কিছু সমীকরণ এবং রিয়ালের জন্য আজকের এল ক্লাসিকো

এল ক্লাসিকো। নামটা শুনলেই কেমন যেন অন্যরকম একটা শিহরণ কাজ করে। নিজের প্রিয় দলটা নিয়ে শঙ্কা বহুগুণে বেড়ে যায়। এমনিতেই নতুন কোচ, যার উপর ব্যক্তিগতভাবে আমার কোন ভরসা নেই। তার উপর আবার দলের সবচেয়ে বড় দুই তারকার মধ্যে অন্তরদ্বন্দ্বের সীমারেখা দিন দিন কেবল বেড়েই চলছে। মরার উপর খাঁড়ার ঘা হয়ে দলের পারফরম্যান্স আবার শেয়ারের দামের মতই প্রতিনিয়ত উঠানামা করছে। এত কিছুর মধ্যে তাই আমার মত একজন সমর্থকের মনে  এল ক্লাসিকো জয়ের আশা থাকাটা অস্বাভাবিকই বটে। তবে তারপরও কিছুটা ভাগ্যের ছোঁয়া আর সাথে আর কিছু সমীকরণ মিলাতে পারলে হয়ত ম্যাচটা জেতা অসম্ভবও না। আর সেই সমীকরণগুলো নিয়েই আমার আজকের এই জগাখিচুড়ি মেশানো লেখা। যাই হোক আর দেরি না করে দেখে নেই রিয়ালের পক্ষে আজকের ম্যাচ জেতার জন্য দরকারি শর্তগুলি –

১। নিঃস্বার্থভাবে খেলাঃ গত কয়েকমাস ধরেই রিয়ালের একচ্ছত্র সেনাপ্রধান হতে আগ্রহী বেল। ওইদিকে নিজে আসন ছাড়া দূরে থাক ওই আসন শেয়ার করতেও রাজি নন রোনালদো। ফলাফল দুইজনের মধ্যে শীতল সম্পর্ক। তবে  অন্তত আজকের জন্য হলেও রোনালদো-বেলের উচিত নিজেদের মধ্যে দ্বন্দ্বটা ভুলে গিয়ে দলের স্বার্থে খেলা। ডান কোনা থেকে হকআইয়ের মত বেলের পিনপয়েন্ট ক্রস আর ডি বক্সের ভেতরে রোনালদোর ছয়ফুটি লাফে আগুনের গোলার মত হেড। কার সাধ্যি গোল ঠেকায়?  

২।  ইস্কোকে প্রথম একাদশে রাখাঃ  Fantastisco….যারা ভালদেবেবাসে আজকের ট্রেনিং সেশনে ইস্কোর করা গোলটা দেখেছেন তারা আমার কথার মর্ম বেশ ভালভাবে বুঝবেন। বেনিতেজের সামনে অপশন দুইটা। হামেস নয়ত ইস্কো। পার্সোনালি দুইজনই আমার ফেবারিট। তবে হামেস এই কিছুদিন হল মাত্র ইনজুরি থেকে ফিরেছে। তার খেলার মধ্যে সেই ন্যাচারাল ভাবটাও এখনও ফেরত আসেনি। আর তাই আজকের ম্যাচের জন্য আমার বাজির ঘোড়া হচ্ছে ইস্কো। পার্থক্য গড়ে দিতে পারে তার চতুরতা।      

৩। নাভাস-রামোসের জ্বলে উঠাঃ দীর্ঘদিন পর দলে ফিরছেন মেসি। শুরু থেকেই ম্যাচ না খেললেও সেকেন্ড হাফে নামবেন সিওর। তো তাঁকে আটকাতে হলে নাভাসকে জ্বলে উঠতে হবে। ডিফেন্সে র‍্যামোস-ভারানে-পেপের কোন তুলনা হয়না। কিন্তু কেন জানি এল ক্লাসিকো এলেই এরা খেই হারিয়ে ফেলে। তবে রিয়ালের নতুন অধিনায়কের উপর আমি আমার সর্বোচ্চ বিশ্বাস রাখতে চাই। বার্সার তিন মন্সটারকে আটকাতে র‍্যামস আর নাভাস্কেই আজ এগিয়ে আসতে হবে।

৪। রোনালদোর ফর্মে ফেরাঃ ১১ ম্যাচে ৮ গোল। খারাপ বলা যাবে না কোনভাবেই। কিন্তু নামটা যখন ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো তখন আপনার ভুরু কুঁচকাতে বাধ্য। যে ব্যক্তিটির “গোল পার গেইম” রেট একের বেশি তার কেন এই অবস্থা? হয়ত তিনি সুখি নন। কিন্তু আজকে ওইসব ক্ষুদ্র বিষয়ে মাথা ঘামালে চলবে না। জ্বলে উঠতে তবে তাঁকে। চাইলে রবির “জ্বলে উঠুন আপন শক্তিতে” মটোটাও ফলো করতে পারেন। শক্তি-সামর্থ্য কিছুরই অভাব নেই তাঁর। শুধু প্রয়োজন ওইগুলা কাজে লাগানোর। তিনি হলেন পিওর ক্লাস। আর কে না জানে যে “Form is temporary, Class is permanent“ ?  কথায় আছে  ক্ল্যাসি খেলোয়াড়রা বড় ম্যাচে জেগে উঠে। আর আজকের এই মহারনের চেয়ে বড় প্ল্যাটফর্ম আর কোথাও আছে কি?  

৫। সলিড মিডফিল্ডঃ ক্রুস-মদ্রিচ জুটিকে নিয়ে নতুন করে বলার কিছু নেই। সাথে নতুন ভরসা ক্যাসেমিরোকে যোগ করুন। দুর্দান্ত মিডফিল্ড আমাদের। বার্সাকে আটকাতে মাঝমাঠে তাঁদের জাল ছড়াতেই হবে। আর তাঁদের দ্বারা সেটা খুবই সম্ভব। খালি দরকার নিজেদের কাজটা ঠিকঠাকভাবে করে যাওয়া।  

ছয় নম্বরটা ইমপ্লায়েড। তা হল দলের বাকিদের নিজেদের কাজগুলো ঠিকঠাক মত করে যাওয়া। তো এই সাতের সমন্বয়ে ম্যাচ জেতা পানির মতই সোজা হবার কথা।  তবে দিনশেষে “লাকি নাম্বার সেভেন”  খাটবে কিনা তা নির্ধারণ করে দেবে কিন্তু ওই ভাগ্যই!                              

                       

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

9 + 7 =