বালজারেত্তির অবসর

 

ইতালির অন্যতম শ্রেষ্ঠ লেফটব্যাক হবার সামর্থ্য তাঁর ছিল। ২০১২ ইউরোতে সেটা প্রমাণও করেছিলেন তিনি। কিন্তু ইনজুরিপ্রবণ আরও দশটা আক্ষেপের সাথে শেষ পর্যন্ত যুক্ত হয়ে গেল তাঁর নামটাও।

তিনি ফেদেরিকো বালজারেত্তি। টট্টি, জেরার্ড, গিগসদের মত আনুগত্যের শেষকথা না হলেও তিনি নিজেও কম ক্লাব-অন্তঃপ্রাণ ছিলেন না। খেলেছেন জুভেন্টাস, ফিওরেন্টিনা, পালের্মো, রোমার মত ক্লাবে। ক্যালসিওপোলি স্ক্যান্ডালে ২০০৬ সালে জুভেন্টাস যখন জর্জরিত, ইব্রাহিমোভিচ-ভিয়েরা-ক্যানাভারোদের মত তুরিনের বুড়িকে অকূল পাথারে ফেলে গিয়ে অন্য ক্লাবে যোগ দেননি তিনি, থেকে গেছেন বুফন-দেল পিয়েরো-নেদভেদদের সাথে জুভেন্টাসে। জুভেন্টাসকে আবার সিরি আ তে প্রোমোট করায় অবদান তাঁরও ছিল।

আবার রোমাতে খেলোয়াড় হিসেবে থেকেছেন সাকল্যে ১১০৬ দিন, কিন্তু যেকোন রোমা সমর্থককে জিজ্ঞাসা করলে ক্লাবের অন্যতম কিংবদন্তীর মর্যাদাই দেবে সে বালজারেত্তিকে। এর কারণ রোমার প্রতি তাঁর ভালোবাসা। রোমার হয়ে তাঁর প্রথম গোল ছিল শহরের তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বী লাজিওর বিপক্ষে। গোলের পর তাঁর উদযাপন দেখলে কে বলবে বালজারেত্তি আজীবন রোমায় ছিলেন না?

সেই বালজারেত্তি আজ হার্নিয়া ও পেলভিক ইনজুরির কাছে হার মেনে ৩৩ বছর বয়সেই ফুটবল খেলা ছেড়ে দিলেন। রোমাতে থেকেই অবসর নিলেন তিনি, তাই বলে রোমার সাথে সম্পর্ক এখনই শেষ হচ্ছে না তাঁর, ক্লাব ডিরেক্টর ওয়াল্টার সাবাতিনির অধীনে স্পোর্টস ডিরেক্টর হিসেবে কাজ চালিয়ে যাবেন তিনি। স্পোর্টিং ডিরেক্টর হয়ে রোমার অন্তরালের সকল কাজে, ট্রান্সফার কার্যাবলীতে মাঠের সেই ক্লাব-অন্তঃপ্রাণ খেলোয়াড়টির মতই তাঁর জাদু দেখাবেন, রোমা সমর্থকদের চাওয়া এটাই।

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

19 + eighteen =