তবে কি ইব্রাতেই কাল হবে ইউনাইটেডের?

::::: আদনান আল রাহীন :::::
ম্যানচেস্টার ডার্বি। পেপ বনাম মৌ। পগবা বনাম সিলভা। রুনি বনাম অ্যাগুয়েরো। স্টোনস বনাম বাইয়ি। এত কিছুর পরও সম্ভবত সবচেয়ে বড় স্টার হতে যাচ্ছে মৌ-এর ইব্রা। আসলেই কি??
শৈশবের ক্লাব মালমো থেকে উঠে আসা তরুণ ইব্রা ধীরে ধীরে ঘুরে আসেন ইউরোপের সবচেয়ে বড় ক্লাবগুলোতে। আয়াক্স, জুভেন্টাস, ইন্টার, বার্সা, মিলান, পিএসজি এরপর ইংলিশ জায়ান্ট ইউনাইটেডে। তবে লম্বা সফরের পথে ইংলিশ জায়ান্ট ক্লাবগুলো বিপক্ষে কতটাই বা সফল ইব্রা?
মালমো থেকে আয়াক্স, জুভেন্টাস, এরপর ইন্টার মিলান, বার্সা, এসি মিলান, পিএসজি অবশেষে ইংলিশ জায়ান্ট ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। ৩৪ বছর বয়সী সুইডিশ গড ২২ বার খেলেছেন ইংলিশ জায়ান্টের বিপক্ষে। গোল দিয়েছেন মাত্র ৫টি। ৪টি আর্সেনাল এবং ১টি চেলসির বিপক্ষে। মিলানের সময় ম্যাসিমিলিয়ানো আলেগ্রির অধীনে ৪-০ গোলে জয়ী ম্যাচে জোড়া গোল করেছিলেন ইব্রা। বলার মত ম্যাচ জয়ী পারফরমেন্স এটিই। এছাড়াও ২ গোল করেছিলেন বার্সা হয়ে এই আর্সেনালের বিপক্ষে। এমিরেটসে জোড়া গোলের রাতে এগিয়ে থেকেই ড্র করে বার্সা। এই ২০১৫ সালে দ্বিতীয় রাউন্ডে চেলসির সাথে লাল কার্ড দেখে মাঠ ছাড়েন ইব্রা। যার ফলে বার্সার সাথে কোয়ার্টারের প্রথম লেগ খেলতে পারেননি তিনি।
২২ ম্যাচ। জুভেন্টাসের হয়ে খেলার সময় আর্সেনালের বিপক্ষে বাজে পারফরমেন্স, এরপর ইন্টারের হয়ে ইউনাইটেডের বিপক্ষে তাঁকে আটকাতে কোন বেগই পেতে হয়নি ভিদিচ-ফার্ডিন্যান্ডদের। এরপর পিএসজির হয়ে খেলার সময় ইউসিএল এ বারবার মুখোমুখি হন ইংলিশ ক্লাব চেলসির। একটি গোল করা ছাড়া কিছুই করতে পারেনি। গত বছর ম্যানসিটির সাথে কোয়ার্টার ফাইনালে মাঙ্গালা- কম্পানির পকেটবন্দিই হয়ে ছিলেন ইব্রা, আলো ছড়িয়েছিলেন আগুয়েরো-ডে ব্রুইনিয়ারা। দুর্দান্ত প্লেয়ার হিসেবে বিন্দু পরিমাণ সন্দেহের অবকাশ না থাকলেও বিগ ম্যাচে ইব্রার পারফরমেন্স নিয়ে বরাবরের মতই প্রশ্ন উঠতে যাচ্ছে। বার্সা- রিয়ালের বিপক্ষে গোল দিলেও রোনালদো- মেসি-আগুয়েরোর মত একা ম্যাচ টেনে নিয়ে যাওয়ার মত নজির খুবই কম। তবে কি এই জায়গায়ই পিছিয়ে আছে ইব্রা তথা মৌ। সত্যি বলতে একটি গোল করতে না পারলে আবারো ম্যাচ উইনিং পারফরমেন্স করতে পারে না- এই অপবাদ শুনতে তৈরি থাকতে হবে ইব্রা- মৌ, তথা ইউনাইটেড ফ্যানদের!

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

two + 2 =