টানা দ্বিতীয় জয়ে স্বপ্ন দেখা

প্রাথমিক ধাক্কা সামলে জয়ের মসৃণ পথে বেশ খসখস শব্দেই এগোচ্ছিলো লংকান সিংহরা ।
নেতৃত্ব দিচ্ছিলেন দলের অন্যতম ব্যাটিং স্তম্ভ দিনেশ চান্দিমাল ।
অপর প্রান্তে থাকা নতুন জয়াসুরিয়াকে সাথে নিয়ে বাউণ্ডারির পাশাপাশি প্রান্ত বদলেও রান চাকা সচল রাখছিলেন ।
তবে ভুলটা করেই বসলেন ।
ইনিংসের একাদশতম ওভারের শেষ বলে মাহমুদুল্লাহ রিয়াদকে রিভার স্যুইপ করতে গিয়ে বল আকাশে ভাসালেন ।
গর্জে উঠলো শেরে বাংলা ।
বল আকাশে ভাসলো । অতঃপর তর তর করে ভূপাতিত হবার প্রত্যেয়ে মাটি পানে রওনা দিলো । ডিপ পয়েন্টে তখন তাসকিন দাঁড়িয়ে । চক্ষুদ্বয় ধেয়ে আসা বলটির দিকে । পারবে কি তাসকিন ? মিসফিল্ডের অভিশাপে ভোগা দলটি কি পারবে এবার ?
হ্যা, পেরেছে !
চাঁপ জয় করে ক্যাচটি লুফে নিলেন তাসকিন ।
শ্রীলংকার সংগ্রহ তখন ২ উইকেটে ৭৬ রান ।
জয়ের পাল্লাটা তাদের দিকেই ঝুঁকছিলো বেশি ।
তবে মোমেন্টাম হারালোনা বেঙ্গল টাইগাররা । চান্দিমালের বিদায়ের ঠিক দুই বলেই
অপর প্রান্তে ক্রমাগত ভয়ংকর হতে থাকা জয়াসুরিকে ফেরালেন সাকিব ।
তেড়ে এসে মারতে গিয়ে মৃত্যু ডেকে আনলেন লংকান তরুন ।
ওয়াইড বল হলেও স্টাম্প প্রহরী সোহান ভুল করলেননা । চটকে বেল ফেলে দিতে । মাটিতে বেলদ্বয়ের হাস্যজ্জ্বল
গড়াগড়িই বলে দিচ্ছিলো পাশা পাল্টেছে । এবার জয়ের নেশা আশায় রুপ নিলো ।
ব্যাটিংয়ে সাব্বিরের কাউন্টার এ্যাটাকের পর বোলিংয়ে সাকিবের কাউন্টার এ্যাটাক ।
মোমেন্টামটা ধরে রাখতে তখন মরিয়া টাইগার বাহিনী ।
অধিনায়ক মাশরাফি তাই ডেকে পাঠালেন কাটার মোস্তাফিজকে ।
রহস্যময় মোস্তাকে বুঝে উঠতে না উঠতেই রহস্যর ফাঁদে আটকা পড়লো লংকান হার্ডহিটার থিসারা পেরেরা । বুট বরাবর ফুল ডেলিভারিটি LBW এর মর্যাদায় ।
মোস্তার খাতায় ম্যাচের প্রথম উইকেট । এরপরের গল্পটা শুধুই বাংলাদেশের ।
তামিল অরণ্যর জোটবদ্ধ সিংহের পরিবর্তে বিশ্ব দেখলো সুন্দরবনের জোটবদ্ধ ব্যাঘ্র সেনাদের ।
সাকিব-মাশরাফিরা যখন বাগান পরিচর্যায় দৃঢ় প্রতিজ্ঞ তখন আলামিন-মোস্তারা অগ্রজদের অনুসরণ না করে যাবেই বা কই ।
মোস্তার কাটার, আউটসাউড ইয়র্কারে অসহায় ম্যাথিউসরা । মাশরাফি, সাকিবরাও দায়িত্ব নিয়ে এসে খেলে গেলেন, সাথে করে উইকেটেও নিয়ে গেলেন ।
১৮তম ওভারে আবারও বল আকাশে বল ভাসলো । সাকিবের হাত জোড়া বিশ্বাসঘাতকতা করতে চাইলেই সাকিব তা হতে দিলেননা ।
আলামিন-সাকিব রসায়নে প্যাভিলিয়নে অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউস । ধারাভাষ্যকার আয়োজন করেই ম্যাচটা বাংলাদেশকে দিয়ে দিলেন ।
জয়ের পথে বাঁধা তখন সময় আর বেঁচে যাওয়া লংকান উইকেটগুলো ।
শেষ ওভারে বেঁচে যাওয়া উইকেটে ঝুলি সমৃদ্ধ করলো আলামিন ।
এশিয়া কাপে টানা দ্বিতীয় জয় আয়োজকদের ।
সাব্বিরের চিত্তাকর্ষক তাণ্ডব, সাকিব, রিয়াদ জুটির ক্যামিও অতঃপর তাদের সাজানো বাগান প্রহরায় বেঙ্গল গোল্লাবাঁজরা ।
দলগত খেলা ক্রিকেটে আবারও দলগত নৈপূণ্য লংকান বধ টাইগারদের ।
বোলাররা আবারও দেখিয়ে দিলো দায়িত্বশীলতা ও স্বপ্ন বাঁচিয়ে রাখা তাদের ঐতিহ্য ।
তবে ম্যাচ শেষে অধিনায়ককে তাসকিন অভিমানী আহ্লাদ দেখাতেই পারে ।
ম্যাশ,মোস্তা, আলামিন,রিয়াদ, সাকিব সবাই উইকেট পেলেও আজ খালি হাতে থাকতে হয়েছে এই তরুন তুর্কিকে । তবে দিনশেষে দলের জয়ে ঠিকই বড় একটি অবদান রেখেছেন ।
ম্যাচের টার্নিং পয়েন্টটা যে তারই মুঠোতে পরিপূর্ণতা পেয়েছে ।
চান্দিমালের ক্যাচটা তারই ছিল ।

অভিনন্দন বাংলাদেশ !

‪#‎চলো_বাংলাদেশ‬
‪#‎Asiacup2016‬

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

5 × 3 =