কোপা আমেরিকা টিম প্রিভিউ : কলম্বিয়া

গত বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনাল খেলা কলম্বিয়ার বছর দুয়েক আগেকার ফর্ম নেই আর। এই কথাটা মোটামুটি গত কোপার সময়েই বোঝা গিয়েছিল। রাদামেল ফ্যালকাও, হামেস রড্রিগেস, কার্লোস বাক্কা, আদ্রিয়ান রামোস, লুইস মুরিয়েল, জ্যাকসন মার্টিনেজদের মত বিধ্বংসী স্ট্রাইকারদের নিয়ে গড়া সেই কলম্বিয়া গত কোপায় কোন গোল করতে পারেনি। বিদায় নিয়েছিল কোয়ার্টার ফাইনাল থেকে, পুঁচকে ভেনেজুয়েলার কাছে হেরে।

সেই ভুলে যাওয়ার মত অভিজ্ঞতার পর আর্জেন্টাইন কোচ হোসে পেকারম্যান একরকম কলম্বিয়ান দলটাকে ঢেলে সাজিয়েছেন, দলে বয়সী চেনা অনেক মুখের জায়গা নিয়েছেন নতুন আনকোরা মুখ। কিছুদিন আগেই এবারের কোপা অভিযানের জন্য ২৩ সদস্যের কলম্বিয়ান কোপা আমেরিকান দল ঘোষণা করেছেন তিনি। দেখে নেওয়া যাক কিরকম হল দলটা।
&NCS_modified=20150324113910&MaxW=640&imageVersion=default&AR-150329587

  • গোলরক্ষক

ডেভিড ওসপিনিয়া (আর্সেনাল)

রবিনসন জাপাতা (সান্তা ফে)

ক্রিস্টিয়ান বনিয়া (অ্যাটলেটিকো নাসিওনাল)

গোলপ্রহরী ডেভিড ওসপিনিয়া
গোলপ্রহরী ডেভিড ওসপিনিয়া

 

  • ডিফেন্ডার

ক্রিস্টিয়ান জাপাতা (এসি মিলান)

ইয়েরেই মিনা (পালমেইরাস)

সান্তিয়াগো আরিয়াস (পিএসভি আইন্দহোভেন)

স্টেফান মেদিনা (পাচুকা)

ফেলিপে অ্যাগুইলার (অ্যাটলেটিকো নাসিওনাল)

ফ্র্যাঙ্ক ফাবরা (বোকা জুনিওর্স)

ফরিদ দিয়াজ (অ্যাটলেটিকো নাসিওনাল)

হেইসন মুরিইয়ো (ইন্টার মিলান)

 

মুরিইয়ো-জাপাতা ; কলম্বিয়ান সেন্ট্রাল ডিফেন্সে ভরসার নাম
মুরিইয়ো-জাপাতা ; কলম্বিয়ান সেন্ট্রাল ডিফেন্সে ভরসার নাম
  • মিডফিল্ডার

কার্লোস স্যানচেজ (অ্যাস্টন ভিলা)

হামেস রড্রিগেজ (রিয়াল মাদ্রিদ)

হুয়ান গুইলের্মো কুয়াড্রাডো (জুভেন্টাস)

গুইলের্মো সেলিস (জুনিওর)

এডউইন কারদোনা (মন্ত্যেরেই)

সেবাস্তিয়ান পেরেজ (অ্যাটলেটিকো নাসিওনাল)

দানিয়াল টরেস (ইন্ডিপেন্ডিয়েন্টে মেদেলিন)

আন্দ্রেস ফেলিপে রোয়া (দেপোর্তিভো কালি)

কলম্বিয়াকে কতদূর টানতে পারবেন হামেস রড্রিগেজ?
কলম্বিয়াকে কতদূর টানতে পারবেন হামেস রড্রিগেজ?

 

  • স্ট্রাইকার

কার্লোস বাক্কা (এসি মিলান)

রজার মার্টিনেজ (রেসিং)

ডায়রো মোরেনো (টিউয়ানা)

মার্লোস মোরেনো (অ্যাটলেটিকো নাসিওনাল)

স্ট্রাইকে এবারের ভরসা কার্লোস বাক্কা
স্ট্রাইকে এবারের ভরসা কার্লোস বাক্কা
  • উল্লেখযোগ্য যারা যারা বাদ পড়েছেন

রাদামেল ফ্যালকাও (স্ট্রাইকার, মোনাকো)

জ্যাকসন মার্টিনেজ (স্ট্রাইকার, গুয়াংঝু এভারগ্রান্ডে)

এডার আলভারেজ বালান্তা (ডিফেন্ডার, রিভারপ্লেট)

আবেল অ্যাগুইলার (মিডফিল্ডার, বেলেনেস)

ফ্রেডি গুয়ারিন (স্ট্রাইকার, সাংহাই শেনহুয়া)

হুয়ান ফার্নান্দো কুইন্টেরো (মিডফিল্ডার, এফসি পোর্তো)

আদ্রিয়ান রামোস (স্ট্রাইকার, বরুশিয়া ডর্টমুন্ড)

লুইস মুরিয়েল (স্ট্রাইকার, সাম্পদোরিয়া)

ভিক্টর ইবারবো (স্ট্রাইকার, অ্যাটলেটিকো নাসিওনাল)

তেওফিলো গুতিয়েরেজ (স্ট্রাইকার, স্পোর্টিং লিসবন)

হুয়ান ক্যামিলো জুনিগা (ডিফেন্ডার, বোলোনিয়া)

পাবলো আরমেরো (ডিফেন্ডার, ওয়েস্ট হ্যাম ইউনাইটেড)

দলে নেই রাদামেল ফ্যালকাওয়ের মত তারকারা
দলে নেই রাদামেল ফ্যালকাওয়ের মত তারকারা

যে কলম্বিয়া মানেই কিছুদিন আগেও স্ট্রাইকারদের ছড়াছড়ি একটা দল হিসাবে মনে করা হত, পরিচিত সেই অনেক স্ট্রাইকারই এই দলে নেই। ক্যালিয়ারিতে ঝলক দেখানো ভিক্টর ইবারবো ক্যালিয়ারির পর এএস রোমা, ওয়াটফোর্ড, সবশেষে অ্যাটলেটিকো নাসিওনালে তিন দফা ধারে ঘুরে ৩০টার মত ম্যাচ খেলে গত দুই মৌসুম ধরে গোল করতে পারেননি একটাও। এফসি পোর্তোর হয়ে মাঠ মাতানো জ্যাকসন মার্টিনেজ অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদে ফ্লপ হয়ে চলে গেছেন চিনের গুয়াংঝু এভারগ্রান্ডেতে, সেখানে ইনজুরিতে পড়ে বাদ পড়েছেন দল থেকে। উদিনেসেতে থাকার সময় “গরীবের সুয়ারেজ” নাম পাওয়া লুইস মুরিয়েল উদিনেস থেকে সাম্পদোরিয়ায় গেলেও সেই ফর্ম ফিরে পাননি আর। হফেনহেইম থেকে দুই মৌসুম আগে বরুশিয়া ডর্টমুন্ডে গিয়ে নিজের ফর্মের প্রতি সুবিচার করতে পারেননি আদ্রিয়ান রামোস। আর রাদামেল ফ্যালকাও ত সেই অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ-মোনাকোর ফর্ম খুঁজে ফিরছেন গত দুই মৌসুম। ফলে দলে এসেছেন রজার মার্টিনেজ, ডায়রো মোরেনো, মার্লোস মোরেনোর মত নতুন মুখ সব।

গত বিশ্বকাপে ব্রাজিলের নেইমারকে লাথি দিওয়ে সমালোচিত হুয়ান ক্যামিলো জুনিগা নেই এইবার
গত বিশ্বকাপে ব্রাজিলের নেইমারকে লাথি দিওয়ে সমালোচিত হুয়ান ক্যামিলো জুনিগা নেই এইবার

দলের সুপারস্টার বলতে রিয়াল মাদ্রিদের হামেস রড্রিগেজ, আছেন দুই এসি মিলান সতীর্থ কার্লোস বাক্কা ও ক্রিস্টিয়ান জাপাতাও। মাত্রই পিএসভি আইন্দহোভেনকে ডাচ লিগ জিতিয়ে কোপা খেলতে আসছেন রাইটব্যাক সান্তিয়াগো আরিয়াস, আছেন আর্সেনালে খেলা গোলরক্ষক ডেভিড ওসপিনিয়াও। গত কোপার দুঃস্বপ্ন ভুলে এরা কিভাবে একটা দল হয়ে কলম্বিয়াকে এই কোপায় সাফল্য এনে দিতে পারেন, দেখার বিষয় সেটাই।

মূল একাদশে গোলবারের নিচের জায়গাটা আর্সেনালের ডেভিড ওসপিনিয়ার জন্যই বরাদ্দ। সেন্টারব্যাক পজিশানে এসি মিলানের ক্রিস্টিয়ান জাপাতা ও প্রতিবেশী ইন্টার মিলানের হেইসন মুরিইয়োর খেলা নিশ্চিত। তাঁদের ব্যাকআপ হিসেবে থাকছেন পালমেইরাসে খেলা ইয়েরেই মিনা। রাইটব্যাকে থাকছেন পিএসভি আইন্দহোভেনের নির্ভরযোগ্য সান্তিয়াগো আরিয়াস, তাঁর ব্যাকআপ হিসেবে দলে আছেন পাচুকায় খেলা স্টেফান মেদিনা। লেফটব্যাকে খেলার জন্য হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হবে বোকা জুনিওর্সের ফ্র্যাঙ্ক ফাবরা ও অ্যাটলেটিকো নাসিওনালের ফরিদ দিয়াজের মধ্যে। তাছাড়া সেন্টারব্যাক হোক, রাইটব্যাক হোক কি লেফটব্যাক, প্রত্যেক পজিশানেই খেলার জন্য ব্যাকআপ হিসেবে থাকছেন অ্যাটলেটিকো নাসিওনালের ভার্সেটাইল ডিফেন্ডার ফেলিপে অ্যাগুইলার।

1453500_Torquay_United

কোচ হোসে পেকারম্যান ফর্মেশান নিয়ে কাটাছেঁড়া করতে পছন্দ করেন খুব, কলম্বিয়াকে এরইমধ্যে গত কোপার পর খেলিয়েছেন ৪-২-২-২, ৪-৪-২, ৪-২-৩-১, ৪-৩-২-১ বিভিন্ন ফর্মেশানে। ৪-২-৩-১ ফর্মেশানে খেলালে দুইজন সেন্ট্রাল মিডফিলডারের জায়গায় খেলবেন ইন্ডিপেন্ডিয়েন্টে মেদেলিনের ড্যানিয়েল টরেস ও অ্যাস্টন ভিলার কার্লোস স্যানচেজ, তাঁদের জায়গা পাওয়ার জন্য চূড়ান্ত লড়াই করতে হবে জুনিওরে খেলা গুইলের্মো সেলিস ও অ্যাটলেটিকো নাসিওনালের সেবাস্তিয়ান পেরেজের সাথে। রাইট উইংয়ে খেলছেন জুভেন্টাসের হয়ে মাঠ মাতানো তারকা হুয়ান কুয়াড্রাডো, লেফট উইংয়ে আছেন মন্তেরেইয়ের এডউইন কারদোনা। আর অ্যাটাকিং মিডফিল্ডার হিসেবে মাঝে রিয়াল মাদ্রিদের হামেস রড্রিগেজ ত থাকছেনই, কলম্বিয়ান অধিনায়ক। একমাত্র স্ট্রাইকার হিসেবে সামনে খেলার সম্ভাবনা সবচাইতে বেশী এবার এসি মিলানের হয়ে দুর্দান্ত মৌসুম কাটানো স্ট্রাইকার কার্লোস বাক্কার।

নতুন মুখদের নিয়ে কলম্বিয়া এবারের কোপায় কতদূর যেতে পারে, দেখার বিষয় সেটাই।

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

12 + sixteen =