ইকার্দি-জাদুতে মিলান ডার্বিতে শেষ হাসি ইন্টারের

ইকার্দি-জাদুতে মিলান ডার্বিতে শেষ হাসি ইন্টারের

বরাবরের মতই ইন্টার মিলান ৪-২-৩-১ এবং এসি মিলান ৪-৩-৩ ফর্মেশন নিয়ে ম্যাচ শুরু করেছে। দুই দলই নিজ নিজ ফর্মেশন দিয়ে ইতিবাচক ফলাফল নিয়ে আসছিলো যার কারণ কোচরাও এই ফর্মেশনে কোনো পরিবর্তন আনেননি যেহেতু এই ফর্মেশন নিয়েই সফলতা আসছে।

খেলা শুরু হবার সাথে সাথে বুঝা গিয়েছিলো ইন্টার মিলান কতটা এগ্রেসিভ এবং হাই প্রেসিং করে খেলবে। এসি মিলান অনেক প্রশংসা কুড়িয়েছিল তাদের সুন্দর পাসিং ফুটবলের জন্য কিন্তু গতকাল ইন্টারের হাই প্রেসিং ও এগ্রেসিভ খেলার কারণে এসি মিলানের খেলোয়াড়রা পায়ে বলই রাখতে পারেনি এবং বল পায়ে ঠিক মত পাসিংও করতে পারেনি। ইন্টার মিলান একদম এসি মিলানের ডিফেন্সিভ লাইনে এসেও প্রেসিং করেছে শুরু থেকে একদম শেষ পর্যন্ত। খেলার প্রথম ১০ মিনিট যায় একে অপরকে স্টাডি করার পিছে যেখানে কোনো দলই কোনো দলকে আক্রমণ করেনি। প্রথম ১০ মিনিটের বুঝা পড়া শেষ হয়ে খেলারর নিয়ন্ত্রণ ধীরে ধীরে ইন্টারের পায়ে আসতে থাকে। অতিরিক্ত রাফ ট্যাকলিং এবং ফাউলের এর কারণে ওয়ার্ল্ড ক্লাস ফুটবল দেখা না গেলেও ইমোশনের কোনো কমতি ছিলোনা।

প্রথমার্ধ ছিলো পুরোই ইন্টার মিলানের অধীনে ; ইন্টার মিলান প্রথম চান্সেই গোল পেয়ে যায় কিন্তু ইকার্দির অফসাইডের কারণে গোলটি বাতিল করে দেয়া হয়। প্রথম এই চান্সের পর ইন্টার কিছুটা কনফিডেন্স পায় এবং বুঝতে পারে যে মিলানকে আক্রমণ করলে তারা বিপদে পড়বে। এর পর ২০ মিনিটের মধ্যে ইন্টার ৪ টি স্পষ্ট গোলের চান্স পায় : পেরিসিচের একটি হেড ডনারুমা সেভ করে দেয়, ডে ভ্রাই এর একটি শট ক্রসবার হিট করে, একদম নিশ্চিত অবস্থান থেকে মাতিয়াস ভেচিনো বারের ওপরে শট করেন, মাউরো ইকার্দির একটি নিশ্চিত গোল মিলানের ডিফেন্ডার অ্যালেসসিও রোমানিওলির অসাধারণ ট্যাকলের কারণে ফিরে আসে। প্রথমার্ধের শেষ দিকে মিলানও একটি গোল পায় কিন্তু এবারও অফসাইডের কারণে বাতিল করে দেয়া হয়।

এর মধ্যে ইনজুরির কারণে মাঠ ছেড়েছিলো রাজ্জা নাইঙ্গোলান যেটি ছিল ইন্টারের জন্য অনেক বড় একটি ক্ষতি। নাইঙ্গোলান হচ্ছে স্পালেত্তির ফুটবলের অন্যতম প্রধান একটি অস্ত্র ; নাইঙ্গোলান এমন একজন খেলোয়াড় যিনি কিনা মিডফিল্ডের ওপরে প্রতিপক্ষ ডিফেন্সের ওপর প্রচন্ড প্রেসিং করতে পারেন এবং তার মত ইনটেনসিটি নিয়ে খেলার মত দ্বিতীয় খেলোয়াড় ইন্টারের নেই। নাইঙ্গোলানের জায়গায় অনেকে হয়তো ধারণা করেছিল যে লাউতারো মার্টিনেজকে হয়তো সুযোগ দেয়া হবে কিন্তু স্পালেত্তি ঝুঁকি নিতে চাননি এবং বোরহা ভালেরোর মত একজন মিডফিল্ডারকে নামান।

প্রথমার্ধ শেষে ইন্টার মিলান যেই পরিমাণ সুযোগ সৃষ্টি করেছে তার জন্য কমপক্ষে এক গোলের লিড ডিজার্ভ করেছিল। দ্বিতীয়ার্ধে খেলা হয়ে ওঠে খুব বেশি ফিজিক্যাল ; মাঠের প্রতিটা ইঞ্চি হয়ে ওঠে লড়াইয়ের স্থান যার কারণে বড় ধরণের কোনো গোলের চান্স কেউ পায়নি। মিলান তো খেলা ড্র করার উদ্দেশ্যেই খেলা শুরু করে ; সুসো ছিল একমাত্র খেলোয়াড় যিনি কিনা চেষ্টা করেছেন কিছু একটা ইনভেন্ট করার জন্য কিন্তু ইন্টারের ডিফেন্সিভ দেয়ালের সামনে বারবার ধাক্কা খেয়েছেন। খেলা যখন একদম শেষ এবং ০-০ রেজাল্ট প্রায় লিখিত তখন ঘটে গেলো ইন্টারের আরেকটি নাটকীয় জয়। মাতিয়াস ভেচিনোর ক্রসে ডনারুমা বের হবে নাকি ভিতরে থাকবে এই সিদ্ধান্ত নিতে নিতে তাকে শাস্তি দিয়ে ফেলে ইন্টারের ক্যাপ্টেন মাউরো ইকার্দি। গোল নম্বর ৪, পকেটে ৩ পয়েন্ট।

ওভারঅল ৯০ মিনিটের পারফরম্যান্স অনুযায়ী ইন্টার এই জয় ডিজার্ভই করেছে কারণ ইন্টারই ছিল একমাত্র দল যারা কিনা জয়ের জন্য চেষ্টা করেছে এবং শেষ সেকেন্ড পর্যন্ত প্রতিটা বলের জন্য লড়াই করেছে।

গতকাল একমাত্র কাওয়াদো আসামোয়া ছাড়া প্রতিটা খেলোয়াড় ভালো খেলেছে তবে ডিফেন্সে মিলান স্ক্রিনিয়ার-স্টেফান ডে ভ্রাই জুটি আরেকটি পারফেক্ট ম্যাচ উপহার দিয়েছে। গতকাল এই জুটি যেইভাবে নিখুঁত ভাবে ডিফেন্ডিং করেছে তা সত্যিই প্রশংসনীয় ছিল এবং বার বার দেখার মত ছিল। মিডফিল্ডে মার্সেলো ব্রোজোভিচ ছিল মাঠের সবজায়গায় উপস্থিত। মাঠের প্রতিটা জায়গায় দেখা গিয়েছে তার উপস্থিতি , প্রতিটা বলের জন্য লড়াই করেছে এবং পুরো ৯০ মিনিট মিডিফল্ড নিয়ন্ত্রণ করেছে মাতিয়াস ভেচিনোর সহযোগিতা সহকারে।

আক্রমণে ইভান পেরিসিচ এখনও তার বেস্ট ফর্ম ফিরে পাননি কিন্তু যতবারই এই ক্রোয়েশিয়ান তারকা সামান্য ঝলক দেখিয়েছে ততবারই মিলানের জন্য বিপদ ছিল ; অপর প্রান্তে মাত্তেও পলিতানো আরেকটি পজিটিভ ম্যাচ খেলেছে। আর ম্যাচের নায়ক মাউরো ইকার্দি নিয়ে আর কি বলবো ?? তার পক্ষে কথা বলে তার গোল। ইকার্দি হচ্ছে মডার্ন ফুটবলের সবথেকে ক্ল্যাসিক পুরোনো নম্বর নাইন। আগের আমলে মুলার, ইনজাঘি, ত্রেজেগে দের মত সেন্ট্রাল স্ট্রাইকারদের ম্যাচে ২টা সময়ে শুধু দেখা যেত : যখন গোল করতো তখন এবং যখন গোলের সেলেব্রেশন করতো তখন। ইকার্দি হচ্ছে বক্সের হাঙ্গর, কিলার, স্নাইপার যার শুট বৃথা যায়না। বরাবরের মত গতকাল ম্যাচটি ক্লোজ করেছে এই কিলার – মাউরো ইকার্দি!

::: আরাফাত ইয়াসের :::

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

two × two =