বার্সার উঠোন রক্ষা নাকি মাদ্রিদের টানা ন্যু ক্যাম্প বিজয় ?

উত্থান-পতন, পঁচা শামুকে পা কাটা, টানা উড়তে থাকা কিংবা ধারাবাহিক ছঁন্দপতন ।

এল ক্ল্যাসিকো এলেই সকল আবহাওয়া আর সমীকরণ ভস্মিভূত উত্তেজনার আগ্নেয়গিরীতে ।
যে আগ্নেয়গিরীর গলনান্ক লাভায় খোদিত ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো, লিওনেল মেসি, আন্দ্রেস ইনিয়েস্তা কিংবা সার্জিও রামোসের মত নামগুলো ।

এল ক্ল্যাসিকো !
আপাত বাহ্যিক দৃষ্টিতে এটি স্রেফ একটি ফুটবল ম্যাচ । তবে যোগ্যতা-যশের প্রতি সুবিচার কিংবা আত্নমর্যাদার প্রশ্নে এটি রুপ নেয় এক অগ্নি রণক্ষেত্রে । যে রণক্ষেত্রে ‘একচুল ছাড় না দেওয়া’ বাক্যটির উত্তম প্রমাণ প্রদর্শনীতে উন্মাদ হয়ে ওঠে দু’দলই ।

এল ক্ল্যাসিকো !
এই এক মহরণকে ঘিরে থমকে বিভক্ত হয়ে যায় গোটা ফুটবল বিশ্ব ।
একদলের কন্ঠে আলা মাদ্রিদ জয়ধ্বনি । আরেক দলের চোখে মুখে ভিস্কা এল বার্সা শ্লোগানের রুপ-মোহিনী ।

দরজায় আবারো কড়া নাড়ছে এল ক্ল্যাসিকো । মাত্র কয়েকটি ঘন্টার অপেক্ষা । উত্তেজনার সকল আনাজ-পাতি নিয়ে প্রস্তুত ক্যাম্প ন্যু ।
প্রস্তুত স্বাগতিক বার্সেলোনা, প্রস্তুত অতিথি রিয়াল মাদ্রিদ ।

সাম্প্রতিক এল ক্ল্যাসিকোর আতিথেয়তা !
এ যেন এক অদ্ভুত স্বাগতিক সত্‍কার ।
শেষ দুই ক্ল্যাসিকো মহরণে মেজবানরা পেয়েছে বেদম লজ্জ্বা । বার্নাব্যুতে নেইমার, সুয়ারেজ, ইনিয়েস্তাদের অগ্নিলাভায় গলে লজ্জ্বা পেতে হয়েছিল তত্‍কালীন রাফা বেনিতেজ শিষ্যদের ।
সে শোধ অবশ্য অনেকটাই উঠেছে ক্যাম্প ন্যু’তে ।
জেরার্ড পিকের হেডার গোল যখন আরেকটি কাতালান জয় লেখার পাঁয়তারা করছিলো তখনই ফরাসী বিপ্লবের শিশুতে আত্নপ্রকাশ ফ্রেঞ্চ করিম বেঞ্জেমার । দুর্দান্ত ভলিতে সমতা ।
অতঃপর পাকাপাকিভাবে ম্যাচে জাঁকিয়ে বসা । ফলাফলটা পেয়েই গিয়েছিলো লস ব্ল্যান্কোসরা । রোনালদোর আলতো জুসি ক্রসে মাথা ছুঁইয়ে গ্যারেথ বেলের জাল আলিঙ্গন । বাতাসে উড়তে বোধহয় ব্ল্যান্কোসরাই জানে । তাইতো একই সাথে ঝাঁপিয়ে উঠেও জর্দি আলবার স্বাভাবিক ভূপতন । তবে ম্যাচ শাসক এটিকে যেন দেখলেন অস্বাভাবিকের সীমাহীনতায় ।
পরিষ্কার গোলটি বাতিলের পর উত্তেজনার পারদ আরও বেড়েছিল বৈকি । রোনালদো শট ক্রসবারে লেগে ফিরে আসা কিংবা রামোসের মাঠ বহিস্কারাদেশ ।
যেটির পরিসমাপ্তি শেষতক গিয়ে ঠেকেছে ক্রিশ্চি-বেল রসায়নে ।
এবার বল ভাসিয়ে পাঠালেন বেল ।
লাফিয়ে বল দখলের লড়াইয়ে এবার দানি আলভেজ । পারলেন না তিনি বল ছুঁতে, শীতল মস্তিস্কে বল গ্রহণ অতঃপর তাকে জালে জড়িয়ে রোনালদোর গোল বরণ ।
চরণের ফাঁক গলে কিংবা পাশ চেঁপে শুধু বোকা দর্শক বনে থাকলেন ব্রাভো, পিকেরা ।
ট্রেডমার্ক উদযাপনের সাথে নীরবতার জন্ম দেওয়া সেই ক্যালমা উদযাপনে রোনালদো ক্যাম্প ন্যুতে পুঁতে দিয়ে এসেছিলেন শুভ্রতার জয়গান ।

এরপর পেরিয়েছে পাক্কা সাতটি মাস ।
আর এ সাতটি মাসে সিআর সপ্তমের ঝুলিতে যোগ হয়েছে চিরল্য বিরল অর্জন ।
রিয়াল মাদ্রিদের নামের পাশে হেসেছে লা-আনদেসিমা ও সুপার কাপের সম্মাননা ।
বার্সেলোনার ঝুলিতে লীগা ও সুপার কাপ মর্যাদা ।

সাম্প্রতিক আবহাওয়া বার্তায় রিয়ালের আকাশে পরিচ্ছন্ন শুভ্র বরফ মেঘ থাকলেও বার্সার আকাশে ঘোলাটে-প্রাকনিশা ।
মাদ্রিদের টানা জয়রথের জবাবে বার্সার আলাভেস-হারকিউলিস হোঁচট । তবে ঝকঝকে মেঘের দিনও বৃষ্টি ছাড়ে বৈকি ।
নইলে উইং নির্ভরতার ব্রহ্মাস্থ গ্যারেথ বেল কিংবা মাঝমাঠের সূতোসুন্দরের কারিগর টনি ক্রুসকে আঘাত মামলায় ছিটকে পড়তে হবে কেন ।

ঘোলাটে বার্সা কিংবা রোগাটে মাদ্রিদের মধ্যকার মহাযুদ্ধ উত্তেজনায় অবশ্য এসব তর্কের বাইরেই থাকবে ।
সবকিছু ছাপিয়ে, প্রাণপন দাপিয়েই যাবে দুটো দল ।
তবে শেষ হাসি হাসবে এক দলই ।
কে জানে উত্তেজনাকে অমিমাংসীত রাখতে গুটিও চালতে পারেন ফুটবল বিধাতা ।
সে গুটিচালে যে শত-কোটি প্রাণ বিদ্রোহ জানাবে তা বলাই বাহুল্য ।

বার্সার উঠোন রক্ষা নাকি মাদ্রিদের টানা ন্যু ক্যাম্প বিজয় ?
নাকি বিধাতার অমিমাংসীত গুটিচাল ?

উত্তর পেতে অপেক্ষা গভীর রাতের সূচনারম্ভে ।

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

three × 4 =