যে কারণে সাকিব কে দরকার আমাদের

যে কারণে সাকিব কে দরকার আমাদের

সাকিবের ওয়ানডে রান ৫৪৮২, আন্তর্জাতিক টি২০ রান ১৩৬৮। সাকিবের টেস্ট রান ৩৬৯২। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ১০৫৪২ রানের মালিক সাকিব; বাংলাদেশের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ।

টেস্টে উইকেট সংখ্যা ১৯৬; বাংলাদেশের সর্বোচ্চ। টি২০ ক্রিকেটে উইকেট সংখ্যা ৮০; বাংলাদেশের সর্বোচ্চ এবং বিশ্ব ক্রিকেটে পঞ্চম। ওয়ানডে ক্রিকেটে উইকেট সংখ্যা ২৪৪; ৭ উইকেট কম নিয়ে দ্বিতীয় অবস্থানে বাংলাদেশীদের মধ্যে।

টেস্টে সাকিবের অর্ধশতক ২৩, শতক ৫ ও আমাদের টেস্ট ক্রিকেটের সর্বোচ্চ ২১৭ রানের ইনিংস। সাকিবের ওয়ানডে ক্রিকেটে অর্ধশতক ৩৯ টি আর শতশ ৭ টি। টি২০ ক্রিকেটে অর্ধশতক ৭ টি, ক্যারিয়ার সেরা স্কোর ৮৪।

টেস্টে সাকিব চার উইকেটে নিয়েছে ৮ বার, পাঁচ উইকেট নিয়েছে ১৮ বার, ম্যাচে দশ উইকেট নিয়েছে ২ বার। ওয়ানডে চার উইকেট নিয়েছে ৮ বার, পাঁচ উইকেট ১ বার। আর টি২০ ক্রিকেটে তিনবার চার উইকেট শিকার করেছে।

টেস্টের ২১৭ ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ স্কোর; আর ওয়ানডের অপরাজিত ১৩৪ আমাদের তৃতীয় সর্বোচ্চ ওয়ানডে স্কোর!

সাকিব একমাত্র ক্রিকেটার যার যেকোনো নির্দিষ্ট ভেন্যুতে ওয়ানডে ক্রিকেটে ২০০০ রান ও ৫০ উইকেট নেওয়ার কৃতিত্ব রয়েছে। সাকিব একমাত্র ক্রিকেটার যার কিনা টেস্ট ক্রিকেটে যেকোনো নির্দিষ্ট ভেন্যুতে ১০০০ রান ও ৫০ উইকেট নেওয়ার কৃতিত্ব রয়েছে। সব রেকর্ড আমাদের হোম অফ ক্রিকেট মিরপুরে।

টেস্ট ক্রিকেটে সবচেয়ে দ্রুততম ৩০০০ রান ও ১৫০ উইকেট নেওয়ার কৃতিত্ব সাকিবের; মাত্র ৫০ টেস্টে!

একই টেস্টে ৫ উইকেট ও ৫০ রান করেছে সাকিব আটবার।

ওয়ানডে ক্রিকেটে সাকিবসহ মাত্র ৫ জন ক্রিকেটারের ৫০০০ রান ও ২০০ উইকেট নেওয়ার কৃতিত্ব রয়েছে। সাকিব করেছে সবচেয়ে দ্রুত; মাত্র ১৭৮ ইনিংসে।

নিজেদের খেলার সব টেস্ট খেলুড়ে দেশের মধ্যে (আফগানিস্তান ও আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে খেলেনি ম্যাচ) ৫ উইকেট নেওয়ার অর্জন রয়েছে সাকিবসহ মাত্র ৪ জনের। সাকিবের সব টেস্ট খেলুড়ে দেশের বিপক্ষে ৫ উইকেট নেওয়ার রেকর্ড সবচেয়ে দ্রুততম; মাত্র ৫০ টেস্টে।

সাকিবসহ মাত্র তিনজন ক্রিকেটারের একই টেস্টে সেঞ্চুরি ও ১০ উইকেট নেওয়ার কৃতিত্ব রয়েছে।

ক্রিকেটের তিন ফরম্যাট মিলিয়ে ১০০০০ রান ও ৪৫০ উইকেটের বেশি নেওয়ার কৃতিত্ব মাত্র তিনজনের। এরমধ্য আমাদের সাকিব একজন।

আন্তর্জাতিক টি২০ ক্রিকেটে মাত্র তিনজনের ১০০০ রান ও ৫০ উইকেট রয়েছে। এরমধ্য আমাদের সাকিব একজন।

প্রথম বাঁহাতি বোলার হিসেবে টি২০ ক্রিকেটে ৩০০ উইকেট সাকিবের; ক্রিকেট ইতিহাসের দ্বিতীয় অলরাউন্ডার হিসেবে টি২০ ক্রিকেটে ৪০০০ রান ও ৩০০ উইকেটের মাইলফলক রয়েছে আমাদের সাকিব আল হাসানের!

আইপিএলে পঞ্চম স্পিনার হিসেবে ৫০ উইকেট প্রাপ্তি, দ্বাদশ ক্রিকেটার হিসেবে আইপিএলে ৫০০ রান ও ৫০ উইকেট নেওয়ার কীর্তি!

আর একটি আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেললে ৩০০ আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলা দ্বিতীয় বাংলাদেশী হবে সাকিব। আর দুটি উইকেট পেলে ৫০০ আন্তর্জাতিক উইকেট হবে সাকিবের; বাংলাদেশীদের মধ্যে সর্বোচ্চ।

৩০০ আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলা দ্বিতীয় বাংলাদেশি সাকিব; আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ৫০০ উইকেট নেওয়া প্রথম ও একমাত্র বাংলাদেশি সাকিব।

একজন সাকিব আল হাসানকে পরিসংখ্যান দিয়ে পরিমাপ করা অসম্ভব; তার অর্জন আর আভিজাত্য অনেক বিশাল! তবে সাকিবের এখনো অনেককিছু জয় করা বাকী; একটা বিশ্বকাপও…

@ রিফাত এমিল

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

fourteen − 4 =