বিশ্বাস ঐ সাদা সেনাদলে

লা লীগা কিংবা চ্যাম্পিয়ন্স লীগ ।
অথবা কোপা দেল রে ।
সংকুল পথ পাড়ি পাল ফুলিয়ে । তবে থামতে হয়েছে নাবিক জিনেদিন জিদানকে । তার অজেয় জাহাজ থেমেছিল সেভিয়া নামক দ্বীপে । এরপর তো সেই সেল্টা ভিগোর কাছে আরো দমে যাওয়া ।
আশংকা কোপা দেল রে’র অথৈ সমুদ্র জলে তলিয়ে যাওয়া । আশংকায় ঘি পড়েছে মদ্রিচ, মার্সেলো, কার্ভাহালদের আঘাত বেদনায় ।
দিশেহারা কি তবে মহামতি জিদান ?
বেশ দৃঢ়তায় জানিয়েছেন তিনি সামনে তাকাতে চান । রাস্তা বাতলেছেন বলেছেন ক্যামেরার ফ্ল্যাশে । তা তাকে অবশ্য বাতলে নিতেই হত । স্তাদিও বালাইদোসে যে তাকে আজ এক নতুন গল্প লিখতে হবে । যে গল্প ফিরে আসার, যে গল্প টিকে যাওয়ার ।
পারবেন কি আজ এই ফ্রেঞ্চ ভদ্রলোক ?
পারবেন কি বরফ খণ্ডের আঘাতে ডুবন্ত মাদ্রিদ জাহাজ কে টেনে তুলতে ?
নিজের প্রতি অহংবোধে বিশ্বাসটা রাখতেই পারেন তিনি ।
কেন ?
বেনিতেজের হাঁটু ভাঙ্গা মাদ্রিদের কথা মনে আছে ?
যে ভাঙ্গা হাঁটু রাতারাতি দৌঁড়েছে বিস্ময় পলকে ।
টানা ৪০ ম্যাচ অপরাজেয়, উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লীগ, উয়েফা সুপার কাপ কিংবা ক্লাব বিশ্বকাপ ।
সবই কিন্তু ঐ টেকো জিদানের টোটকাতেই বার্নাব্যুর উঠোনে এসেছে ।
৬ ম্যাচ !
হ্যা, মাত্র ৬ ম্যাচ সেরা একাদশ পেয়েছিলেন তিনি এই এক বছরে ।
বিবিসি ছাড়া নরওয়েতে শিরোপাও তার হাতে উঠেছে । হেসেছেন বহু স্বরণীয় ম্যাচে ।
তার অধীনেই তো বার্নাব্যুতে ভল্ফসবার্গ বধকাব্য ঘটিয়েছিলেন রোনালদো । তার অধীনেই তো রোনালদো-মোরাতা-বেঞ্জেমায় শেষ মুহুর্তে স্বরণীয় ফেরত গল্প রচিত হয়েছিল ।
তার অধীনেই তো দেপোর্তিভো, বার্সেলোনা শেষ মুহুর্তে রামোসে দমে গিয়েছিল ।

প্রত্যাশার চাপ আজ হয়ত আকাশছোঁয়া । মাদ্রিদ পতনের পরিক্রমায় । শেষ রক্ষার এই যাত্রায় সাথে নেই মার্সেলো, পেপে, কার্ভাহাল, ভারানে, মদ্রিচ, বেলদের মত নামগুলি ।
তাতে হয়ত হয়ত কিছুটা দমে যাওয়া । কিন্তু থেমে যেতে চাইবেন না ভাঙ্গা হাঁটুতে বিশ্বজয়ের এই রুপকার । সাজঘরে গলাভরে হয়ত ডেকে নিবেন থেকে যাওয়া রামোস-রোনালদোকে ।
হয়ত বলবেন,
রোনালদো !
ভুলে যাও চলমান ছন্দহীনতার কথা । ভুলে যাও কার্লোস কামেনিকে একা পেয়েও ব্যর্থতার কটু স্মৃতি । ভুলে যাও গোলবার বাঁধা ।
শুধু মনে রেখ তুমি রোনালদো, ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো ।
রোমন্থন করো কিভাবে শ্রেষ্ঠত্ব দ্বৈরথে ফিরেছিলে তুমি ।

আর সার্জিও রামোস ! বাতাসে উড়তে তোমার নেইকো মানা । সেট পিসে তোমার খুলি-বল প্রেমের গল্প আরেকবার লিখে দাও বালাইদোসের বিদ্রোহী ঘাসে ।

রাত বাড়ছে, পাল্লা দিয়ে বাড়ছে ভক্তদের শংকা, ভয় । এ শংকারই কি হবে জয় ?
নাকি টেকোর টোটকায় বালাইদোস হবে ক্ষয় ?
শংকাকে জোড় করে পাশে সরিয়ে দৃষ্টি এখন ভিগোর এক রণক্ষেত্রে । চোখ বুঁজে বিশ্বাস ঐ সাদা সেনাদলে । আস্থা একজন জিনেদিন ইয়াজিদ জিদানে ।

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

14 − 3 =