নতুনের আবাহনে ভিনি ভিডি ভিসির সম্ভাবনা?

‘ভিনি ভিডি ভিসি’- রোমান এই বাক্য কে আমাদের মাতৃভাষায় অনুবাদ করলে দাড়ায় এলাম, দেখলাম, জয় করলাম। চার বছর পর ক্রিকেট রোমাঞ্চের পসরা সাজিয়ে দুয়ারে কড়া নাড়ছে ক্রিকেটের বিশ্ব আসর। রাত পোহালেই সে এসে হাজির হবে আপনার ড্রইংরুমে, টিভি সেটের মধ্য দিয়ে। এমন অনেক মুখ দেখবেন, যাদের দর্শন পাননি আমাদের উপমহাদেশে হওয়া গত বিশ্বকাপে। এরা কিন্তু নতুনের কেতন উড়িয়ে নিজের দেশে শিরোপা নিয়ে যেতে রাখতে পারেন ‘এক্স ফ্যাক্টর’ এর ভুমিকা। আজকে আমার কলম আপনাদের জানানোর চেষ্টা করবে সেই সব নতুনদের সম্পর্কে।

২০১৪ সালের প্রথম প্রহরে ক্রিকেট প্রেমীরা যে ঘটনা দেখে তাজ্জব হয়ে গেছিলেন সেটা হল শহীদ আফ্রিদির এক যুগেরও বেশি বয়সী দ্রুততম সেঞ্চুরির রেকর্ড ভেঙে দিয়েছেন নতুন কিউই তারকা কোরি অ্যান্ডারসন! মিডিয়াম পেসার হিসাবে উইকেট টু উইকেট বোলিং আর বলকে হাওয়ায় ভাসিয়ে সীমানাছাড়া করার মতো কজির জোর আর ঘরের ছেলে হবার কারনে দর্শকদের অকুণ্ঠ সমর্থন- এসব মিলিয়ে রেকর্ডের পাতায় সোনালি অক্ষরে নিজের নাম লিখে ফেলতে পারেন তিনি।

দ্রুততম শতকের রেকর্ডটা হাতছাড়া হলেও কোরি ছাড়তে চাইবেন না শিরোপা
দ্রুততম শতকের রেকর্ডটা হাতছাড়া হলেও কোরি ছাড়তে চাইবেন না শিরোপা

এসব শুনলে রাগ করবেন গ্লেন ম্যাক্সওয়েল। বলতে পারেন- হাহ! কজির জোর কি আমার কম? আমার দিনে বোলারের নাকের পানি আর চোখের পানি এক করে দিতে পারি আর ঘূর্ণির মায়াজালে বেঁধে ফেলতে পারবো বাঘা বাঘা উইলোবাজকে। আর স্বাগতিক দর্শকের সমর্থন- আমিও তো অসিদের ঘরের ছেলে, আমাকে তাণ্ডব চালাতে দেখলে হর্ষধ্বনি তো উঠবেই অসি গ্যালারী থেকে। তা তিনি খুব একটা ভুল বলবেন না যদি এমন বলেন, কারন তার ঝড়ের নমুনা দেখেছে ধোনি বাহিনী আর সে এমনই ঝড় যে, ম্যাক্সওয়েল বহুদিন ভারতীয়দের দুঃস্বপ্নে হানা দেবেন। ৫৭ বলে ১২৪! আর ঘূর্ণির খেল দেখিয়েছিলেন সিবি সিরিজের ফাইনালে ইংলিশদের বিপক্ষে। সব মিলিয়ে ট্রফি ঘরে রাখতে অসিদের বড় অস্ত্র তিনি। ডেভিড ওয়ার্নার- ওয়াটসনের সাথে তার নাম শুনলেই বোলারদের হৃদকম্প বেড়ে যায়, ঠিক যেমন ওয়াসিম ওয়াকারের নাম শুনে হাঁটু কাঁপত অনেক বিখ্যাত ব্যাটসম্যানের, ইনি কিন্তু বিশ্বকাপে এবারই প্রথম এবং শুরুতেই যে বিপক্ষের বোলিঙকে ছিঁড়েখুড়ে দিতে চাইবেন শক্তিমান সব শট দিয়ে- এতে আর আশ্চর্য কি! ফিল হিউজ ছিলেন তার অন্তরঙ্গ বন্ধু, হয়তো তার জন্যই বিশেষ কিছু করবেন তিনি। বোলারকূল সাবধান।

নিজের মাটিতে ঝড় তুলতে চাইবেন ম্যাক্সওয়েলও
নিজের মাটিতে ঝড় তুলতে চাইবেন ম্যাক্সওয়েলও

কখনও কল্পনা করেছিলেন ওয়ানডেতে ডাবল সেঞ্চুরি হবে? শচীন করার আগে নয় তো? এবার ভাবুন তো একজন মানুষের কথা যার আছে দুই বার ঐ কাজ করার রেকর্ড। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ২৬৪ রান একদিনের ক্রিকেটে ব্যক্তিগত রানের রেকর্ড, করেছেন রোহিত শর্মা। তবে এখানে একটা কিন্তু আছে। এগুলো ভারতের ব্যাটিংবান্ধব আর বোলারের বধ্যভূমি মার্কা পিচে করা। এবার তাকে প্রমাণ দিতে হবে উইকেট সবুজ হোক আর মরা, তিনি আসলেই দক্ষ ব্যাটসম্যান। তার সফলতার উপর ভারতে ট্রফি থাকা না থাকা অনেকটাই নির্ভর করছে।

দূরের দেশে ভালো করার ইঙ্গিত দিয়েছেন রোহিতও
দূরের দেশে ভালো করার ইঙ্গিত দিয়েছেন রোহিতও

এতক্ষণ তো বললাম দ্বিশতকের গল্প। বোলারদের হ্যাট্রিকের কথা শুনলেও সেঞ্চুরির হ্যাট্রিকের কথা নাও শুনে থাকতে পারেন। এ কীর্তি আছে দক্ষিণ আফ্রিকার ডি ককের। দলটার তাসের ঘরে বাঁধ দিতে পারেন তার মতো সাহসী উইলোবাজ। বিশ্বকাপের কথা আর দক্ষিণ আফ্রিকার কথা মনে হলেই যারা ভুঁড়ি দুলিয়ে হো হো হা হা করে হেসে উঠেন তাদের হাসকর সব কীর্তি- যেমন ব্যাট ফেলে দৌড় দেওয়া, অঙ্কে ভুল করা, জেতা ম্যাচ হারার ব্যবস্থা করা এসব থেকে তাদের সাফল্য জনিত মুক্তি দিতে তার ব্যাট হাতে জ্বলে ওঠা এবং উইকেটের পিছনে দারুণ পারফরম্যান্স অনুঘটকের কাজ করবে।

বিশ্বকাপেও এভাবে উদযাপন করতে চাইবেন ডি কক
বিশ্বকাপেও এভাবে উদযাপন করতে চাইবেন ডি কক

ভাবুন তো- ২০০১ সালে ক্রিকেটে অভিষেক, আমাদের আশরাফুলের আগে সর্বকনিষ্ঠ সেঞ্চুরিয়ান, অথচ এই মানুষটা জীবনের প্রথম বিশ্বকাপ খেলবেন এবার,কে জানে শেষও হতে পারে! তিনি মাসাকাদজা। জিম্বাবুয়ের বড় ব্যাটিং ভরসা কিন্তু বিশ্বকাপে নিজের ছাপ রাখার ইচ্ছা দেখিয়েছেন প্রস্তুতি ম্যাচে লঙ্কানদের বিপক্ষে অবলীলায় ম্যাচ জেতানো শতক হাঁকিয়ে।

আপনাকে ডেকে যদি বিশ্বকাপের ১ মাস আগে বলা হয়- যাও তুমি সেনাপতি! কেমন হতে পারে মনের অবস্থা? জেসন হোল্ডারকে জিজ্ঞেস করে দেখতে পারেন! ঠিক এভাবেই একটা ঝঞ্ঝা বিক্ষুব্ধ তরীর হাল তুলে দেওয়া হয়েছে নবীন ক্যাপ্টেনের হাতে। অভিজ্ঞদের বাদ দেয়া হয়েছে বোর্ডের সাথে ঝামেলায় জড়ানোর শাস্তি হিসেবে। নবীন এই পেসার চাপে পড়ে জ্বলেও উঠতে পারেন বিশ্বমঞ্চে।

নেতৃত্ব বদলে দিতে পারে হোল্ডারকেও
নেতৃত্ব বদলে দিতে পারে হোল্ডারকেও

বাংলার মাটিতে কুড়ি ওভারের ক্রিকেট উৎসবের সময় একজন মানুষ দলের কথা ভেবে নিজের জায়গা ছেড়ে দেন, তারপর মালিঙ্গার নেতৃত্বে দুর্দান্ত খেল দেখিয়ে মুকুট জয় করে লঙ্কান সিংহরা। সেই মানুষটি দীনেশ চান্দিমাল, নিজের জীবনের দ্বিতীয় ওয়ানডেতে সেঞ্চুরি করা এই ধীরস্থির মানুষটি চাইবেন নিজের প্রথম বিশ্বকাপে ভালো কিছু করে দেখাতে।

আরেকজন সাঙ্গাকার খুঁজে পেতে পারে শ্রীলঙ্কা চান্দিমালের মাঝে
আরেকজন সাঙ্গাকার খুঁজে পেতে পারে শ্রীলঙ্কা চান্দিমালের মাঝে

ছোটবেলা কেটেছে শরণার্থী শিবিরে, সেখানেই গোল বলটা চিনতে শিখলেন। এখন তিনি বিপক্ষের ত্রাস, গতি আর সুইং এর সাথে লাইন লেংথ ও ঠিকঠাক- হামিদ হাসান আফগানদের তুরুপের তাস এই সিমিং উইকেটে।

নজর রাখতে পারেন স্কটল্যান্ড দলটার উপরই! অসাধারন খেলছে তারা প্রস্তুতি ম্যাচে। বিনা যুদ্ধে তারা এক ইঞ্চি ছাড় দিতেও রাজি নয়। ওয়েস্ট ইন্ডিজকে প্রায় হারিয়ে দিয়েছিলো! আর আইরিশদের উপহার দিয়েছে ১৭৯ রানের হারের লজ্জা। এই দলটা আমার মনে হচ্ছে এই আসরের ‘ডার্ক হর্স’

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

three × 2 =