ওয়ালশই বাংলাদেশের বোলিং কোচ

আলহামদুল্লিাহ। আল্লাহর দান, মুশকিলে আসান। অবশেষে বাংলাদেশ ক্রিকেটের স্মরণ কালের সবচেয়ে ভয়ঙ্কর সমস্যার সমাধান হলো। একজন বোলিং কোচ পেয়েছে বাংলাদেশ!

তবে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট বোর্ডের আর আক্কেল হলো না। ভারি বজ্জাত। নিজেদের ক্রিকেটারদের সঙ্গে গ্যানজাম লেগেই আছে। এখন বিসিবির বাড়া ভাতে ছাই দিয়ে দিল। বাংলাদেশের ক্রিকেট ইতিহাসের সবচেয় বড় ঘোষণা…এটা নিয়ে কত ঢাক গুড়গুড়, কত রোমাঞ্চ, কত রহস্য, কত উত্তেজনা, কত ভর দুপুর আর রাত দুপুরের আয়োজন… বিসিবি ঘটা করে জানাবে, অথচ ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট বোর্ডই আগেই জানিয়ে দিল! ক্যারিবিয়ানগুলো আর সভ্য হলো না!

গত মাসখানেক বা তারও বেশি সময় ধরে বিসিবি তথা বাংলাদেশের ক্রিকেট আঙিনায় সবচেয়ে বেশি উচ্চারিত প্রশ্ন, ‘বোলিং কোচ কে?’… এই প্রশ্নে সাংবাদিক সমাজের ঘুম হারাম। প্রেস কনফরেন্সে, আড্ডায়, ফোনালাপে এটা নিয়মিত প্রসঙ্গ। অনুসন্ধানী প্রতিবেদনের জন্য ক্রাইম রিপোর্টারদের মত তৎপরতা। দেশের আপামর ক্রিকেটপ্রেমি জনতাও নাওয়া-খাওয়া ছেড়ে দিয়ে এই প্রশ্নের উত্তর খুঁজে হয়রান হয়েছে।

বিসিবি কর্তারা এই প্রশ্ন শুনে কখনও মুচকি হেসেছেন, কখনো জিহবায় কামড় দিয়েছেন, কখনও গম্ভীর হয়ে উঠেছেন, রহস্য উপন্যাসের চেয়েও গভীর রহস্য ও বাংলা সিনেমার চেয়েও বেশি সাসপেন্স রেখে দিয়েছেন…ব্যাপারটির গুরুত্ব এত বিশাল যে স্বয়ং বিসিবি প্রধান এই ঘোষণা দেবেন বলে সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হয়েছেন…কিন্তু এটার ব্যপ্তি এতটাই যে বারবার ঘোষণা দিতে গিয়েও দেওয়া যায়নি… আরও দু-একদিন হয়ত এই ঘোষণা নিয়ে নাটক হতো, প্রশ্ন হতো, মজা হতো এবং ঘোষণার আয়োজন হতো গুলশান বা ধানমন্ডির কোনো প্রান্তে…সব কিছুতে জল ঢেলে ঢিল ক্যারিবিয়ান বোর্ডের ফাজিল গুলা। আসলেই তাদের মাথায় কিচ্ছু নাই।

একজন বোলিং কোচ অবশ্যই যে কোনো দেশের ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় ব্যাপার। গোটা ক্রিকেট বিশ্ব সেটা না বুঝলেও আমরা তা অনুধাবন করে অতি উৎসাহিতায় বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করেছি। বিশাল ব্যাপার। যাহোক, পেস বোলিং কোচ আনার মাধ্যমে স্মরণকালের সবচেয়ে বড় সমস্যা সমাধান হওয়ায় স্মরণকালের সবচেয়ে ভয়ঙ্কর পেস আক্রমণ শিগগিরই হবে বাংলাদেশের… আমিন!

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

5 × 3 =