ক্রিকেটবিলাস

Getty Image

মনে পড়ল ছোটো কালের ক্রিকেট খেলার সময় আম্পায়ার দেয়া হত যে দল ব্যাটিং করত সেই দল হতে। কারন তাদের দুই জন মাঠে থাকলেও আর বাকিরা বসে থাকে। তাদের মধ্যে থেকে একজন কে রাখা হয় মিউচুয়াল আগ্রিমেন্টের দ্বারা। এমনো হয়েছে যে আম্পায়ার আউট দিয়ে নিজেই নামছে। কিন্তু সেটা নিয়ে সেরকম কখনো ঝামেলা হত না। কারন সে তার দায়িত্বের প্রতি শ্রদ্ধাশীল ছিল। সেখানে কোনো সংস্থা ছিল না যে আইনগত কোনো ব্যবস্থা নেবে। কিন্তু তাদের ছিল যেটা সেটা হল বিবেক। এতটুকু বয়স থেকেই এই ব্যাপারটা আমরা চর্চা করতাম।

তবে হ্যাঁ বিকল্প হিসেবে কিছু বড় ভাই ছিলেন যাদের কাছে আমরা নালিশ করতাম যদি প্রয়োজন হত। তাই কেউ চাইলেও দুই নাম্বারি করা সহজ ছিল না। কারণ এই বড় ভাইরাই বিভিন্ন টুর্নামেন্ট নামাত আর সেখানে চান্স পাওয়া ছিল আজকের খেলোয়াড়দের মত বিদেশী লিগে চান্স পাবার মতই মূল্যবান ও লোভনীয়।

কিন্তু সেই দিন কি আর আছে, দিন বদলাইছে না। তাই এমন অনেক কিছুই দেখতে হচ্ছে যা কখনো ভাবিনি আগে। তাই আজকে আমার দেশ বিদায় নিলেও আমরা তাদের নিয়ে গর্ব করছি। সত্যি বলতে আমি এখন বিশ্বাস করি আমাদের সামর্থ্য আছে শিরোপা জেতার। হ্যা আয়ারল্যান্ডের সমর্থক রাও গর্বিত কারন তাদের দলও ভালো করেছে যেমনটা আমরা করেছিলাম ১৯৯৯,২০০৭ এ। তবে এবার তা পুরোটাই ভিন্ন। 300 মুভির কিং লিওনিডাসের বীরোচিত লড়াইকেও ছাড়িয়ে গেছে। আমাদের কাছে আমাদের দল চ্যাম্পিয়ন। কারন আমরা হারিনি হেরেছে ক্রিকেট। এটি আর ক্রীড়ার পর্যায়ে নেই। এর সাথে রেসলিং এর কোনো পার্থক্য নেই যেটা বরাবরই আমি অপছন্দ করি। তাই আমি মনে করি আমরা ক্রিকেটে জয়ী। রেস্লিং এ না। তাতে আমার কোনো দুঃখ নেই।

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

seven − five =