এবারই সুযোগ অসি-বধের!

ক্যামেরন ব্যানক্রফট
পিটার হ্যান্ডসকম্ব
জর্ডান সিল্ক
নিক ম্যাডিনসন
কার্টিস পাটারসন
ট্রাভিস হেড
ক্রিস লিন

*** নামগুলি অচেনা লাগছে? বাংলাদেশ সফরে অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটিং অর্ডারে থাকতে পারেন এই ভদ্রলোকদের ২-৩ জন। ক্লার্ক-রজার্স-ওয়াটসন-হাডিন অবসরে। ওয়ার্নার আসছেন না, জনসন-হেইজেলউডও আসবে না। পেস আক্রমণ অবশ্য তারপরও দুর্দান্ত থাকবে, স্টার্ক-সিডল-কামিন্স-প্যাটিনসন। এমনকি গুরিন্দর সান্ধু, শন অ্যাবট, অ্যান্ড্রু ফেকেটের কেউ আসলেও পেস আক্রমণ খারাপ হবে না। তবে ব্যাটিং লাইন আপ থাকবে একদমই অনভিজ্ঞ। অ্যাডাম ভোজেসকে না আনলে তো আরও অনভিজ্ঞ, অপরিপক্ক, একদমই তরুণ ব্যাটিং লাইন আপ হবে। এক স্টিভেন স্মিথ ছাড়া নির্ভর করার মতো পরিক্ষীত কেউ থাকবে না!

ওপেনিং জুটি থাকবে নতুন। ওপেনিংয়ে জো বার্নস থাকবে শিওর। সঙ্গে ব্যানক্রফট থাকতে পারেন। অভিজ্ঞতার কথা মাখায় রেখে উসমান খাজা বা এড কাওয়ানের কাউকে ফেরানোও হতে পারে। মিডল অর্ডারে ক্যালাম ফার্গুসনকে ভাবা হবে হয়ত। মিচেল মার্শ যেহেতু আছেন , ময়েজেস হেনরিকেস হয়ত সুযোগ পাবেন না। শন মার্শ অবশ্য আরেক দফা সুযোগ পেতে পারেন। তার পরও অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটিং খুবই নড়বড়ে।

তো? স্পিনিং উইকেট বানাও আর অস্ট্রেলিয়ার পরীক্ষা নাও! ওদের নাথান লায়ন আছে, সঙ্গে ফাওয়াদ আহমেদ বা স্টিভ ও’কিফ থাকবে। তবে লায়ন তো আর মুরালি না! ফাওয়াদ বা ও’কিফ মানের স্পিনার ঢাকা লিগে অনেক খেলে। সামলাতে ঝামেলা হওয়ার কথা নয়। আমাদের ব্যাটসম্যানরা অস্ট্রেলিয়ার পেস অ্যাটাক ভালোভাবে সামলাতে পারলে এবার দারুণ এক সুযোগ আমাদের জন্য্। অস্ট্রেলিয়ানদের ক্রিকেট দর্শন, খেলার ধরণ, প্রফেশনালিজম, এক বিন্দু ছাড় দেওয়ার মানসিকতা মাথায় রেখেই বলছি, সত্যিই এবার দারুণ সুযোগ!

তবে উইকেট অবশ্যই হতে হবে টার্নিং!

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

16 − four =