খাদের কিনারায় আর্সেনাল

আর্সেনাল হারলো মোনাকোর কাছে
আর্সেনাল হারলো মোনাকোর কাছে

চ্যাম্পিয়নস লীগের নকআউট রাউন্ডে উঠে কি তবে আবারও খালি হাতে ফিরতে হচ্ছে আর্সেন ওয়েঙ্গার বাহিনীকে? রাউন্ড অফ সিক্সটিনের প্রথম লেগের ফলাফল ত সেটাই ভাবতে বাধ্য করছে! নিজেদের মাঠ এমিরেটস স্টেডিয়ামে ওয়েঙ্গার-অঁরির সাবেক ক্লাব মোনাকো’র কাছে ৩-১ গোলে হেরে বসেছে তারা। মোনাকোর হয়ে গোল করেছেন সাবেক ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ও টটেনহ্যাম হটস্পার স্ট্রাইকার দিমিতার বার্বাটভ, সেন্ট্রাল মিডফিল্ডার জফ্রি কনডগবিয়া ও বেলজিয়ান উইঙ্গার ইয়ানিক-ফেরেইরা কারাসকো। আর্সেনালের হয়ে একটি গোল শোধ করেন ইংলিশ উইঙ্গার অ্যালেক্স-অক্সলেড চেইম্বারলাইন।

পোলিশ ভসচেইক শোয়েসনি নন, ৪-২-৩-১ ছকে শুরু করা আর্সেনালের গোলবারের নিচে ছিলেন আবারও কলম্বিয়ার নাম্বার ওয়ান ডেভিড অসপিনিয়া। তাঁর সামনে চারজন ডিফেন্ডার হেক্টর বেয়েরিন, পার মার্টেস্যাকার, লরাঁ কসিয়েনি ও কিয়েরান গিবস। স্যান্টি কাজোরলা ফ্র্যান্সিস ককলানের সাথে শুরু করেন সেন্ট্রাল মিডফিল্ডে, তাঁদের সামনে শুরু করেন ড্যানি ওয়েলবেক, অ্যালেক্সিস সানচেজ ও মেসুট ওজিল। একমাত্র স্ট্রাইকার হিসেবে ম্যাচ শুরু করেন অলিভিয়ের জিরৌ।

একসময়ে প্রচুর খরচ করা মোনাকো দল এখন আর সেরকম নেই, দল ছেড়ে চলে গেছেন হামেস রড্রিগেজ, রাদামেল ফ্যালকাও গার্সিয়ার মত তারকারা। তাও বেশ কিছু মুখের সমাবেশ দেখা গেছে তাদের শুরুর একাদশে। ৪-১-৪-১ ছকে শুরু করা মোনাকোর গোলবার সামলানোর দায়িত্ব ছিল ক্রোট গোলরক্ষক ড্যানিয়েল সুবাসিচের, সামনের চারজন ডিফেন্ডার ছিলেন আলমামি ট্রায়োরে, ওয়ালেস, আয়মেন আবদেননুর, উয়া এল্ডারসন। মিডফিল্ডের দায়িত্বে ছিলেন ফাবিনিও, জফ্রি কনডগবিয়া, নাবিল দিরার ও জোয়াও মটিনিও। একক স্ট্রাইকার হিসেবে ছিলেন দিমিতার বার্বাটভ, তাঁর একটু পিছনে খেলেছেন উদীয়মান ফরাসী স্ট্রাইকার অ্যান্থোনি মার্শাল।

প্রথমার্ধে গোলপোস্টে একটা শটও করতে পারেনি আর্সেনাল। বারবার ব্যর্থ হয়েছেন ওজিল-জিরৌরা। ওদিকে নিজেদের প্রথম দুই টার্গেট শটেই গোল করে মোনাকো বুঝিয়ে দিয়েছে তারা অবহেলা করার মত কোন দল নয়।

৩৮ মিনিটে জফ্রি কনডগবিয়ার দূরপাল্লার শট আর্সেনাল ডিফেন্ডার পার মার্টেস্যাকারের গায়ে লেগে জালে জড়ায়, এগিয়ে যায় মোনাকো।

গোলের পর কনডগবিয়া
গোলের পর কনডগবিয়া

অসাধারণ এক কাউন্টার অ্যাটাকে ৫৩ মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুন করেন বুলগেরিয়ান স্ট্রাইকার দিমিতার বার্বাটভ।

hi-res-4cee52650ea7576119d64fd40fba151b_crop_north

ম্যাচের শেষমুহুর্তে অক্সলেড-চেম্বারলাইন একটি গোল ফিরিয়ে দিলে আর্সেনাল সমর্থকদের মনে একটু আশার সঞ্চার হলেও ক্ষণিকের মধ্যেই আরেক অসাধারণ কাউন্টার অ্যাটাকে ইয়ানিক-ফেরেইরা কারাসকো গোল করে মোনাকোর দুই গোলের অগ্রগামিতা বজায় রাখেন।

আর্সেনালের কফিনে শেষ পেরেক ঠুকে দিলেন ইয়ানিক-ফেরেইরা কারাসকো
আর্সেনালের কফিনে শেষ পেরেক ঠুকে দিলেন ইয়ানিক-ফেরেইরা কারাসকো

গত চার মৌসুমে একবারও আর্সেনাল রাউন্ড অফ সিক্সটিনের গেরো খুলতে পারেনি – হেরে বসেছিল এসি মিলান, বার্সেলোনা ও বায়ার্ন মিউনিখের কাছে (২ বার), প্রথম লেগের ফলাফল মাথায় রাখলে বলতেই হচ্ছে এ বছরেও তাদের ভাগ্যের বিশেষ কোন পরিবর্তন হবে না।

দুর্দান্ত খেলেছেন জফ্রি কনডগবিয়া। গোল করার পাশাপাশি আর্সেনালের আক্রমণগুলোর গতি অনেকটা কমিয়ে দিয়েছেন তিনি একাই, খেলেছেন যোগ্য ডিফেন্সিভ মিডফিলডারের মত। পুরো ম্যাচে করেছেন নয়টি ট্যাকল ও তিনটি ইন্টারসেপশান। মোনাকো দলের আরেকজন আনসাং হিরো ছিলেন এইদিন সেন্টারব্যাক আয়মেন আব্দেননুর, আর্সেনাল তাদের মোট ১৪ টি শটের মধ্যে মাত্র ৪টি গোলাভিমুখে মারতে পেরেছে, বোঝাই যায় কতটা কার্যকরী ছিলেন এদিন আব্দেননুর!

দুর্দান্ত খেলেছেন আব্দেননূর
দুর্দান্ত খেলেছেন আব্দেননূর

জঘন্য খেলেছেন জিরৌ। শুধু প্রথমার্ধেই না, পুরো ম্যাচজুড়েই জিরৌ ছিলেন নিষ্প্রভ। নষ্ট করেছেন একের পর এক সুযোগ। গত তিন ম্যাচে দুই গোল করা জিরৌ ম্যাচের আগে ছিলেন যথেষ্ট ফর্মে, কিন্তু এইম্যাচে হঠাৎ হারিয়ে ফেললেন ফর্ম। তাঁর ছয়টি শটের প্রত্যেকটি ছিল অফ টার্গেট।

hi-res-50e70c90459c145ee30486543d60c565_crop_north

ওদিকে পার মার্টেস্যাকারের গতিহীনতার পুরো সুযোগ নিয়েছে মোনাকো। মোনাকোর তিন গোলের দুটোই মার্টেস্যাকারের ভুলে হয়েছে বললে বোধহয় অত্যুক্তি হবেনা। প্রথম গোলে কনডগবিয়াকে প্রচুর জায়গা দিয়েছিলেন তিনি শট নেবার জন্য, সেই শট আবার তার গায়েই গতি বদল করে ঢুকে যায় পোস্টে! দ্বিতীয় গোলে অ্যান্থনি মার্শাল আর দিমিতার বার্বাটভকে ঠেকানোর সামর্থ্য ছিল না তাঁর।

hi-res-36d192e013ec1485936b22196d781b22_crop_north

এদিকে জিরৌ এর জঘন্য খেলার জন্য সমালোচনা থেকে খানিকটা আড়াল হতে পেরেছেন আরেক স্ট্রাইকার ড্যানি ওয়েলবেক। অথচ জঘন্য খেলেছেন তিনিও। ম্যাচের শুরু দিকে উজ্জ্বলভাবে খেললেও আস্তে আস্তে একরকম অদৃশ্যই হয়ে পড়েন তিনি।

hi-res-20dcfbb1197dec8a11800b74914a1092_crop_north

কোয়ার্টার ফাইনালে উঠতে হলে এখন আর্সেনালকে অন্তত তিন গোলের ব্যবধানে জিততেই হবে। দেখা যাক, পারেন কিনা ওয়েঙ্গার শিষ্যরা!

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

seventeen − seventeen =