মোরাটানাটানি!

২০১৪ সালে মোটামুটি অচ্ছুৎ হয়েই ক্লাব ছেড়ে জুভেন্টাসের তীরে ভীড়েছিলেন স্প্যানিশ স্ট্রাইকার আলভারো মোরাটা। বেনজেমা, রোনালদো, বেল – দের ভিড়ে ক্লাবে নিয়মিত সময়ই পেতেন না খেলার। কিন্তু যা কিছুক্ষণ বা কিছু ম্যাচ খেলেছিলেন – জাত চিনিয়েছিলেন তাতেই। ফলাফল – ২০ মিলিয়ন ইউরোর বিনিময়ে জুভেন্টাসে নাম লেখানো।
 
তবে কাজের কাজ একটা কিন্তু করেই রেখেছিল রিয়াল মাদ্রিদ, চুক্তিতে “বাই-ব্যাক” ক্লজ একটা জুড়ে দিয়ে। মানে চাইলেই মাদ্রিদ জুভেন্টাস থেকে আবার মোরাটাকে কিনতে পারবে, জুভ বাধা দিতে পারবে না।
 
দুইবছর পর এটাই করলো মাদ্রিদ। আবারো কিনে নিলো মোরাটাকে। ঘরের ছেলে ফিরে এল ঘরে।
আবারও রিয়ালে মোরাটা
আবারও রিয়ালে মোরাটা
 
কিন্তু এর পিছনে কি একেবারেই মোরাটার জুভেন্টাসের হয়ে দুর্দান্ত পারফরম্যান্স বা রিয়াল মাদ্রিদের দলের শক্তি বাড়ানোর বিষয়টা ভূমিকা রেখেছে? না অন্যকিছু?
 
সেটা একটু গভীরে চিন্তা করলেই বোঝা যায়। রোনালদো ও বেল – মাদ্রিদে এখন এমনিতেই দুই বাঘের রাজত্ব, এর মধ্যে তাঁরা অবশ্যই চাইবেন না অন্য কেউ এসে তাঁদের আধিপত্য খর্ব করুক, বিশেষতঃ রোনালদো। তাঁর উপর যে বেনজেমার জন্য মূলত মোরাটার ক্লাব ছাড়া দুই বছর আগে, সেই বেনজেমা এখনো আছেন রিয়াল মাদ্রিদে বহাল তবিয়তে, ও রিয়াল মাদ্রিদের হয়ে ব্যক্তিগত সবচাইতে সফল মৌসুম কাটিয়েছেন তিনি গত বছর। তাই এই অবস্থায় বেনজেমাও যে ক্লাব ছাড়বেননা, সেটা মোটামুটি বলেই দেওয়া যায়। তাহলে আবার কেন রিয়াল মাদ্রিদের মোরাটা শিকার?
morata-palencia_1_0
 
কারণ এক্ষেত্রে একটাই হতে পারে। সেটা হল জুভেন্টাসের হয়ে দুর্দান্ত দুই মৌসুম কাটানো, দুটো স্কুডেট্টো, দুটো কোপা ইতালিয়া ও একবার চ্যাম্পিয়নস লিগ রানার্সআপ হওয়া মোরাটার পেছনে এখন বিশ্বের অন্যান্য বাঘা বাঘা ক্লাবও ছুটছে। যেই তালিকায় আছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড, আর্সেনাল ও চেলসি। রিয়াল মাদ্রিদের কোচ থাকাকালীন সময় হোসে মরিনহোই প্রথম মোরাটাকে লাইমলাইটে নিয়ে এসেছিলেন, সেই মরিনহোই ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড অভিযানে সঙ্গে চাচ্ছেন মোরাটাকে। ওদিকে সবসময় ইতালি ও জুভেন্টাসকে ৩-৫-২ ফর্মেশানে খেলানো চেলসির নতুন কোচ আন্তোনিও কন্তেও সামনের দুই স্ট্রাইকারের একজন হিসেবে ডিয়েগো কস্টার পাশাপাশি ভেবে রেখেছেন মোরাটাকে। আর আর্সেনালের স্ট্রাইক-সমস্যা ত সার্বজনীন, লেস্টার সিটির জেইমি ভার্ডিকে না পেয়ে এই মোরাটার দিকেই হাত বাড়িয়েছেন আর্সেন ওয়েঙ্গার। তাঁর উপর টরেস-ভিয়া পরবর্তী যুগে সাবেক বিশ্বচ্যাম্পিয়ন স্পেইনের আক্রমণভারও এখন মোরাটার হাতেই ন্যস্ত। এই ইউরোতেও প্রথম দুই ম্যাচে দুই গোল করে নিজের দাম বাড়িয়ে দিয়েছেন আরও বহুগুণ। ফলে রিয়াল মাদ্রিদও বুঝতে পেরেছে মোরাটার ক্ষেত্রে জুভেন্টাসের কাছে নিজেদের “বাই-ব্যাক ক্লজ” টার সদ্ব্যবহার করার এটাই সময়। এখন তাঁদের কাছ থেকে মোটামুটি মূল্যে মোরাটাকে কিনে নিয়ে পরে অন্য ক্লাবের কাছে দ্বিগুণের চেয়েও বেশী দামে বেচলে লাভটা ত অন্তে সেই রিয়াল মাদ্রিদেরই হবে! এবং হচ্ছেও সেটাই, জুভেন্টাসের সিইও বেপ্পে মারোত্তা নিশ্চিত করেছেন, মাদ্রিদে ফিরে যাচ্ছেন মোরাটা। নির্ভরযোগ্য সূত্রের খবর মানলে রিয়াল মাদ্রিদকে এ যাত্রায় মোরাটার জন্য দেওয়া লেগেছে ৩২ মিলিয়ন পাউন্ড। এখন চেলসি-আর্সেনাল-ইউনাইটেডের সামনে ৬০ মিলিয়ন পাউন্ডের প্রাইসট্যাগ ঝুলিয়ে রেখে লাভের ফসল ঘরে তোলার অপেক্ষায় মাদ্রিদ!
 
ব্যবসা বুঝি একেই বলে!

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

3 + 8 =