ফাতি-মেসির গোলে স্বস্তির জয় বার্সার

চিরচেনা ন্যু ক্যাম্প। চিরচেনা মেসি, পিকে, টার স্টেগান রা। কিন্তু গ্যালারী টা যেন অচেনা। করোনা মহামারীর পর বার্সা – লেগানেস ম্যাচ দিয়ে ন্যু ক্যাম্পে ফুটবল ফিরলেও, ফেরা হয়নি দর্শকদের। লাখখানেক ধারণ ক্ষমতার গ্যালারীটা তাই ফাঁকা রেখেই মাঠে নামতে হয়েছিল মেসি,পিকে দের।


ঘরের মাঠে দর্শক দের সমর্থন ছাড়া খেলতে নেমে শুরুতেই যেন খেই হারিয়ে ফেলেছিল বার্সেলোনা। প্রথম ১৩ মিনিট বার্সাকে চাপে রাখে লেগানেস। ভাগ্য খারাপ না হলে গোলও হয়ত পেয়ে যেত তারা। ১১ মিনিটে মিগুয়েল গেরেরোর শটটি বার্সা গোলরক্ষক টার স্টেগান কে পরাস্ত করতে পারলেও গোললাইনে বাধা হয়ে দাঁড়ান ডিফেন্ডার ক্লেমেন্ত লেংলেট। পরের মিনিটেই গেরেরোর আড়াঅাড়ি নেওয়া জোরালো শট টা গোলবারের পাশ দিয়ে চলে যায়। মূলত এরপরেই বার্সা খেলার নিয়ন্ত্রণ নিতে শুরু করে পজেশন ধরে রাখার মাধ্যমে।


বল পায়ে রাখতে পারলেও, বার্সেলোনা গোলের সুযোগ তৈরি করতে পারছিল না কিছুতেই। বারবার লেগানেসের ডিফেন্সে বাধা পেয়ে ফিরে আসতে হয়েছে মেসি, আনসু ফাতি দের। লেগানেসের রক্ষণে এদিন দেয়াল হয়ে দাঁড়িয়েছিলেন স্প্যানিশ ডিফেন্ডার রদ্রিগো তারিন। যিনি নিজেও বেড়ে উঠেছেন বার্সা একাডেমিতেই। বার্সেলোনা বি দলের হয়ে খেলেছেন ৫০ টি ম্যাচ। উয়েফা ইয়ুথ লীগের ফাইনালে গোল করে চ্যাম্পিয়ন করেছেন দল কে। ন্যু ক্যাম্পে সেই বার্সার বিপক্ষে খেলতে নেমে বারবার রুখে দিচ্ছিলেন বার্সার আক্রমণ।
৪৩ মিনিটে ১৭ বছর বয়সী বার্সা ফরোয়ার্ড আনসু ফাতি গোল করে এগিয়ে দেন দল কে। এবারের লা লীগায় ৫ম এবং বার্সা মূলদলের হয়ে নিজের ৬ষ্ঠ গোল ছিল এটি আনসু ফাতির। দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে সুয়ারেজের বদলি হিসেবে মাঠ থেকে উঠে আসার আগ পর্যন্ত নিজের প্রতিভার পরিচয় রেখে গেছেন ফাতি।


এদিনও নিষ্প্রভ ছিলেন বার্সা ফরোয়ার্ড অ্যান্টোয়ান গ্রিজম্যান। ৬৩ মিনিটে মেসির বাড়িয়ে দেওয়া বলে নেলসন সেমেদোর ক্রসে পা ছুঁইয়ে গ্রিজম্যান বল জালে জড়ালেও তা বাতিল হয়ে যায় ভিএঅার পদ্ধতি তে। রিপ্লে তে দেখা যায় অফসাইডে ছিলেন সেমেদো। এর মিনিট তিনেক পরেই ডি বক্সে মেসিকে ফাউল করে ভুল করে বসে লেগানেস। দেড় মিনিটের বেশি সময় নিয়ে ভার পর্যবেক্ষণ করেও পেনাল্টির পক্ষেই থাকে রেফারির সিদ্ধান্ত। পেনাল্টি থেকে গোল দিয়ে বার্সেলোনা কে ২-০ গোলে এগিয়ে নেন অধিনায়ক লিওনেল মেসি। লা লীগার এবারের আসরে মেসির গোলসংখ্যা দাঁড়ালো ২১। শেষ দিকে লেগানেসের বদলি ফরোয়ার্ড এসেলে বারবার বার্সা ডিফেন্সে ঢুকে পড়লেও আর কোনো গোল ছাড়াই শেষ হয় খেলা।


মিডফিল্ডার রিকি পুইগ বদলি হিসেবে মাঠে নামার পর সামান্য সময়েই বারবার নিজের প্রতিভার স্বাক্ষর রেখেছেন। অন্যদিকে কিছুটা ইনজুরড জেরার্ড পিকের বদলি হিসেবে মাঠে নামার ৯ মিনিটের মাথায় মৌসুমের ৫ম হলুদ কার্ড দেখে শুক্রবারের গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচের জন্য নিষেধাজ্ঞা পেয়েছেন স্যামুয়েল উমতিতি। সেভিয়ার সাথে পিকে খেলতে না পারলে কঠিন পরীক্ষা দিতে হবে বার্সার তরুণ রক্ষণভাগ কে।


ম্যাচের শেষ দিকে এসে রেফারি মার্টিনেজ মুনিয়েরা মেজাজ হারালে শেষ ১৫ মিনিটেই বার্সার ৫ জন খেলোয়াড় এবং লেগানেসের একজন খেলোয়াড় হলুদ কার্ড দেখেন, আর লেগানেস কোচ হ্যাভিয়ের আগুইরে দেখেন লাল কার্ড।


আগের ম্যাচে বার্সার হয়ে দুর্দান্ত খেলা ফ্রেঙ্কি ডি ইয়ং আর মার্টিন বার্থওয়েট কে বিশ্রাম দেওয়া হয়েছিল শুক্রবারে সেভিয়ার সাথে গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচের জন্য। আজকের জয়ে ২৯ ম্যাচে ৬৪ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষেই থাকলো সেতিয়েনের বার্সা।

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

four × 5 =