জন্মদিনে শুভকামনা নেইমারকে

কোন জেনারেশনের সেরা খেলোয়াড়ের পাশে সাইডহিরো থাকার জন্যে সাধারণত ব্রাজিলের নাম্বার টেনেরা আসে না। নেইমারকে সেই হিসাবে আমি দারুন তারকাশূন্য একটা ব্রাজিলের মশালবাহক বলবো। তবে এই সাইডকিক হয়েও সর্বকালের সবচেয়ে সফল জাতীয় দলটার পোস্টারম্যান হওয়ায় নেইমারকে আমি বলবো ভাগ্যবান। টানা তিন বিশ্বকাপের ফাইনালে ব্রাজিল নেই। তার মধ্যে দুটো কোয়ার্টারে হেরেছে, আরেকটা সেমিতে এমনভাবে হেরেছে যেখানে মনে হয়েছে কোয়ার্টারে বাদ পড়ে গেলেই ভালো ছিলো। বিশ্বকাপটা ব্রাজিলের এই জায়গাটায় এসে দারুনভাবে দরকার। এক-দুই করে করে ১৬ বছর হবে ২০১৮ সালে বিশ্বসেরার মুকুটশূন্যতার। কম ট্যালেন্টের একটা জেনারেশনের কাঁধেই বিশ্বকাপ জেতার চাপটা অনেক বেশি। সেই জেনারেশনের ফেইস হওয়াতে নেইমারকে আমি একইসাথে দুর্ভাগ্যবান বলবো।
২০১৩ সালের কনফেডের সাফল্য হঠাৎ করে ঘোরে চলে এসেছে, গেল বছরের অলিম্পিকের গোল্ডটা পচা শামুকের মত। পাড়ি দিলে ক্রেডিট নেই, কিন্তু তাতে পা কাটলে একদম লজ্জ্বা । অনেকদিনের অপেক্ষা ঘুচিয়েছে এই অলিম্পিক ব্রাজিল ফ্যানবেইজের। তাই বিশ্বাস নেইমারের উপরে রাখা যায়। অমরত্বের পথে ধাপে ধাপে বাধার দেয়াল। খারাপ দিনে অন দ্যা ফিল্ড বিহ্যাভিয়রে পরিবর্তন আনা, সাইডকিক থেকে ক্লাব বেইজে লিডার হওয়ার দিকে এগিয়ে যাওয়া আর শেষমেশ একটা বিশ্বকাপ।

জন্মদিনে শুভকামনা নেইমারকে। ইনজুরিতে টুর্নামেন্ট শেষ করে সিম্প্যাথি কে চায়?? ব্রাজিলের নাম্বার টেনদের জন্ম বিশ্বকাপ জিতে সাধারণ জ্ঞানের বইয়ের পাতায় স্থান করে নেবার জন্যে হয়।

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

ten + thirteen =