ভারতের টানা দ্বিতীয়বার ? নাকি নতুন রাজা ? কেমন হলো ভারতের দল ?

২০১৫ বিশ্বকাপের ভারত ক্রিকেট দল
২০১৫ বিশ্বকাপের ভারত ক্রিকেট দল

ভারত; মহেন্দ্র সিং ধোনি (অধিনায়ক), বিরাট কোহলি (সহ-অধিনায়ক), শিখর ধাওয়ান, রোহিত শর্মা, অজিঙ্কা রাহানে, সুরেশ রায়না, আম্বাতি রাইডু, ইশান্ত শর্মা, ভুবনেশ্বর কুমার, মোহাম্মদ সামি, রবিন্দ্র জাদেজা, আকশার প্যাটেল, স্টুয়ার্ট বিনি, উমেশ যাদব, রবিচন্দ্রন অশ্বিন।
গেল দুই তিন বছর ধরে ভারতীয় ক্রিকেট দলের সবচাইতে বড় দুর্নাম ছিলো অস্ট্রেলিয়া-দক্ষিণ আফ্রিকা আর ইংল্যান্ডের মত জায়গাগুলোতে গিয়ে ভালো খেলতে না পারা । বিশ্বকাপের ঠিক আগে বিশ্বকাপের প্রস্তুতিমূলক ত্রিদেশীয় সিরিজটায় অস্ট্রেলিয়া আর ইংল্যান্ডের বিপক্ষে একদম জয়বিহীন থেকে ভারতীয় ক্রিকেট দল সে বিতর্ক যেন আরো উসকে দিলো । তার চাইতেও বড় হয়ে এসেছে ভারত যেভাবে ম্যাচগুলো হারল সেটা ।

india1242014
মাহেন্দ্র সিং ধোনির জন্য চ্যালেঞ্জটা আরো বড় হয়ে উঠে তখনই যখন তিনি তার দলের দিকে তাকিয়ে দেখতে পাবেন যে তার ২০১১ এর উপাখ্যানের মূল কুশীলবরাই তার এই দলটাতে নেই । অবসর নেওয়া ক্রিকেট কিংবদন্তী শচীন রমেশ টেন্ডুলকারের চাইতেপুরো টুর্নামেন্টেই বেশি রান করেছিলেন কেবল শ্রীলংকার তিলকরত্নে দিলশান । বোলিংয়ের পুরো টুর্নামেন্টে সবচাইতে বেশি উইকেট নেওয়া জহির খানকে পাবেন না । পাচ্ছেন না যুবরাজ সিং আর বিরেন্দর শেবাগের অস্ট্রেলিয়ায় প্রচুর ম্যাচ খেলার অভিজ্ঞতাকেও ।

Rohit-Sharma-Shikhar-Dhawan-and-Virat-Kohli1
ওপেনার শিখর ধাওয়ানের ব্যাটিং এভারেজ ৪২, ওয়ানডে ক্রিকেটে একমাত্র ব্যাটসম্যান হিসাবে দুইটি দ্বিশতক হাঁকানো রোহিত শর্মার গড় ৩৮, অধিনায়ক ধোনির ব্যাটিং গড় বাহান্নোর কাছাকাছি । দলের সেরা ব্যাটসম্যান বিরাট কোহলির গড় ৫১ । দক্ষিণ আফ্রিকা দলটার মত অতোটা কমপ্লিট ব্যাটিং লাইনআপ না হলেও ম্যাচ উইনিং ব্যাটিং লাইনআপ । কিন্তু সবচাইতে বড় প্রশ্নবোধক চিহ্নটা সেখানেই, কোহলি ছাড়া বিদেশে ধারাবাহিকভাবে ভালো খেলা আর ভারতীয় ব্যাটসম্যান কোথায় ? শেষ অস্ট্রেলিয়ার সাথে টেস্ট সিরিজটাতেও চার চারটে শতক হাঁকিয়ে ভিরাট কোহলি দেখিয়ে দিয়েছেন নিজের ক্লাস ।
তবে ভারতীয়রা যেখানে আশার আলো দেখতে পারে , সেই জায়গাটা হলো দেশে অতিমানবীয় সব ইনিংস খেলা রোহিত শর্মা বাইরে বার বার ব্যর্থ হয়ে টিটকিরি শুনলেও এবারের ত্রিদেশীয় সিরিজটায় একটা বড় শতক হাঁকিয়ে বিশ্বকাপে ভালো কিছু করার ইঙ্গিত দিয়েছেন । ধারাবাহিকভাবে অস্ট্রেলিয়ার সাথে টেস্ট সিরিজটায় ভালো করে গিয়েছেন রাহানেও । তবে একটা কথা খুব নিশ্চিত করেই বলা যায়, ভারত তাদের শিরোপা ধরে রাখার মিশনে কতোটা সফল হবে তার অনেকটাই নির্ভর করছে বিরাট কোহলির ব্যাটের উপর ।

স্টুয়ার্ট বিনি বাংলাদেশের বিপক্ষে
স্টুয়ার্ট বিনি বাংলাদেশের বিপক্ষে
দলের যাদের হালহকিকত সম্পর্কে আপনি নাও জানতে পারেন ? ১৩ ওয়ানডে খেলা অলরাউন্ডার আকশার প্যাটেল আর ৯ ওয়ানডে খেলা মিডিয়াম পেইস অলরাউন্ডার স্টুয়ার্ট বিনি । আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে দুজনের সূচনালগ্নে ব্যাটিংটা অতোটা ভালো না হলেও বোলিংটা মন্দ বলা যাবে না । আকশারের ওয়ানডে ক্যারিয়ারে জমা পড়ে গেছে ১৬ টি উইকেট আর স্টুয়ার্ট বিনির ১৩টি । ভারত মূলত জোর দিয়েছে এখানটাতেই । জোরে ভালো জায়গায় বল ফেলার লোকের অভাব ভারত টের পেয়ে আসছে গত বেশ কয়েক বছর ধরেই । আর অস্ট্রেলিয়ার মতো জায়গায় বিশ্বকাপ খেলতে গিয়ে অবশ্যই বোলিং অপশন বাড়ানোর দিকে নজর থাকার কথা নির্বাচকদের । আর সাথে মনে রাখতে হবে ১১১ ওয়ানডেতে প্রায় ১৭০০ রান আর ১৩৪ উইকেট নেওয়া রবীন্দ্র জাদেজার কথা । মোটামুটি স্পোর্টিং উইকেট হলে ভালো প্রভাব ফেলতে পারেন জাদেজাও ।

ভারতের দুই মূল পেসার শামি ও ভুবনেশ্বর কুমার
ভারতের দুই মূল পেসার শামি ও ভুবনেশ্বর কুমার

আসল সমস্যাটা বোধহয় বোলিংয়ে । আরো ভালো করে বলতে গেলে পেইস বোলিং এ ।
পশ্চিমবঙ্গের ছেলে মোহাম্মদ শামির ৪০ ম্যাচে ৭০ উইকেট । উইকেট প্রতি রান দিয়েছেন মাত্র ২৬ করে । যেকোন ভালো বোলারের জন্য ঈর্ষণীয় । ভুবনেশ্বরের ৪৪ ম্যাচে ৪৫ উইকেট । তবে ভুবির ইকোনোমি রেইট শামির চাইতে ভালো । ৫ এর নিচে । তবে দুইজনের মিল একটা জায়গায় । সেটা হলো জহির খান ছাড়া ভারতীয় দলে গত কয়েক বছরে আসা পেসারদের মধ্যে কেউই এই দুইজনের মতো টানা এতো ভালো জায়গায় বল ফেলতে পারতেন না । দুজনেরই বিপদে ফেলার মত মুভমেন্ট আছে ।
আরেক পেসার উমেশ যাদব । জোরে বল করতে পারেন । বলে মুভমেন্ট আছে । তবে তার সবচাইতে বড় সমস্যাটা বোধহয় বড্ড বেশি রান খরচা করেন উমেশ যাদব । অস্ট্রেলিয়ার সাথে টেস্ট সিরিজেও তাকে দেখেছি বেধড়ক পিটুনি খেতে । অবশ্যই পরিসংখ্যান , ইকোনোমি রেট , স্ট্রাইক রেট এগুলো গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার । কিন্তু যারা ক্রিকেট নিয়মিত ফলো করেন তারা জানেন এসব জিনিস সবসময় আসল ছবিটা আমাদের দেখাতে পারে না । একজন বোলারের বিশ্বকাপের মত আসরে আসল ব্যাপারটা হলো , তিনি কতোটা প্রভাব ফেলতে পারেন একটা ম্যাচের রেজাল্টে । ভারত খুব সম্ভবত বোলিং এ পিছিয়ে সেই জায়গাটাতেই ।
ফিটনেস আর ফিল্ডিং- এই দুই জায়গায় এশিয়ার বাংলাদেশ আর পাকিস্তান ছাড়া বাকি দুটো দল- ভারত আর শ্রীলঙ্কা প্রতিনিয়ত নিজেদের উপরের দিকে নিয়ে যাচ্ছে । তবে ট্রফি ধরে রাখতে হলে অস্ট্রেলিয়ার সবুজ বিশালাকৃতির মাঠগুলোতে উড়তেই হবে ভারতীয় দলের ফিল্ডিংকে ।
উইকেট স্পোর্টিং হবার সম্ভাবনা, মাহেন্দ্র ধোনির ক্রিকেট সেন্স , বিরাট কোহলি আর রোহিত শর্মার সাম্প্রতিক ভালো ফর্ম আর শতকোটি লোকের সমর্থনের শক্তি- একদম হিসাবের বাইরে ফেলে দেবেন না ভারতকে ।

কমেন্টস

কমেন্টস

One thought on “ভারতের টানা দ্বিতীয়বার ? নাকি নতুন রাজা ? কেমন হলো ভারতের দল ?

মন্তব্য করুন

10 + 9 =