জোসেফরা যেন হারিয়ে না যান!

বাংলাদেশে গত অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের সময় একটা লেখায় লিখেছিলাম, আমার ধারণা এই বাচ্চাদের থেকে সবার আগে টেস্ট ক্রিকেট খেলবে আলজারি জোসেফ।

আজ সেন্ট লুসিয়ায় টেস্ট ক্যাপ পেয়েছেন জোসেফ। ওয়েস্ট ইন্ডিজের ইতিহাসের দ্বিতীয় সর্বকনিষ্ঠ হিসেবে নিয়েছেন নতুন বল। ক্যারিয়ারের তৃতীয় ওভারেই ধরেছেন প্রথম শিকার। প্রথম উইকেট হিসেবে শিকারটি খারাপ নয়। বিরাট কোহলি, ব্যাটিংটা যিনি মোটামুটি পারেন!

পেস ও বাউন্সে চমকে দিয়েছেন জোসেফ, শট অব লেংথ থেকে আচমকা লাফিয়ে ওঠা বলের জবাব জানা ছিল না চলে যাওয়া কোহলির। এরপর দ্বিতীয় স্পেলে ফিরে জোসেফের শিকার রোহিত শর্মা।

একজন তরুণ ফাস্ট বোলার গতি আর আগ্রাসনে প্রতিপক্ষকে নাড়িয়ে দিচ্ছেন, রেড চেরি হাতে আগুণ ঝরাচ্ছেন, এর চেয়ে রোমাঞ্চকর দৃশ্য ক্রিকেটে কমই আছে!

অ্যান্ডি রবার্টস, ইয়ান বিশপরা তাঁকে নিয়ে রোমাঞ্চিত। কার্টলি অ্যামব্রোস বলছেন, ‘তুমি অ্যান্টিগান, আমিও অ্যান্টিগান… আমি গর্বিত!” আজ তাঁর মাথায় টেস্ট ক্যাপ তুলে দিয়েছেন ‘বিগ বার্ড’ জোয়েল গার্নার। অনুপ্রেরণার জন্য আর কী লাগে!

মজার ব্যাপার হলো, একজন জোসেফকে পেতে যত সময় লাগল ওয়েস্ট ইন্ডিজের, হারাতে সময় লাগতে পারে আরও কম! খুব শিগগিরই হয়ত টি-টোয়েন্টি লিগগুলোয় কাড়াকাড়ি শুরু হবে ছেলেটিকে নিয়ে, জোসেফ নিজেও মজবেন টি-টোয়েন্টিতে, কেন্দ্রীয় চুক্তিতে সই করবেন না, খুব দ্রুতই বোর্ডের সঙ্গে দ্বন্দ্ব শুরু হবে, বোর্ড ব্যপারটি সামলাতে পারবে না, টেস্ট ক্রিকেটের সময় হলেই জোসেফের পেটের ব্যারাম হবে, ডোয়াইন ব্রাভোদের সঙ্গে গলাগলি ধরে হয়ে যাবেন টি-টোয়েন্টির যাযাবর!

চাই না সম্ভাব্য এই শঙ্কা সত্যি হোক। একজন জোসেফ বা একজন মুস্তাফিজ, শুধু ক্যারিবিয়ান ক্রিকেট বা বাংলাদেশ ক্রিকেটের নয়, বিশ্ব ক্রিকেটেরই সম্পদ!

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

12 + 13 =