কোপা আমেরিকা টিম প্রিভিউ : আর্জেন্টিনা

কোপা আমেরিকার ইতিহাসের দ্বিতীয় সফলতম দল আর্জেন্টিনা। ১৪টা কোপা শিরোপাজয়ী এই দল আবার রানার্সআপ হয়েছে অন্য যেকোনো দক্ষিণ আমেরিকান দলের চেয়ে বেশী, ১৩ বার। তাই বলা যেতে পারে যে ব্রাজিল কিংবা উরুগুয়ে নয়, কোপা আমেরিকার ইতিহাসেরই সবচাইতে ধারাবাহিক ও ভয়ঙ্করতম দল হল আলবিসেলেস্তিরা। যুক্তরাষ্ট্রে কাল থেকে শুরু হতে যাওয়া কোপা আমেরিকার ৪৫ তম আসরে এবারও যে আর্জেন্টিনা চ্যাম্পিয়ন হবার আশা নিয়েই যাচ্ছে, সে কথা বলার আর অপেক্ষা রাখেনা। ১৯৯৩ সালের পর থেকে কোপা আমেরিকার শিরোপা না জেতা আর্জেন্টাইনরা গত চারটা কোপার মধ্যে তিনবার রানার্সআপ হয়ে ঘরে ফিরেছে, সে আক্ষেপ ত আছেই, তাঁর সাথে জুড়েছে তর্কযোগ্যভাবে বিশ্ব ইতিহাসের সর্বশ্রেষ্ঠতম ফুটবলার লিওনেল অ্যান্দ্রেস মেসির জাতীয় দলের হয়ে এখনো পর্যন্ত কোনকিছু না জিততে পারার আক্ষেপটাও। এবার কোপা আমেরিকা জিতে মেসি-হিগুয়েইন-অ্যাগুয়েরো-মারিয়া-ম্যাশ্চেরানোদের প্রজন্ম জাতীয় দলের শিরোপা খরা মেটাবেন, দেশে দেশে আর্জেন্টাইন ফুটবলানুরাগীদের কাম্য সেটাই। এরই মধ্যে কোচ জেরার্ডো মার্টিনো কোপা আমেরিকার জন্য ২৩ সদস্যের আর্জেন্টিনা স্কোয়াড ঘোষণা করে দিয়েছেন, দেখে নেওয়া যাক কিরকম হল দলটা।

২৩ বছরের আক্ষেপ ঘোচানোর পালা এবার?
২৩ বছরের আক্ষেপ ঘোচানোর পালা এবার?

 

  • গোলরক্ষক

সার্জিও রোমেরো (ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড)

নাহুয়েল গুজম্যান (টিগ্রেস)

মারিয়ানো আন্দুজার (এস্তুদিয়ান্তেস)

গোলবারে থাকছেন চিরচেনা সার্জিও রোমেরো
গোলবারে থাকছেন চিরচেনা সার্জিও রোমেরো

 

  • ডিফেন্ডার

রামিরো ফুনেস মোরি (এভারটন)

নিকলাস ওটামেন্ডি (ম্যানচেস্টার সিটি)

মার্কোস রোহো (ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড)

গ্যাব্রিয়েল মেরকাদো (রিভার প্লেট)

ফাকুন্দো রনক্যাগলিয়া (ফিওরেন্টিনা)

জোনাথান মাইদানা (রিভার প্লেট)

ভিক্টর কুয়েস্তা (ইন্ডিপেন্ডিয়েন্টে)

মূল একাদশে আর্জেন্টিনার ডিফেন্স লাইনআপ হতে পারে এমনই
মূল একাদশে আর্জেন্টিনার ডিফেন্স লাইনআপ হতে পারে এমনই

 

  • মিডফিল্ডার

হাভিয়ের ম্যাশচেরানো (বার্সেলোনা)

মাতিয়াস ক্রেইনভিটার (অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ)

লুকাস বিলিয়া (লাজিও)

অগুস্তো ফার্নান্দেজ (অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ)

অ্যানহেল ডি মারিয়া (প্যারিস সেইন্ট জার্মেই)

এভার বানেগা (ইন্টার মিলান)

এরিক লামেলা (টটেনহ্যাম হটস্পার)

নিকোলাস গাইতান (অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ)

হাভিয়ের পাস্তোরে (প্যারিস সেইন্ট জার্মেই)

ইজেক্যিয়েল লাভেজ্জি (হেবেই চায়না ফরচুন)

আর্জেন্টাইন মিডফিল্ড হতে পারে এরকম
আর্জেন্টাইন মিডফিল্ড হতে পারে এরকম

 

  • স্ট্রাইকার

লিওনেল মেসি (বার্সেলোনা)

সার্জিও অ্যাগুয়েরো (ম্যানচেস্টার সিটি)

গঞ্জালো হিগুয়াইন (নাপোলি)

মেসি-হিগুয়াইন-মারিয়া ; আর্জেন্টাইন অ্যাটাক
মেসি-হিগুয়াইন-মারিয়া ; আর্জেন্টাইন অ্যাটাক
  • উল্লেখযোগ্য যারা সুযোগ পাননি

পাওলো ডাইবালা (স্ট্রাইকার, জুভেন্টাস)

জিরোনিমো রুইয়ি (গোলরক্ষক, রিয়াল সোসিয়েদাদ)

পাবলো জাবালেতা (ডিফেন্ডার, ম্যানচেস্টার সিটি)

মার্টিন ডেমিকেলিস (ডিফেন্ডার, ম্যানচেস্টার সিটি)

ইজেক্যিয়েল গ্যারায় (ডিফেন্ডার, জেনিত সেইন্ট পিটার্সবার্গ)

মাতেও মুসাচ্চিও (ডিফেন্ডার, ভিয়ারিয়াল)

এঞ্জো পেরেজ (মিডফিল্ডার, ভ্যালেন্সিয়া)

রবার্টো পেরেইরা (মিডফিল্ডার, জুভেন্টাস)

ফার্নান্দো গ্যাগো (মিডফিল্ডার, বোকা জুনিওর্স)

কার্লোস তেভেজ (স্ট্রাইকার, বোকা জুনিওর্স)

মাউরো ইকার্দি (স্ট্রাইকার, ইন্টার মিলান)

দলে জায়গা হয়নি গ্যারায়-তেভেজ-ডাইবালার মত তারকাদের
দলে জায়গা হয়নি গ্যারায়-তেভেজ-ডাইবালার মত তারকাদের

যথারীতি এবারেও তারকা মিডফিল্ডার ও বিশেষত তারকা স্ট্রাইকারদের ভীড়ে আর্জেন্টাইন ডিফেন্স লাইন যথেষ্টই সাদামাটা। তাঁর উপরে ইনজুরির কারণে খেলতে পারছেন না নির্ভরযোগ্য রাইটব্যাক পাবলো জাবালেতা, দল থেকে বাদ পড়েছেন গত বিশ্বকাপের পর রাশিয়ায় পাড়ি জমানো সেন্টারব্যাক ইজেক্যিয়েল গ্যারায়ও। ফলে গত বিশ্বকাপের ডিফেন্স থেকে এবারের ডিফেন্স হবে আলাদা, রাইটব্যাক পজিশানে পাবলো জাবালেতার জায়গায় কোচ মার্টিনোর প্রথম পছন্দ এখন রিভারপ্লেটের ২৯ বছর বয়সী গ্যাব্রিয়েল মের্কাদো। তাঁর ব্যাকআপ হিসাবে থাকবেন ইতালিয়ান ক্লাব ফিওরেন্টিনায় সেন্টারব্যাক হিসেবে খেলা ফাকুন্দো রনক্যাগলিয়া। ফুলব্যাক পজিশানে সেই হাভিয়ের জানেত্তি আমলের পর থেকেই আর্জেন্টিনায় হাহাকার অবস্থা, ব্রাজিল বা অন্যান্য দলে যেখানে যুগে যুগে কাফু, কার্লোস, মার্সেলো, আলভেসদের মত ফুলব্যাক এসেছে, আর্জেন্টিনায় বহুবছর ধরেই ক্লাব ফুটবলে সেন্টারব্যাক হিসাবে খেলা খেলোয়াড়রাই জাতীয় দলে ফুলব্যাক হিসেবে খেলছেন। এবারেও তার ব্যতিক্রম হয়নি। ফলে নিজ ক্লাব ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে সেন্টারব্যাক হিসেবে খেলা মার্কোস রোহো গত বিশ্বকাপের পর এবারও আর্জেন্টিনার হয়ে লেফটব্যাক হিসাবে খেলবেন। সেন্টারব্যাক পজিশানে এভারটনে রামিরো ফ্যুনেস মোরি ও ম্যানচেস্টার সিটির নিকোলাস ওটামেন্ডি জুটি বাঁধবেন, এটা নিশ্চিত। সেন্ট্রাল ডিফেন্সে ব্যাকআপ হিসাবে থাকবেন রিভারপ্লেটের জোনাথান মাইদানা ও ইন্ডিপেন্ডিয়েন্টের ভিক্টর কুয়েস্তা। মাইদানা খেলতে পারেন রাইটব্যাক হিসেবেও।  অন্য কোন স্পেশালিস্ট লেফটব্যাক দলে রাখেননি কোচ জেরার্ডো মার্টিনো, মার্কোস রোহোর ব্যাকআপ হিসেবে, বাদ পড়েছেন সান লরেঞ্জোর লেফটব্যাক ইম্যানুয়েল মাস। যে সিদ্ধান্তটা অত্যন্ত চমকপ্রদ।

1453242_Torquay_United

সাধারণত ৪-৩-৩ ফর্মেশানে খেলা আর্জেন্টিনার মিডফিল্ডে হ্যাভিয়ের ম্যাশচেরানো থাকবেন সেটা বলেই দেওয়া যায়। সাথে বাকী দুইজন মিডফিল্ডার হিসাবে লাজিওর লুকাস বিলিয়া ও ইন্টার মিলানের এভার বানেগার থাকার সম্ভাবনা সর্বাধিক, যদিও তাঁদেরকে জায়গার জন্য অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদের দুই সেন্ট্রাল মিডফিল্ডার মাতিয়াস ক্রেইনভিটার ও অগুস্তো ফার্নান্দেজের সাথে লড়াই করতে হবে। সেন্ট্রাল মিডফিল্ডে অনেকসময় প্যারিস সেইন্ট জার্মেইয়ের হাভিয়ের পাস্তোরে কিংবা টটেনহ্যাম হটস্পারের এরিক লামেলাকেও দেখা যায়। তবে এবার বোকা জুনিয়র্সের ফার্নান্দো গ্যাগো কিংবা ভ্যালেন্সিয়ার এনজো পেরেজ না থাকার ফলে মূল একাদশে ম্যাশচেরানো-বানেগা-বিলিয়া থাকছেন এটা মোটামুটি বলেই দেওয়া যায়। তিন অ্যাটাকারের মধ্যে দুই উইংয়ে লিওনেল মেসি ও অ্যানহেল ডি মারিয়ার থাকা নিশ্চিত, স্ট্রাইকার পজিশানে লড়াই হবে নাপোলির হয়ে এবার মৌসুমে ৩৬ গোল করা স্ট্রাইকার গঞ্জালো হিগুয়াইন ও ম্যানচেস্টার সিটির সার্জিও অ্যাগুয়েরোর মধ্যে। তারা ভরা স্ট্রাইকার পজিশানে তাই জায়গা পাননি মাউরো ইকার্দি কিংবা পাউলো ডাইবালার মত চূড়ান্ত ফর্মে থাকা তরুণ স্ট্রাইকাররা।

এবার পারবেন ত মেসি?
এবার পারবেন ত মেসি?

রিয়াল সোসিয়েদাদের গত গত দুই মৌসুম ধরে অসাধারণ ফর্মে থাকা গোলরক্ষক জিরোনিমো রুইয়িকে না নিয়ে সেই সার্জিও রোমেরো না মারিয়ানো আন্দুজারদেরই কেন বারবার নেওয়া হচ্ছে সেই প্রশ্নের উত্তর শুধুমাত্র মার্টিনোই দিতে পারবেন। যেখানে নিজ ক্লাবের হয়েই ম্যাচ খেলতে পারেননা রোমেরো। সাথে ফুলব্যাক-সঙ্ক্রান্ত ঝামেলা ত রয়েছেই। আর্জেন্টিনার ডিফেন্স মানেই চিন্তার কারণ, জিনিসটা যথারীতি সার্বজনীন।

দেখা যাক, ভাঙ্গাচোরা ডিফেন্সের এই দল নিয়ে জেরার্ডো মার্টিনো কি ২৩ বছর পর কোপা জিতে সামালোচকদের মুখ বন্ধ করতে পারেন কি না!

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

three × five =