পারবেন দিবালা?

ছেলেটা ব্যাতিক্রম। কারণ তার সাথে কোনো রূপকথার নায়কের তুলনা হয় না। কেউ স্বপ্ন দেখেনা সে হারানো রাজ্য উদ্ধার করে আনবে। সবাই শুধু স্বপ্ন দেখে সে পরাজিত সেনাপতিকে তাদের উদ্দেশ্য পূরণে সাহায্য করবে। যে সুযোগটা অন্য কেউ পায়নি, সেটা অল্প বয়সেই সে পেয়ে গেল।

দীর্ঘ ২০ বছরের অবসান ঘটিয়ে দুই প্রজন্মের রসায়নে দল গঠন করবেন সর্বশেষ রাজ্য হারানো দলের সৈনিক। বুড়োর হাড়ে আছে অভিজ্ঞতা, আছে সিংহাসন হতে চ্যুত হওয়ার বেদনা।

দিবালা আর মেসি, এই দুইয়ের একত্রে খেলার প্রতীক্ষাটা হয়তো শেষ হবে আজ রাতেই। কাল ভোর সাড়ে পাঁচটায় উরুগুয়ের বিরুদ্ধে সেই কাঙ্খিত ম্যাচ। দেখাই যাক, নতুন মেসি তকমা পাওয়া প্রথম ভাগ্যবান আলবিসেলেস্তে কিভাবে সেটার সূচনা করেন ।

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

fourteen + 16 =