ফ্যাক্স মেশিনে সর্বনাশ!

পেরেজ আংকেলের টাকার তো কোন অভাব নেই। ১০০ মিলিয়ন ডলারের নিচে উনি কথাই বলেন না। সেবার যখন বেলকে কিনল তখন সেই কি হুলস্থূল ব্যাপার স্যাপার! চারিদিকে হান্ড্রেড মিলিয়ন ডলার ম্যান রব! কোথায় হারিয়ে গেল সেই হান্ড্রেড মিলিয়ন ডলার ম্যান! পুরা বাজে খরচা! সম্প্রতি শুনলাম নেইমারকে কেনার জন্যও নাকি প্রায় ২০০ মিলিয়ন ডলার খরচ করতে রাজি পেরেজ আংকেল!

টাকা আছে তাদের তারা খরচ করবে সেটা নিয়ে আমার সমস্যা নাই। কিন্তু এত মিলিয়ন মিলিয়ন টাকা খরচ করে আর একটা ভালো দেখে ফ্যাক্স মেশিন কিনতে পারে না? একটা ফ্যাক্স মেশিনের দাম কতই বা? ১০০ ডলার? আপনি ১০০ মিলিয়ন খরচ করতে পারেন কিন্তু ১০০ ডলার খরচ করতে পারেন না! মাত্র ১০০ ডলার বাঁচাতে গিয়ে কেউ এভাবে মারা খায়? ছে ছে!

ডি গিয়ার কন্ট্রাক্ট পুরানা ফ্যাক্স মেশিন প্রিন্ট করতে করতে ট্রান্সফারের টাইম শেষ! আর চেরিশেভ এর ব্যান্সের ম্যাসেজটা তো ফ্যাক্সে আসলই না! যার ফলে বাদ পড়ে গেলেন কোপা থেকে। অথচ মাত্র ১০০ ডলার খরচ করলেই এমন কিছুই হইতো না!

তবে হ্যাঁ, কোপা থেকে বাদ পড়ছেন এইটা কোন ব্যাপার না। বস চড়৭ এর মত করে বলবেন, হয়তো লোকে বলবে আমরা কোপা থেকে বাদ পড়েছি তবে আমাদের মাথায় আমরাই কোপার চ্যাম্পিয়ন!

সে যাই হোক। আশা করি তাড়াতাড়ি একটা ফ্যাক্স মেশিন কিনে নিবেন।  তাহলে যদি একটা ট্রেবল জিততে পারেন আর কি। ধন্যবাদ।

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

three × five =