বিশ্বকাপ ফুটবল ২০১৮ : যেমন হল গ্রুপ ‘এফ’

রাশিয়ার মস্কোতে বিশ্বকাপ ফুটবল এর ড্র অনুষ্ঠিত হয়ে গেল। ২০১৮ সালের বিশ্বকাপে সুযোগ পাওয়া ৩২টা দল নিজেদের গ্রুপ সম্পর্কে জেনে গেল। ৮টি গ্রুপে ভাগ হয়ে এই ৩২টা দলই সামনের বছর বিশ্বকাপ ফুটবল এ লড়বে, ফুটবলবিশ্বে নিজেদের শ্রেষ্ঠত্ব জাহির করার বাসনা নিয়ে, কে কার থেকে বেশী শক্তিশালী, সেটা প্রমাণ করার তাড়না নিয়ে।

পুতিন, পেলে, ম্যারাডোনা, লিনেকার, কাফু, ব্লাঁ, পুয়োল, ক্যানাভারো, কানু, ম্যাথাউস, ইতো – সহ ফুটবল বিশ্বের সকল তারকার মেলা বসেছিল যেন এই অনুষ্ঠানে। গ্যারি লিনেকারের প্রাণবন্ত উপস্থাপনা দিয়েছিল অনুষ্ঠানে নতুন এক মাত্রা। সবশেষে ৩২টা দলকে আটটি গ্রুপে ভাগ করে দেওয়ার মাধ্যমে শেষ হয় অনুষ্ঠানটি।

একনজরে দেখে নেওয়া যাক, কোন কোন দল কোন কোন গ্রুপে পড়লো!

আর এই গ্রুপবিভাগের মাধ্যমেই আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হয়ে গেল বিশ্বকাপ ফুটবল এর কাউন্টডাউন – বিশ্বকাপের কাউন্টডাউন।

বিশ্বকাপ ফুটবল ২০১৮ : যেমন হল গ্রুপ 'এ'
আটটি গ্রুপে ৩২ দল

গোল্লাছুট ডটকমে প্রকাশিত হচ্ছে আট গ্রুপের প্রত্যেকটা গ্রুপ সম্পর্কে আলোচনা। কোন গ্রুপ বেশী শক্তিশালী, কোন গ্রুপ অপেক্ষাকৃত সহজতর, প্রত্যেক গ্রুপ থেকে কোন কোন দলের পরবর্তী রাউন্ডে উন্নীত হবার সম্ভাবনা হয়েছে, দলগুলোর শক্তিমত্তার তুলনামূলক আলোচনা ইত্যাদি আলোচনা করা হচ্ছে বাংলা ভাষার সর্বপ্রথম খেলাকেন্দ্রিক স্পোর্টসব্লগ – গোল্লাছুট ডটকমে।

আজকের আলোচনা গ্রুপ ‘এফ’ নিয়ে।

গ্রুপ ‘এফ’ এ আছে সুইডেন, দক্ষিণ কোরিয়া, মেক্সিকো ও চারবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন জার্মানি।

জার্মানি

  • ফিফা র‍্যাংকিং : ১
  • কোচ : জোয়াকিম লো
  • অধিনায়ক : ম্যানুয়েল নয়্যার (গোলরক্ষক)
  • বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ : ১৯ বার
  • সর্বোচ্চ অবস্থান : চ্যাম্পিয়ন (১৯৫৪, ১৯৭৪, ১৯৯০, ২০১৪)
  • যে স্টাইল/ফর্মেশানে খেলে : ৪-২-৩-১
  • গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড় : ম্যানুয়েল নয়্যার (গোলরক্ষক – বায়ার্ন মিউনিখ), ম্যাটস হামেলস (সেন্টারব্যাক – বায়ার্ন মিউনিখ), জশুয়া কিমিখ (রাইটব্যাক – বায়ার্ন মিউনিখ), টোনি ক্রুস (সেন্ট্রাল মিডফিল্ডার – রিয়াল মাদ্রিদ), টিমো ওয়ার্নার (স্ট্রাইকার – আরবি লাইপজিগ), জেরোম বোয়াতেং (সেন্টারব্যাক – বায়ার্ন মিউনিখ), লেওন গোরেতজকা (সেন্ট্রাল অ্যাটাকিং মিডফিল্ডার – শালকে ০৪), জুলিয়ান ভাইগেল (সেন্ট্রাল মিডফিল্ডার – বরুশিয়া ডর্টমুন্ড), মার্ক-অ্যান্দ্রে টের স্টেগেন (গোলরক্ষক – বার্সেলোনা), ইলকায় গুন্ডোগান (সেন্ট্রাল মিডফিল্ডার – ম্যানচেস্টার সিটি)
বিশ্বকাপ ফুটবল ২০১৮ : যেমন হল গ্রুপ ‘এফ’
জার্মানি

গতবারের বিশ্বকাপজয়ী জার্মানির এবারো বিশ্বকাপ জয়ের সম্ভাবনা সর্বাধিক। আর এর পেছনে কারণ হল তাঁদের খেলোয়াড়ের পাইপলাইন। এত বেশী ভালো খেলোয়াড় আছে তাদের, মূল একাদশ ছাড়াও অনায়াসেই আরও দুটো-তিনটে দল এমনিতেই হয়ে যায়। কোচ জোয়াকিম লো তাই বিশ্বকাপ স্কোয়াডে কোন ২৩ জনকে দলে রাখেন, সেটা একটা দেখার বিষয় হবে, আর এই ২৩ জন বাছাই করতে লো এর নিজেরও ঝামেলা হবে – বলাই বাহুল্য। গতবার বিশ্বকাপজয়ী সুপারস্টার খেলোয়াড় হামেলস, ক্রুস, নয়্যার, মুলার, গোতসা, ওজিল, হুভেডেস, শুরলা সম্পর্কে তো সবাই-ই জানেন, এরা ছাড়াও এই বিশ্বকাপে এদের হাত থেকে সমানতালে জার্মানির জন্য লড়তে প্রস্তুত আছেন জশুয়া কিমিখ, মার্ক আন্দ্রে টের স্টেগেন, জুলিয়ান ভাইগেল, লেওন গোরেতজকা, টিমো ওয়ার্নার, এমরে চ্যানের মত প্রতিভাধর পারফর্মাররা।

মেক্সিকো

  • ফিফা র‍্যাংকিং : ১৬
  • কোচ : হুয়ান কার্লোস ওসোরিও
  • অধিনায়ক : অ্যান্দ্রেয়া গুয়ার্দাদো (উইঙ্গার)
  • বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ : ১৬ বার
  • সর্বোচ্চ অবস্থান : কোয়ার্টার ফাইনাল (১৯৭০, ১৯৮৬)
  • যে স্টাইল/ফর্মেশানে খেলে : ৪-৩-৩
  • গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড় : হ্যাভিয়ের চিচারিতো হার্নান্দেজ (স্ট্রাইকার – ওয়েস্ট হ্যাম ইউনাইটেড), অ্যান্দ্রেয়া গুয়ার্দাদো (উইঙ্গার – রিয়াল বেতিস), গিলের্মো ওচোয়া (গোলরক্ষক – স্ট্যান্ডার্ড লিয়েগে), হেক্টর মোরেনো (সেন্টারব্যাক – এএস রোমা), হিরভিং লোজানো (উইঙ্গার – পিএসভি আইন্দহোভেন), হেক্টর হেরেরা (সেন্ট্রাল মিডফিল্ডার – এফসি পোর্তো), হেসুস কোরোনা (উইঙ্গার – এফসি পোর্তো), ওরিবে পেরালতা (স্ট্রাইকার – ক্লাব আমেরিকা), রাউল জিমেনেজ (স্ট্রাইকার – বেনফিকা)
মেক্সিকো

এবারে মেক্সিকোর শক্তি হতে পারে ইউরোপে খেলা তাদের অভিজ্ঞ খেলোয়াড়্গুলো। চিচারিতো, গুয়ার্দাদো, ওচোয়া, হেরেরা, মোরেনো – প্রতি পজিশানেই ইউরোপে খেলা অভিজ্ঞ খেলোয়াড় আছে তাদের। সমস্যা শুধু একজায়গাতেই, মাঝে মাঝেই চাপে ভালোরকম ভেঙ্গে পড়ে তারা। কোপা আমেরিকাতে চিলির কাছে ৭-০ ও কনফেডারেশানস কাপে জার্মানির কাছে ৪-১ গোলে হার এ কথারই প্রমাণ দেয়।

সুইডেন

  • ফিফা র‍্যাংকিং : ১৮
  • কোচ : জানে অ্যান্ডারসন
  • অধিনায়ক : অ্যান্দ্রেয়া গ্র্যাঙ্কুইস্ট
  • বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ : ১২ বার
  • সর্বোচ্চ অবস্থান : রানার্স আপ (১৯৫৮)
  • যে স্টাইল/ফর্মেশানে খেলে : ৪-৪-২
  • গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড় : এমিল ফোর্সবার্গ (উইঙ্গার – আরবি লাইপজিগ), অ্যান্দ্রেয়া গ্র্যাঙ্কুইস্ট (সেন্টারব্যাক কুবান ক্রাসনোদার), ভিক্টর লিন্ডেলফ (সেন্টারব্যাক – ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড), অ্যালেক্সান্দার ইসাক (স্ট্রাইকার – বরুশিয়া ডর্টমুন্ড), ভিক্টর ক্লায়েসন (মিডফিল্ডার – কুবান ক্রাসনোদার)
সুইডেন

সুইডেনের জন্য জলাতান ইব্রাহিমোভিচ-পরবর্তী যুগের প্রথম টুর্নামেন্ট হবে এই বিশ্বকাপ ২০১৮। তবে ইতালিকে হারিয়ে বিশ্বকাপে জায়গা পাওয়া সুইডেনের হয়ে বিশ্বকাপ খেলার জন্য অবসর ভেঙ্গে ইব্রা আবার খেলতে আসতেও পারেন বলে শোনা যাচ্ছে। দলের প্রাণভোমরা এখন আরবি লাইপজিগ উইঙ্গার এমিল ফোর্সবার্গ। অ্যাটাকিং মিডের যেকোন পজিশানে খেলতে পারা এই উইঙ্গার যেকোন মুহূর্তে বদলে দিতে পারেন সকল হিসাব নিকাশ।

দক্ষিণ কোরিয়া

  • ফিফা র‍্যাংকিং : ৫৯
  • কোচ : শিন তায়ে ইওন
  • অধিনায়ক : কি সুং ইয়ং (মিডফিল্ডার)
  • বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ : ১০ বার
  • সর্বোচ্চ অবস্থান : ৪র্থ (২০০২)
  • যে স্টাইল/ফর্মেশানে খেলে : ৪-৪-২
  • গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড় : হিউং মিন সন (উইঙ্গার – টটেনহ্যাম হটস্পার), পার্ক জু হু (লেফটব্যাক – ক্লাবহীন), কি সুং ইয়ং (মিডফিল্ডার – সোয়ানসি সিটি), লি চুং ইয়ং (মিডফিল্ডার – ক্রিস্টাল প্যালেস)

গ্রুপের দলগুলোর মধ্যে দক্ষিণ কোরিয়া কাগজে-কলমে দুর্বলতম। ৪-৪-২ ফর্মেশানে খেললেও নতুন ম্যানেজার শিন তায়ে ইওন ৩-৫-২ ফর্মেশানেও দলকে খেলাতে পছন্দ করেন। দলের আশার বাতিঘর হয়ে আছেন ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে খেলা তিন মিডফিল্ডার – টটেনহ্যাম হটস্পারের সন হিউং মিন, সোয়ানসি সিটির কি সুং ইয়ং আর ক্রিস্টাল প্যালেসের লি চুং ইয়ং।

গ্রুপ থেকে পরবর্তী রাউন্ডে উঠতে পারে যে দুই দল : ১. জার্মানি ২. সুইডেন

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

fourteen − 8 =