এসি মিলান এর স্ট্রাইকার বিড়ম্বনা : কে কার চেয়ে ভালো?

এসি মিলান এই মৌসুমেই নতুন মালিকানার অধীনে চলে গিয়েছে। সিলভিও বার্লুসকোনি-আদ্রিয়ানো গ্যালিয়ানির রাজত্ব শেষে মিলানে এখন চাইনিজ যুগ। মালিকানা নিয়েই দলকে ঢেলে সাজিয়েছে তারা। দলে এসেছেন লিওনার্দো বোনুচ্চি, রিকার্ডো রড্রিগেজ, মাত্তেও মুসাক্কিও, ফ্র্যাঙ্ক কেসি, ফাবিও বোরিনি, আন্দ্রে সিলভা, নিকোলা কালিনিচ, আন্তোনিও দোন্নারুমা, আন্দ্রেয়া কন্তি, হাকান চালহানোগ্লুসহ অনেক তারকা। নতুন অনেক তারকা আসলেও কোচ হিসেবে সেই ভিনসেঞ্জো মন্তেয়ার উপরেই ভরসা রেখেছিলো মিলানের চাইনিজ মালিকপক্ষ।

সবাই ভেবেছিলেন গত মৌসুমে পয়েন্ট তালিকার ৬ নম্বর অবস্থানে থেকে মৌসুম শেষ করা এসি মিলান এবার কিছু একটা করে দেখাবে। কিন্তু সে আশায় এখন পর্যন্ত গুড়ে বালি। লিগের ১৪ ম্যাচ শেষে মাত্র ৬ জয় নিয়ে পয়েন্ট তালিকার ৭ নাম্বার অবস্থানে আছে এসি মিলান। খেলার স্টাইলও হয়ে পড়েছে গৎবাঁধা বিরক্তিকর। বোনুচ্চি, চালহানোগ্লু, কেসি, মুসাক্কিও, কালিনিচের মত ভালো পারফর্মাররা মিলানে এসে নিজেদের হারিয়ে খুঁজছেন যেন। মিলানের এই হাপিত্যেশ অবস্থার প্রথম কোপটা পড়েছে আজ, কোচ ভিনসেঞ্জো মন্তেয়ার উপরে। ছাঁটাই করা হয়েছে তাকে। তাঁর জায়গায় অন্তর্বর্তীকালীন কোচ হিসেবে নিয়ে আসা হয়েছে ক্লাব কিংবদন্তী জেনারো গাত্তুসোকে। মিলানকে ফর্মে ফিরিয়ে তিনি আনতে পারেন কি না, সেটা সময়ই বলে দেবে।

এই মৌসুমে মিলানে এসেছেন নতুন দুই স্ট্রাইকার। এফসি পোর্তো থেকে আনা হয়েছে পর্তুগিজ স্ট্রাইকার আন্দ্রে সিলভা ও ফিওরেন্টিনা থেকে এসেছেন ক্রোয়েশিয়ান স্ট্রাইকার নিকোলা কালিনিচ। সাথে ক্লাব একাডেমীর তরুণ স্ট্রাইকার প্যাট্রিক কুত্রোনেকেও দলে খেলানো হচ্ছে। তবে সদ্য সাবেক হওয়া কোচ ভিনসেঞ্জো মন্তেয়া কালিনিচকেই খেলাতে বেশী পছন্দ করেন।

পর্তুগিজ স্ট্রাইকার আন্দ্রে সিলভাকে বলা হয় বর্তমান বিশ্বের অন্যতম প্রতিভাধর একটা স্ট্রাইকার। পাঁচ বছরের চুক্তিতে প্রায় ৪০ মিলিয়ন ইউরোতে সিলভাকে দলে এনেছে এসি মিলান। তিনি আসার পর ভাবা হয়েছিল তাকেই মিলানের মূল স্ট্রাইকার বানানো হবে। কিন্তু সেটা হয়নি। ফিওরেন্টিনা থেকে আসা স্ট্রাইকার, সিরি আ তে তুলনামূলক অভিজ্ঞ নিকোলা কালিনিচকেই মূল স্ট্রাইকার বানিয়েছেন ভিনসেঞ্জো মন্তেয়া। সাথে ব্যাকআপ প্ল্যান হিসেবে প্যাট্রিক কুত্রোনে।

কিন্তু কেন হচ্ছে এরকম? যে স্ট্রাইকারের পেছনে প্রায় ৪০ মিলিয়ন ইউরো খরচ করা হয়েছে তাকে কেন মূল স্ট্রাইকার হিসাবে খেলানো হচ্ছেনা এসি মিলান এ?

এসি মিলান এর স্ট্রাইকার বিড়ম্বনা, কে কার থেকে ভালো?
এসি মিলানের স্ট্রাইকার বিড়ম্বনা, কে কার থেকে ভালো?

এই প্রশ্নের উত্তর জানার জন্য চলে যেতে হবে এই মৌসুমে মিলানের ট্রান্সফার কার্যক্রমের উপর। নতুন মালিক আসার পর মিলানের নতুন মালিকেরা সবসময় চেয়েছিলেন মিলানে বিশ্বের নামকরা সব স্ট্রাইকার আসুক, প্রতিভাধর তরুণ স্ট্রাইকাররা আসুক। ফলে বরুশিয়া ডর্টমুন্ডের পিয়েরে এমেরিক অবামেয়াং থেকে শুরু করে ম্যানচেস্টার সিটির সার্জিও অ্যাগুয়েরো, তোরিনোর আন্দ্রেয়া বেলোত্তি, স্প্যানিশ স্ট্রাইকার আলভারো মোরাতা – সবাইকে দলে আনার জন্যেই চেষ্টা চালিয়ে তারা। পরে দলে আনতে সক্ষম হয়েছে এই আন্দ্রে সিলভাকে। কিন্তু মিলানের মালিকপক্ষ যতই অবামেয়াং, সিলভা, অ্যাগুয়েরো কিংবা বেলোত্তি-মোরাতাদের চান না কেন, কোচ ভিনসেঞ্জো মন্তেয়া পুরো ট্রান্সফার উইন্ডো জুড়েই ফিওরেন্টিনার কার্যকর স্ট্রাইকার নিকোলা কালিনিচকেই শেষ পর্যন্ত দলে চেয়েছিলেন, এবং পেয়েছেনও। ফলে দলে আর অন্য স্ট্রাইকার যতই আসুন না কেন, মন্তেয়ার তাঁর পছন্দের স্ট্রাইকার কালিনিচকেই নিয়মিত খেলিয়ে গেছেন।

কিন্তু সিদ্ধান্তটা কি সঠিক?

পরিসংখ্যান বলছে – না।

এই মৌসুমে ১৫ ম্যাচ খেলা নিকোলা কালিনিচ শুধুমাত্র ৩টা গোল করতে পেরেছেন, অর্থাৎ প্রতি পাঁচ ম্যাচে একটি করে গোল। যেখানে আন্দ্রে সিলভা যে ১২ টা ম্যাচ খেলেছেন, গোল করেছেন ৬টি, অর্থাৎ এক ম্যাচ পর পরই গোল করেছেন তিনি। একই গোল করার হার প্যাট্রিক কুত্রোনেরও। প্রতি এক ম্যাচ পর পর গোল করা কুত্রোনে ১০ ম্যাচ খেলে মিলানের হয়ে গোল করেছেন ৫টি।

মন্তেয়াকে যে আজ ছাঁটাই করা হল, তার পিছে মূল কারণও হয়তোবা এটাই – সিলভা বা কুত্রোনেকে নিয়মিৎ না খেলিয়ে কালিনিচকে ম্যাচের পর ম্যাচ খেলিয়ে যাওয়া!

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

1 + 20 =