প্রস্তুতিটা ভালো হলো বার্সেলোনার

মৌসুমের প্রথম প্রস্তুতি ম্যাচে জিমন্যাস্টিকস এফসির বিপক্ষে ৩-১ গোলে জয় পাওয়ার পর গত রাতে জিরোনা এফসির বিপক্ষে প্রস্তুতি ম্যাচেও ৩-১ গোলের জয় পেয়েছে স্প্যানিশ জায়ান্ট বার্সেলোনা।

জোড়া গোল করেছেন মেসি


আগের ম্যাচে স্কোয়াডের সবাইকে গেমটাইম দেওয়ার জন্য দুই অর্ধে দুই একাদশ নামিয়েছিলেন কোচ রোনাল্ড কোম্যান। জিরোনার বিপক্ষেও দুই অর্ধে প্রায় আলাদা দুই একাদশ খেলান তিনি। প্রথমার্ধে অভিজ্ঞ মেসি,কৌতিনহো,পিকে,বুস্কেটস,আলবা দের সাথে ছিলেন তরুণ ট্রিনকাও, ডি জং, আরাউহো, রবার্তোরা। অভিজ্ঞরা খেললেও প্রথমার্ধে বার্সা ছিল ধীরগতির। প্রতিপক্ষের ডিবক্সে বেশি আক্রমণ করতে পারেনি। তবে বায়ার্ন থেকে ফিরে আসার পর কৌতিনহো তার ফর্ম ধরে রেখেছেন। কোচ তাকে তার পজিশন মতো খেলার সুযোগ করে দিচ্ছেন। তার প্রতিদান তিনি দিচ্ছেনও পারফরমেন্সে।
প্রথমে একটি শট গোলবারে লাগলেও ২১ মিনিটে মেসির বাড়ানো বলে ট্রিনকাও গোলকিপারের পাশ দিয়ে বল পাস দেন কৌতিনহোর কাছে। ট্যাপ ইনে গোল করেন কৌতিনহো। আগের ম্যাচেও তিনি গোল করেছিলেন। প্রথমার্ধের অতিরিক্ত সময়ে কৌতিনহোর পাস থেকে পাওয়া বলে ডান পায়ের জোরালো শটে গোল করেন লিওনেল মেসি। ক্লাব ছাড়তে চাওয়ার পর মাঠে ফিরে দ্বিতীয় ম্যাচে এসে গোলের দেখা পেলেন মেসি।

গোল করেছেন কুতিনহোও


দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই ফ্রাঙ্কি ডি জং এর ভুল পাস থেকে গোল দিয়ে ব্যবধান কমান জিরোনার খেলোয়াড় সাইজ। এর ঠিক ৫ মিনিট পরেই আবারো মেসির গোলে ৩-১ এ এগিয়ে যায় বার্সেলোনা। ৬০ মিনিটের দিকে ডিফেন্ডার আরাউহো আর গোলরক্ষক নেতো ছাড়া সবাইকে উঠিয়ে নেন কোম্যান। এরপর মূল দলের তরুণ খেলোয়াড় আর লা মাসিয়ার খেলোয়াড় দের মাঠে নামান।তখনই পাল্টে যায় বার্সার খেলা। গতি আর ছন্দে বারবার আক্রমণ চলতে থাকে প্রতিপক্ষের ডিবক্সে। দুর্ভাগ্যজনক ভাবে আর কোনো গোল না হলেও এই ৩০ মিনিট বার্সা খেলেছে তাদের সুন্দর ফুটবল।

ত্রিনকাও


পেদ্রি ৪ টি শট নিয়েছেন গোলপোস্টে, যার ৩ টাই ছিল অন টার্গেট। এবং জিরোনা গোলরক্ষক খুবই দক্ষতার সাথে সেভ করেছেন ৩ টা শটই। নাহলে গোলের সংখ্যা আরো বেশি হতে পারতো বার্সার। এছাড়া তরুণ ডিফেন্ডার আরাউহো নিজেকে অারো একবার প্রমাণ করেছেন। নিজের গতি,দক্ষতা এবং উচ্চতা কাজে লাগিয়ে বারবার থামিয়ে দিয়েছেন জিরোনার আক্রমণ। বার্সার নড়বড়ে রক্ষণভাগের জন্য ত্রাতা হয়ে আসতে পারেন তিনি নতুন মৌসুমে।

পেদ্রি


জেরার্ড পিকের মূল একাদশে জায়গা হারানোর সম্ভাবনা প্রবল। সেক্ষেত্রে নতুন ডিফেন্ডার কিনতে না পারলে কোচ হয়তো লংলের পাশে আরাউহোর উপরই ভরসা রাখবেন। এছাড়া ট্রিনকাও,ডেম্বেলের খেলা ছিল চোখে পড়ার মতো। এটাকিং মিডফিল্ডার হিসেবে খেলতে নেমে ট্রিনকাও এই পজিশনেও দেখিয়ে দিয়েছেন তার সামর্থ্য। গোলের সুযোগ তৈরির পাশাপাশি গোল করিয়েছেনও। প্লেমেকারের দায়িত্বও পালন করেছেন।

কনরাড দে না ফুয়েন্তে


ট্রিনকাও কে কেনার জন্য লেস্টার সিটির ৪০ মিলিয়ন ইউরোর অফার ফিরিয়ে দিয়ে বার্সা যে ভুল করেনি তাই প্রমাণ করলেন ট্রিনকাও আবারো। ডেম্বেলে যথারীতি তার গতি দিয়ে বিভ্রান্ত করেছেন প্রতিপক্ষের ডিফেন্সকে। যদিওবা গোলের সেরা সুযোগ পেয়েও গোলবারের অনেক উপর দিয়ে মেরেছেন বল টা। আর বার্সার আমেরিকান তরুণ ফরোয়ার্ড কনরাডও মাঠের পারফরমেন্স দিয়ে মুগ্ধ করেছেন কোম্যান কে। প্রেস কনফারেন্সে কনরাড এবং পুজের উচ্ছ্বসিত প্রশংসা করেছেন বার্সা বস।

নতুন জুটি?


নতুন মৌসুমে মেসি,কৌতিনহো,ডেম্বেলে দের পাশাপাশি লা মাসিয়া থেকে উঠে আসা তরুণ পুজ,ফাতি, আরাউহো,কনরাড,পেদ্রি দের উপর ভরসা করতেই পারেন রোনাল্ড কোম্যান। সুন্দর ফুটবলের জয় হবে তাহলে। গত মৌসুমের শিরোপাখরা ঘুচে যেতে পরিবর্তন জরুরি হয়ে গেছে বার্সেলোনায়। শনিবারে এলচের বিপক্ষে শেষ প্রস্তুতি ম্যাচে মাঠে নামবে বার্সা। তারপর ভিয়ারিয়ালের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে শুরু হয়ে যাবে নতুন মৌসুমে লা লীগায় তাদের যাত্রা।

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

one × 4 =