কোম্যানের অধীনে কেমন করবে বার্সেলোনা?

লেখা : ইকরাম খালেদ

নেদারল্যান্ডস জাতীয় দলের বর্তমান সময়ের কোচ রোনাল্ড কোম্যানের হাতেই পড়েছে ফুটবল ক্লাব বার্সেলোনায় দায়িত্ব!

সত্যি বলতে আমি চেয়েছিলাম উনি নেদারল্যান্ডস’কে নিয়ে ২০২২ বিশ্বকাপ পর্যন্ত চালিয়ে যাক।এর কারণ একজন নেদারল্যান্ডস ফ্যান হিসাবে নেদারল্যান্ডস দলের চলমান পারফরম্যান্সে যেনো ভাটা না পড়ে সেটাই ছিল আমার মূল উদ্দেশ্য।

এবার আসা যাক কোম্যান টু বার্সেলোনা টপিকেঃ
উনি ইতিপূর্বে ১৯৯৮ থেকে ২০০০ সাল পর্যন্ত এই দলের এসিস্ট্যান্ট কোচ হিসাবে দ্বায়িত্ব পালন করে গিয়ছিলেন। বার্সেলোনার আগে সহকারী কোচ
হিসাবে এর আগেও একবার নেদারল্যান্ডস জাতীয় দলে দ্বায়িত্ব পালন করেছিলেন।

বার্সেলোনার হয়ে সহকারী কোচের দ্বায়িত্ব শেষে তিনি আয়াক্স, পিএসভি, বেনফিকা, ভ্যালেন্সিয়া, সাউডাম্টন ও এভারটনের কোচ হিসাবে দ্বায়িত্ব নিয়েছিলেন।তবে ক্লাবের হয়ে উনার সাফল্যে বলতে এভারেজ ছিল।খুব বেশি ভালো বা হলেও আবার খারাপ বলা সমীচীন হবেনা।আমার মতে উনার সর্বোচ্চ সাফল্য হল গত বছর নেদারল্যান্ডস দলকে ন্যাশনস লিগের ফাইনালে উঠিয়েছেন। উনার প্রিয় ফর্মেশন হল ৪-৩-৩,উনার বর্তমান বয়স হল ৫৭.খেলোয়াড় উনি নেদারল্যান্ডস জাতীয় দলের হয়ে অনেক কিছু অর্জন করেছেন।
বার্সেলোনার হয়ে ১৯৯২ সালে ইউয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগ ও ১৯৮৮ সালে নেদারল্যান্ডসের হয়ে ইউরো জিতেছিলেন।খেলোয়াড়ি জীবনে একইসঙ্গে ডিফেন্স
ও মিডফিল্ডে খেলে নাম কামিয়েছেন।

আবার একটু বার্সেলোনা প্রসঙ্গে আসি-
ইদানিং অনেক বার্সেলোনা সাপোর্টাদের ই বলতে শুনি বার্সেলোনা দলের বেশিরভাগ প্লেয়ারের বয়স হয়ে গেছে! দলে অনেক নতুন ও তারকা সাইনিং প্রয়োজন। কিন্তু আমি যদি আমার ব্যক্তিগত মত দেই তবে আমি দেখি এই দলে প্রতিভাবান প্লেয়ারের কোনো অভাব নেই।
আসলে এতোদিন দলের মূল সমস্যা ছিল ট্যাক্টিসের অভাব। কারণ আমি আমার একটা পছন্দের একাদশ সাজানোর পরও আমি ১২ জন প্রতিভাবান প্লেয়ার পেয়েছি যারা কিনা ক্লাব ফুটবলে অন্য বড় দলগুলোতে খেলার যোগ্যতা রাখে।

যেমন, উরুগুয়ান সিবি আরুজোহো,এক্সপেরিয়ান্স লেফট ব্যাক আলবা,রাইট ব্যাক সেমেডো ও ব্যাক হিসাবে বোথ সাইডে সমানভাবে খেলতে পারা সার্গি রবের্তো।

মিডে সিএম হিসাবে রয়েছে,লোন শেষে ফিরে আসা রাফিনহা,তরুণ রিকি পুইগ,ম্যাথিউজ ফার্নান্দেজ, এলেনা ও ডিএম হিসাবে স্পেনিশ তরুণ প্লেয়ার
অরিয়ল বুস্কেটস্।

ফরওয়ার্ডে আছে ইয়াং ট্যালেন্ট বয় আন্সুমানে ফাতি, ডেম্বেলে ও ত্রনিকাও।সবচেয়ে মজার বিষয় হল ফাতি,
ডেম্বেলে দুজনই দুই উইঙ্গে খেলতে পারদর্শী।শুধুমাত্র ত্রনিকাওহল পুরোপুরি রাইট উইঙ্গার।

সবশেষে বলবো, নতুন কোচকে স্বাধীনতা দিতে হবে, তার আলাদা পছন্দ অনুযায়ী কয়েকজনকে নতুন সাইনিং হিসাবে দলে ভেড়াতে হবে,পাশাপাশি পুরাতন যাদেরকে উনি দলে চাইবেননা তাদেরকে বেচে দেয়াই উত্তম।নয়তো উনার ও দলের কাছ থেকে রেজাল্ট
আশাকরা উচিত হবেনা।

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

15 + nine =