়ে আবার কখনো বা রুবেল জীবনের সেরা ডেলিভারি দিয়ে চটপট জোড়া আঘাতে ইনিংস মুড়িয়ে দিয়ে সমান সমান করে দিলেন টীমওয়ার্ককে । তবে ইংল্যান্ড ফাইভ ডাউন হবার পরে বাকি সময়ের উত্তেজনার গল্পগুলো হয়তো ঠিক অমন করে বলতে পারলাম না … এ গল্পটা ঠিকভাবে বলা যে খুব কঠিন ! যে খেলা দেখেনি আর যে খেলা দেখেছে – এই দুই শ্রেণিকে শুধু গল্প বলে এক কাতারে আনা সম্ভবই নয় ! আপনার চোখ আর আপনার স্নায়ু এর স্বাদ তখন না পেয়ে থাকলে আপনি এ স্বাদ কিনতে পারবেন না লাখো টাকায়ও !

রুবেলের হাত ধরেই জয়
রুবেলের হাত ধরেই জয়

ক্রিকেটে স্নায়ুর উপরে চাপ নিয়ে আমাদের কাঁদতেই হয় বেশিরভাগ দিন ! আজকের গল্পটা অন্যরকম ! আজকের গল্পটা শুধুই স্বপ্নজয়ের ! স্বপ্ন ছিনতাই যাবার নয় । আভিজাত্য আর অহংকার ছিনতাই করার ! ব্রিটিশ আভিজাত্য ছিনতাই !

একজন লিডার মাশরাফির কথা আর একটা টাইগার মাশরাফির কথা আলাদা করে বলতে হবে । বোলিং চেঞ্জ , ফিল্ডিং সেট আপ- এসব তো শুধু কাগজে কলমে একজন অধিনায়ককে দেখায় । মাশরাফি তার চাইতেও বড় ! একটা রান বাঁচানোর জন্যে পায়ে ব্যাথা নিয়ে মাশরাফির দৌঁড়ানো শুধু ভালো ফিল্ডিং নয় ! তার চাইতেও বড় ! মাশরাফি এদেশের ক্রিকেটের আলাদা একটা চ্যাপ্টারের নাম ! যে চ্যাপ্টারের একেকটা শব্দ পড়ে পরের প্রজন্মের ভিতরে জন্ম নিবে হার না মানা অনেক অনেক মাশরাফি !

লিখতে লিখতে খবরে শুনলাম … ” কোয়ার্টার ফাইনালে উন্নীত হওয়ায় হরতাল প্রত্যাহার করেছে ২০ দলীয় জোট ! সাথে আগামীকাল বিজয় মিছিল… ”
কী বুঝলেন ?… এ রঙ ছড়িয়ে গেছে সবখানে !

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

eleven − eleven =