ক্লাব ও ক্লাবের ব্যাজের ইতিহাস : এএস রোমা

ইতালিয়ান সিরি আ এর অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ক্লাব এএস রোমা। যুগে যুগে অনেক গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড় খেলে গিয়েছেন দুইবার লিগজয়ী এই ক্লাবে। যেমন – ফ্র্যানসেস্কো টট্টি, কাফু, অলদাইর, ব্রুনো কন্তি, ফ্যালকাও, ভিনসেঞ্জো মন্তেয়া, গ্যাব্রিয়েল বাতিস্তুতা, কার্লো অ্যানচেলত্তি, রুডি ফলার। এখন খেলছেন এডিন জেকো, ড্যানিয়েলে ডি রসি, কেভিন স্ট্রুটম্যান এর মত খেলোয়াড়েরা। কিন্তু রোমার অনিন্দ্যসুন্দর এই ব্যাজের পেছনের ইতিহাস কি?

এএস রোমা ফুটবল ক্লাবের প্রতীক তার সৌন্দর্যের জন্য এক মুহূর্তেই সকলের নজর কেড়ে নেয় সন্দেহ নেই। এই প্রতীকটি আসলে শুধু রোমা ক্লাবেরই প্রতীক নয়, সেই সাথে রোম শহরেরও প্রতীক। কিন্তু এই প্রতীকটি এসেছে কোথা থেকে ? এসেছে প্রাচীন রোমান সাম্রাজ্য থেকে , তো আসুন দেখা যাক সেই ইতিহাস।

রোম শহর প্রতিষ্ঠিত হয় VIII A.C. শতকের মাঝামাঝির দিকে এবং রোমের প্রথম সম্রাট AUGUSTUS যখন রোমের সম্রাট হন তখন পৃথিবীর যেটুকু অংশ মানুষ চিনতো তার বেশির ভাগই ছিল রোমান সম্রাজ্যের নিয়ন্ত্রণে। এতো বড় এক সম্রাজ্যের জন্মের পিছে দরকার ছিল অভিজাত একটি ইতিহাস তৈরী করার ; নিজেদের শ্রেষ্ঠত্বকে দুনিয়ার সামনে আরও বড় করে দেখানো ছিল সময়ের দাবি। আর যেহেতু তৎকালীন সময়ের কৃষ্টি-কালচারের কেন্দ্র ছিল গ্রিস তাই রোমান সম্রাজ্যের ইতিহাসকে অভিজাত করার জন্য এই ইতিহাসের মাধ্যমে রোমের ইতিহাস প্রাচীন গ্রিসের সাথে মিলানো হয়। বলা বাহুল্য এর মাঝে রয়েছে কিছু সত্যতা ও বেশির ভাগই রূপকথা।

TROY শহর যখন ধ্বংস হয়ে যায় তখন গ্রিক রূপকথার লিজেন্ডারি নায়ক AENEAS তার কিছু সঙ্গীদের সাথে করে ইতালি গিয়ে পৌঁছান, যেখানে পৌঁছে LAVINIO নামক শহর প্রতিষ্ঠিত করেন ; পরবর্তীতে AENEAS এর ছেলে ASCANIUS প্রতিষ্ঠা করেন ALBA LONGA শহর যেখান থেকে শুরু হয় রোমান সম্রাজ্যের ইতিহাস। এই রাজার বংশেই জন্ম হয় রোম শহরের প্রতিষ্ঠাতা ROMOLUS এর।

এর অনেক বছর পর রাজ্যের ক্ষমতা আসে NUMITOR এর কাছে ; রাজার ছোট ভাই AMULIUS ছিলেন একজন ক্ষমতালোভী অসৎ ব্যাক্তি। ক্ষমতার লোভে তিনি তার ভাই এর বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করে ক্ষমতা নিজের হাতে নিয়ে নেন এবং ভবিষ্যতে যেন কেউ ক্ষমতার অংশীদারিত্ব দাবি করতে না পারেন এই জন্য তার ছেলেকে হত্যা করান ও তার মেয়ে RHEA SILVIA কে উপবাসী করে একটি মন্দিরে আটকিয়ে রাখেন যাতে করে তার গর্ভে কোনো সন্তান না হতে পারে। এই মন্দিরে থাকা অবস্থায় তার সৌন্দর্যের প্রেমে পড়ে যান প্রাচীন গ্রিক ও রোমান সভ্যতার অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ যুদ্ধের দেবতা MARS এবং RHEA SILVIA এর সাথে দেবতা MARS এর সম্পর্ক থেকে জন্ম নেয় দুই যমজ ভাই ROMOLUS ও REMOS ।

AMULIUS যখন এই বিষয়টি জানতে পারেন তখন তার ভবিষ্যত হুমকির কথা চিন্তা করে নির্দেশ দেন যাতে করে মাকে একটি বন্দীখানায় আটকিয়ে রাখা হয় ও তার দুই ছেলেকে হত্যা করা হয়। যার ওপর দায়িত্ব ছিল ছেলেদের হত্যা করার তিনি মায়া করে তাদের হত্যা না করে TIBER নদীর তীরে রেখে আসেন। এই নদীর তীরে ছোট্ট শিশু দুটি একটি নেকড়ের নজরে পড়ে ও নেকড়েটি দুই ভাইকে তার কোলে করে তার দুধ পান করাতে থাকে। নদীর তীরেই ছিল FAUSTULUS নামের এক কৃষকের বাড়ি যার স্ত্রী ছিলেন সন্তানহীনা। বাড়ির সামনে বাচ্চাদের কান্না দেখে FAUSTULUS বাহিরে আসেন ও দেখতে পান যে দুটি শিশু একটি নেকড়ের দুধ পান করছে। এটি দেখে কৃষকটি বাচ্চাদুটিকে তার ঘরে নিয়ে আসেন ও আদর-যত্ন করে বড় করেন।

পরবর্তীতে দুই ভাই যখন প্রাপ্তবয়স্ক হলো তখন তাদের পালক পিতা তাদের জন্মের সঠিক ইতিহাস তাদেরকে খুলে বলেন এবং দুই ভাই তখন সিদ্ধান্ত নেয় যে তারা তাদের নানা NUMITOR কে সাহায্য করে পুনরায় ক্ষমতা তাদের হাতে নিয়ে নিবেন। একটি যুদ্ধের মাধ্যমে রাজা AMULIUS কে হত্যা করে তারা ক্ষমতা নিজেদের হাতে নিয়ে নেন।

ক্ষমতা নিজেদের হাতে নেয়ার পর দুই ভাই তাদের নানাকে বলেন যে তারা যেখানে ছোট বেলা থেকে বড় হয়েছে সেখানেই একটি নতুন শহর প্রতিষ্ঠা করতে চান। নতুন এই শহর প্রতিষ্ঠা করার পর তার রাজা কে হবেন এই সিদ্ধান্ত নেয়ার জন্য দুই ভাই সিদ্ধান্ত নেন যে তারা দুই পাহাড়ের ওপর বসে থেকে যিনি বেশি সংখ্যক পাখি দেখবেন তিনিই হবেন নতুন এই শহরের রাজা (প্রাচীন রোমান সভ্যতায় এভাবেই লটারি করা হতো) ; REMOS দেখলেন ৬ টি ঈগল ও ROMOLUS দেখলেন ১২ টি। সুতরাং নতুন এই শহরের রাজা ROMOLUS শহরের সীমানা তৈরী করার জন্য একটি প্রাচীর নির্মাণ করার কাজ শুরু করেন ও ঘোষণা করেন যে কোনো ব্যাক্তি তার অনুমতি ছাড়া এই সীমানার বাহিরেও যেতে পারবেনা আর প্রবেশও করতে পারবেনা। ROMOLUS এর এই ক্ষমতা দেখে তার যমজ ভাই REMOS এর হিংসে হলো এবং তার ভাইর এই ঘোষণাকে তুচ্ছ করার জন্য তিনি হেসে হেসে সীমানার বাহিরে যান ও প্রবেশ করেন। রাজার নির্দেশ নিয়ে মস্করা করাটা ROMOLUS কোনোভাবেই মেনে নিতে পারেননি এবং রাগ করে তিনি তার ভাইকে হত্যা করেন এবং তিনিই হন নতুন এই রাজ্যের একমাত্র ক্ষমতাধর ব্যাক্তি ও তার নামেই নামকরণ হয় নতুন এই শহরের : ROMA ; আর নতুন এই শহরের রাজা আর কেউ নন, গ্রিক নায়ক AENEAS এর বংশীয় ও স্বয়ং MARS দেবতার সন্তান ।

এই ইতিহাস কে প্রতিষ্ঠিত করার জন্য সম্রাট AUGUSTUS সম্রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় এই ইতিহাসের আলোকে অসংখ্য ভাস্কর্য নির্মাণ করেন যেখানে দেখা যায় দুটি শিশু একটি নেকড়ের দুধ পান করছে। কয়েক হাজার বছর পার হয়ে গিয়েছে কিন্তু এই রূপকথা এখনও মানুষের হৃদয় কাড়ে ও আজও রোম শহরের আনাচে কানাচে দেখা যায় এই রূপকথার আলোকে প্রতিষ্ঠিত বিভিন্ন ভাস্কর্য। রোম শহরের ক্লাব রোমাও এই প্রতীককেই বেছে নিয়েছে ক্লাবের প্রতীক হিসেবে।

লিখেছেন – আরাফাত ইয়াসের

আরও পড়ুন –

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

17 + 18 =