ট্রান্সফার টুকিটাকি : মিলান-অ্যাটলেটিকো’র মার্টিনেজ কাড়াকাড়ি

পোর্তোর কলম্বিয়ান স্ট্রাইকার জ্যাকসন মার্টিনেজের ট্রান্সফার একটা ইন্টেরেস্টিং মোড়ে দাঁড়িয়ে। তাঁর বাই-আউট ক্লজ ৩৫ মিলিয়ন ইউরো, যেটা দেওয়ার জন্য এসি মিলান রাজী হয়েছে, কিন্তু ঝামেলা হয়েছে মেডিকাল পরীক্ষার ক্ষেত্রে। মার্টিনেজ বর্তমানে কলম্বিয়ার হয়ে কোপা আমেরিকা খেলতে চিলিতে অবস্থান করছেন। মিলান বাই-আউট ক্লজ দিতে রাজি হলেও মেডিকাল পরীক্ষা এখনো স্থগিত আছে এই কারণে যে কলম্বিয়ান ফেডারেশান এই টুর্নামেন্টের মধ্যে এখন মার্টিনেজকে মেডিকালের জন্য ছাড়তে চাচ্ছে না, আর চাইলেও চিলির স্থানীয় ক্লিনিকগুলোতে মেডিক্যাল করার পরিকল্পনা মিলানের নেই। ফলে মিলান থেকে কোন মেডিক্যাল দল বা অফিসিয়াল মার্টিনেজের মেডিক্যাল সম্পন্ন করার জন্য চিলিতে যাননি এখনো। এখন মার্টিনেজের বাই-আউট ক্লজের একটা শুভঙ্করের ফাঁকি আছে। মার্টিনেজের ট্রান্সফার অ্যাগ্রিমেন্টের ৬০ দিনের মধ্যে আগ্রহী ক্লাবকে সম্পূর্ণ ৩৫ মিলিয়ন ইউরো দিতে হবে পোর্তোকে, এখন ঐ ৬০ দিনের মধ্যে বাই-আউট ক্লজ দিয়ে খেলোয়াড় সই করাতে পারলে মার্টিনেজ তাদের হয়ে যাবেন ; মেডিক্যাল হোক বা না হোক। এখন এই সুবিধাটাই নিতে চাচ্ছে অ্যাটলেটিকো। অ্যাটলেটিকো চাইলেই এখন ৩৫ মিলিয়ন ইউরো পোর্তোকে দিয়ে মার্টিনেজকে দলে নিয়ে নিতে পারে মেডিক্যাল পরীক্ষা না করার ঝুঁকি নিয়েই। এখন মিলান আবার মেডিক্যাল পরীক্ষা না করে মার্টিনেজকে সই করাতে চাচ্ছে না, যেহেতু এত দাম দিয়ে খেলোয়াড় কিনছে তারা বহুদিন পর। মিলান-অ্যাটলেটিকো ; দেখা মার্টিনেজ তরী কোথায় ভিড়ে!

এদিকে আরেক চুক্তিতেও দুর্ভাগ্য কপালে এসে জুটছে এসি মিলানের। মোনাকোর ফরাসী মিডফিল্ডার জফ্রি কনডগবিয়ার ক্ষেত্রে। কালকে মোনাকোর “মন্টিকার্লো বে” নামক হোটেলে কনডগবিয়ার এজেন্ট, অভিভাবক সবার সাথে একসাথে বসে ট্রান্সফার বিষয়ে মিটিং করেছে এসি মিলান ও ইন্টার মিলান উভয় দলই ; একই সময়ে। এমনকি মিটিং শেষে মিলানের দুই দলের অফিসিয়ালরা একইসাথে হোটেল ত্যাগও করেছেন হাসিমুখে। এখন দেখা যাচ্ছে এই কনডগবিয়াকে ৪০ মিলিয়ন ইউরোর’র বিনিময়ে দলে নিয়ে নিয়েছে ইন্টার মিলান, চুক্তি ২০২০ সাল পর্যন্ত। শুধু কনডগবিয়াই নয়। ইন্টার চাচ্ছে মোত্তা ও ইমবুলাকেও। ইতালিয়ান মিডফিল্ডার থিয়াগো মোত্তা পিএসজি ছাড়তে চাচ্ছেন, সাবেক ক্লাব ইন্টার মিলান তাঁকে নেওয়ার জন্য মুখিয়ে আছে। এদিকে ১৮.৫ মিলিয়ন ইউরোর বিনিময়ে মার্শেইয়ের আরেক ফরাসি মিডফিল্ডার জিয়ানেল্লি ইমবুলাকেও চাচ্ছে ইন্টার মিলান। কিন্তু ইমবুলার ব্যাপারে আর্সেনাল ও টটেনহ্যামও আগ্রহী অনেক।

জফ্রি কনডগবিয়া
জফ্রি কনডগবিয়া

এদিকে সাবেক লিভারপুল গোলরক্ষক পেপে রেইনার নাপোলিতে যাওয়া মোটামুটি নিশ্চিত। সামনে সোমবার থেকে বুধবারের মধ্যে যেকোন দিনে তাঁর মেডিক্যাল পরীক্ষা সম্পন্ন হবে। এদিকে ৫.৫ মিলিয়ন ইউরো’র বিনিময়ে এম্পোলি মিডফিল্ডার মির্কো ভালদিফিওরিকেও দলে নিচ্ছে নাপোলি। পাউলো ডাইবালা ও মারিও মান্দজুকিচকে আনার পর, এবং সিমোনে জাজা-ডমেনিকো বেরার্দির প্রায় চলে আসার পর এবার জুভেন্টাস ছাড়তে যাচ্ছেন কার্লোস তেভেজ, এবং তেভেজের সাথে আরও একজন – ফার্নান্দো ইয়োরেন্তে। জার্মান ক্লাব ভলফসবুর্গ, বরুশিয়া মনশেনগ্ল্যাডবাখ ও ফরাসী ক্লাব মোনাকো আগ্রহী তাঁর প্রতি। এদিকে সেভিলা স্ট্রাইকার কার্লোস বাক্কাকে ২৫ মিলিয়ন ইউরোর কমে পাওয়া যাবে না, জেনে ম্যানচেস্টার সিটির স্ট্রাইকার এডিন জেকোকে এবার দলে চাচ্ছে এএস রোমা।

এদিকে বার্সেলোনা মিডফিল্ডার অ্যালেক্স সং কে দলে চাচ্ছে চেলসি ও ম্যানচেস্টার সিটি। চার্লটন অ্যাথলেটিকের তরুণ ইংলিশ ডিফেন্ডার জ্যো গোমেজকে ৩.৫ মিলিয়ন পাউন্ডের বিনিময়ে দলে নিয়েছে লিভারপুল। লিভারপুলের শহর-প্রতিদ্বন্দ্বী এভারটন চাচ্ছে জেনিত সেন্ট পিটার্সবার্গের বেলজিয়ান সেন্টারব্যাক নিকোলাস লোমবার্টস কে, কিন্তু তাঁর ১০ মিলিয়ন পাউন্ড দাম এভারটনের জন্য যথেষ্ট বেশী।

29CE6C4F00000578-3132489-image-a-23_1434805260914

অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ এদিকে চেলসির সাথে সরাসরি খেলোয়াড় বিনিময় করতে আগ্রহী। বেলজিয়ান সেন্টারব্যাক/রাইটব্যাক টোবি অল্ডারওয়াইরেল্ডের বিনিময়ে তারা তাদের সাবেক লেফটব্যাক ফিলিপে লুইসকে চায়।

ফরাসী ল্যাব ভ্যালেন্সিয়েনেসের দায়োত উপামেকানোকে ১ মিলিয়ন ইউরোর বিনিময়ে দলে নিচ্ছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড।

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

2 × three =