পিছে তাকানোর সুযোগ নেই

৫ম ওভারে ১৪
৬ষ্ঠ ওভারে ১৫
১১ তম ওভারে ১১
১২ তম ওভারে ১৫
অনেক ডট বল করেছি আমরা , কিন্তু বাউন্ডারিও দিয়েছি সমান তালে ।
১৫ ওভারে ১২০ এর মধ্যে এই চারটা ওভারেই ৫৫ রান ।
আই রিপিট, ২৪ বলে ৫৫ রান !
১২ টা বল সাকিবের আর ৬টা করে রনি আর নাসিরের ।
কোহলি কিংবা ধাওয়ানকে গ্রেটনেস দেওয়ার আগে ক্যালকুলেট করে দেখি আমরা আমাদের কাজগুলো ঠিকভাবে করেছি কিনা ।
সাকিব সবচেয়ে যেদিন বেশি দরকারি ছিলো সেদিনই তার মধ্যে আব্দুর রাজ্জাক রাজের শর্টবলের ভূত চেপে বসলো । আবু হায়দার রনি দুর্ভাগা। নাসির অনেক ভালো এফোর্টের পরেও প্রেসার রিলিজ হয়ে যাওয়ায় শেষমেষ সে-ও মার খেয়ে বসলো ।
কথা ছিলো নিজেদের হোমওয়ার্কের চেয়ে বেশি কিছু করে দেখাবো । মিডল অর্ডার ব্যাটিং এ নিজেদের হোমওয়ার্কটাও ঠিকভাবে করতে পারি নাই । তারপরেও রিয়াদের অসাধারণ একটা ক্যামিওর কল্যাণে এসে গেলো ফাইট করার পুঁজি ।
আর বোলিং এর কথা তো বলেই ফেললাম ।
তবে এখান থেকে পিছে তাকিয়ে দেখারও সুযোগ নেই আমাদের । টিটোয়েন্টি বিশ্বকাপটা আছে । সবার আগে মেইন রাউন্ডে কোয়ালিফাই করা । আর তারপরে মেইন রাউন্ডের একটা একটা ম্যাচ নিয়ে ভাবতে হবে ।
এখান থেকে আমরা শুধু সামনের দিকেই হাঁটতে পারি । পিছের দিকে তাকিয়ে থামলেও টেম্পল রান গেমসের দানবের মত এই হারের ভূতের সাথে আমাদের ব্যবধান আরো কমে যাবে। এই হার যেন গ্রাস না করে ! এই হার যেন শুধু শেখায় !
‪#‎প্রাউড‬

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

7 − 6 =