খেলার সঙ্গেই রাজনীতি সবসময়ই সবচেয়ে বেশি মেশানো হয়

অদ্ভূত একটা ব্যাপার দেখি, ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ নিয়েই বাংলাদেশে যেটি বেশি দেখা যায়। চারপাশে শুনি, “খেলার সঙ্গে রাজনীতি মেশাবেন না”…

খুব মজা লাগে। আচ্ছা, ভারত-পাকিস্তান চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী কেন? ক্রিকেটীয় কারণে? বছরের পর বছর এই দুই দেশ একে অন্যের দেশে সফর করে না, সেটা ক্রিকেটীয় কারণে? কিন্ত অ্যাশেজের মতো কোনো ইতিহাস ভারত-পাকিস্তান ক্রিকেট দ্বৈরথে আছে বলে তো জানা নেই! শুধু ক্রিকেটে কেন, ভারত-পাকিস্তান হকি-ফুটবল-কাবাডি, সব খেলা, এমনকি সব ক্ষেত্রেই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী। একমাত্র কারণইরাজনৈতিক। আমাদের কিছু লোক এই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীতার মজা নেবে, কিন্তু খেলার সঙ্গে রাজনীতি মেশাতে না করবে। বাহ!

আচ্ছা, দক্ষিণ আফ্রিকা ২২ বছর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে নিষিদ্ধ ছিল কি ক্রিকেটীয় কারণে? উত্তর তারা জানেন, তার পরও ‘খেলার সঙ্গে রাজনীতি মেশাবেন না’…!!!

আন্তর্জাতিক ফুটবলে ইংল্যান্ড-নেদারল্যান্ডস, ইংল্যান্ড-জার্মানি, জাপান-সাউথ কোরিয়া, চিলি-পেরু, ইউএসএ-মেক্সিকো, এমনকি মিশর-আলজেরিয়া, সার্বিয়া-ক্রোয়েশিয়া, ইংল্যান্ড-স্কটল্যান্ড…. এবং আরও অনেক…এসব প্রতিদ্বন্দ্বীতা কি শুধু ফুটবলীয় কারণে? উত্তরটা তাদের জানা। তার পরও বলবে “খেলার সঙ্গে রাজনীতি মেশাবেন না”….

ক্রিকেট-ফুটবল শুধু না, বিশ্বের সব খেলাতেই বেশির ভাগ চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীতার ইতিহাস খেলার বাইরে শুরু। যেটা চলে এসেছে খেলার মাঠে, কারণ খেলাই মানুষের সবচেয়ে বড় আবেগে জায়গা। হয়ে এসেছে, হতে থাকবে। তারপরও তারা বলবে, “খেলার সঙ্গে রাজনীতি মেশাবেন না”…

তাইলে পৃথিবী নাম গ্রহে না থেকে মঙ্গল বা শনিতে চলে যাওয়াই ভালো… কারণ পৃথিবীতেই খেলার সঙ্গেই রাজনীতি সবসময়ই সবচেয়ে বেশি মেশানো হয়! যুগে যুগে এটাই হয়ে আসছে!

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

5 × 5 =