ইউরো টিম প্রিভিউ : পোল্যান্ড

নিজেদের ইতিহাসে মাত্র তৃতীয়বারের মত ইউরো খেলতে এবার ফ্রান্সে আসছে পোল্যান্ড। গত দুইবার গ্রুপপর্ব থেকে বাদ পড়া পোল্যান্ড এবার অবশ্যই চাইবে গ্রুপপর্বের গেরো ছিঁড়তে, এবং এই অভিযানে তাঁদের চোখ থাকবে বায়ার্ন মিউনিখে খেলা সুপারস্টার স্ট্রাইকার, গোলমেশিন রবার্ট লেফান্ডোফস্কির দিকে। পুরো ইউরো বাছাইপর্ব জুড়ে দুর্দান্ত ফর্মে থাকা পোল্যান্ড হেরেছে মাত্র একটি ম্যাচ, তাও আবার বিশ্বজয়ী জার্মানির কাছে। এই জার্মানি কিন্তু তাঁদের ইউরো ২০১৬ এর গ্রুপসঙ্গীও বটে। গ্রুপ সি তে তাঁদের বাকী দুই প্রতিপক্ষ হল ইউক্রেইন ও নর্দার্ন আয়ারল্যান্ড।

ইউরো বাছাইপর্বে ১৩ গোল করে এর মধ্যেই নিজের বুটজোড়া শানিয়ে রেখেছেন লেফান্ডোফস্কি, করেছেন ইউরো বাছাইপর্বের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশী গোল করার রেকর্ড। এরই মধ্যে কোচ অ্যাডাম নাওয়ালকা ২৩ সদস্যের পোল্যান্ড দল ঘোষণা করে দিয়েছেন ইউরোর জন্য, দেখে নেওয়া যাক কিরকম হল দলটি, বলা হচ্ছে ১৯৮২ বিশ্বকাপের পর, যে বিশ্বকাপে পোল্যান্ড তৃতীয় হয়েছিল, সে দলের পর পোল্যান্ডের এই দলটাই সবচাইতে সম্ভাবনাময়।

  • গোলরক্ষক

আর্তুর বোরুচ (বোর্নমাউথ)

লুকাস ফাবিয়ানস্কি (সোয়ানসি সিটি)

ওজিয়েইক শোয়েসনি (এএস রোমা)

 

  • ডিফেন্ডার

ইয়াকুব ওয়ারউজিনিয়্যাক (লেচিয়া দানস্ক)

লুকাস পিশচেক (বরুশিয়া ডর্টমুন্ড)

কামিল গ্লিক (তুরিনো)

আর্তুর ইয়েরজেদিইক (লেজিয়া ওয়ার’শ)

মিশাল পাজদান (লেজিয়া ওয়ার’শ)

বারতোশ সালামোন (ক্যালিয়ারি)

থিয়াগো সিওনেক (পালেরমো)

 

  • মিডফিল্ডার

ইয়াকুব ব্লাশচিকোউস্কি (বরুশিয়া ডর্টমুন্ড)

টমাশ ইয়োদলোউইয়েচ (লেজিয়া ওয়ার’শ)

কামিল গ্রোসিচকি (রেনেঁ)

স্লাওমির পেশকো (লেজিয়া দানস্ক)

গ্রেগর্জ ক্রিচোউইয়্যাক (সেভিয়া)

পিওতর জিয়েলিনস্কি (এমপোলি)

ক্রিশটফ মাজিনস্কি (উইসলা ক্র্যাকোউ)

কারল লিনেত্তি (লেচ পোজনান)

বারটোশ কাপুতস্কা (ক্র্যাচোভিয়া)

ফিলিপ স্টারজিনস্কি (জেগলেবি লুবিন)

 

মিডফিল্ডে থাকছেন পাওয়ারহাউস গ্রেগর্জ ক্রিচোউইয়্যাক
মিডফিল্ডে থাকছেন পাওয়ারহাউস গ্রেগর্জ ক্রিচোউইয়্যাক
  • স্ট্রাইকার

রবার্ট লেফান্ডোফস্কি (বায়ার্ন মিউনিখ)

আরকাদিউশ মিলিক (আয়াক্স আমস্টারডাম)

মারিউশ স্টেপিনস্কি (রুচ চোরজউ)

 

  • উল্লেখযোগ্য যারা বাদ পড়লেন

মাসিয়েজ রাইবাস (ডিফেন্ডার, তেরেক গ্রোজনি)

আর্তুর সোবিয়েচ (স্ট্রাইকার, হ্যানোভার ৯৬)

সেবাস্তিয়ান মিলা (মিডফিল্ডার, লেচিয়া দানস্ক)

রবার্ট লেফান্ডোফস্কি - পোল্যান্ডের আশাভরসা
রবার্ট লেফান্ডোফস্কি – পোল্যান্ডের আশাভরসা

গোলবারের সামনে দাঁড়ানোর জন্য কোন অ্যাডাম নাওয়ালকা যে তিনজনের নাম ঘোষণা করেছেন, তাঁদের সবাইকেই ফুটবল ভক্তরা চেনেন। এদের মধ্যে শেষপর্যন্ত পোলিশ নাম্বার ওয়ান হয়ে গোলবারের নিচে দাঁড়ানোর সম্ভাবনা সবচাইতে বেশী সোয়ানসি সিটির সাবেক আর্সেনাল গোলরক্ষক লুকাস ফাবিয়ানস্কির। ব্যাকআপ হিসেবে থাকছেন আর্সেনাল থেকে রোমায় ধারে খেলতে যাওয়া গোলরক্ষক ওজিয়েক শোয়েসনি। আর বর্ষীয়ান আর্তুর বোরুচ ত আছেনই, বোর্নমাউথের।

গোলবারের নিচে জায়গা পাওয়ার জন্য লড়াই হবে দুই সাবেক আর্সেনাল সতীর্থ লুকাস ফাবিয়ানস্কি ও ওজিয়েইক শোয়েসনির মধ্যে
গোলবারের নিচে জায়গা পাওয়ার জন্য লড়াই হবে দুই সাবেক আর্সেনাল সতীর্থ লুকাস ফাবিয়ানস্কি ও ওজিয়েইক শোয়েসনির মধ্যে

কোচ অ্যাডাম নাওয়ালকার পছন্দের ফর্মেশান মূলতঃ ফ্ল্যাট ৪-৪-২। মাঝে মাঝে ৪-২-৩-১ ফর্মেশানেও খেলাতে দেখা যায় তাঁকে। ৪-৪-২ বা ৪-২-৩-১, যেই ফর্মেশানেই হোক না কেন, ডিফেন্ডার চারজনের মধ্যে সেন্ট্রাল ডিফেন্ডার দুইজন থাকছেন তুরিনোর কামিল গ্লিক ও লেজিয়া ওয়ার’শ এর মিশাল পাজদান। রাইটব্যাক এ চিরনির্ভর বরুশিয়া ডর্টমুন্ডের লুকাশ পিশচেকের জায়গা নিশ্চিত, ইউরোর দলে এফসি কোলোনের পাওয়েল ওলকোউস্কি না থাকার কারণে তাঁর ব্যাকআপ হিসেবে থাকছেন লেজিয়া ওয়ার’শ এর ফুলব্যাক আর্তুর ইয়েরজেদিইক। ইনজুরির কারণে খেলতে পারছেন না পোল্যান্ডের নিয়মিত লেফটব্যাক মাসিয়েজ রাইবাস, ফলে তাঁর জায়গায় লেফটব্যাক হিসেবে খেলছেন লেচিয়া দানস্কের ইয়াকুব ওয়ারউজিনিয়্যাক, ব্যাকআপ থাকছেন এখানেও আর্তুর ইয়েরজেদিইক।

1453091_Torquay_United

৪-৪-২ ফর্মেশান হোক বা ৪-২-৩-১ হোক, সেন্ট্রাল মিডফিল্ডার উভয়ক্ষেত্রেই থাকেন দুইজন। এই দুইজনের মধ্যে সেভিয়ায় খেলা গ্রেগর্জ ক্রিচোউইয়্যাকের জায়গা নিশ্চিত। বাকী সেন্ট্রাল মিডফিল্ড পজিশানের জন্য তুমুল লড়াই হবে লেজিয়া ওয়ার’শ এর টমাশ ইয়োদলোউইয়েচ ও উইসলা ক্র্যাকোউ এর ক্রিশটফ মাজিনস্কি এর মধ্যে। ৪-৪-২ ফর্মেশানে রাইট মিডফিল্ডার থাকবেন বরুশিয়া ডর্টমুন্ড থেকে এই মৌসুমে ফিওরেন্টিনায় ধারে খেলতে যাওয়া মিডফিল্ডার ইয়াকুব ব্লাশচিকোউস্কি। লেফট মিডফিলডার হিসেবে থাকবেন রেনেঁর কামিল গ্রোসিচকি। দুই স্ট্রাইকারের মধ্যে লেফান্ডোফস্কি ও আয়াক্সের আরকাদিউস মিলিকের খেলা নিশ্চিত। ৪-২-৩-১ ফর্মেশানে খেললে সেক্ষেত্রে মিলিক চলে যাবেন অ্যাটাকিং মিডফিল্ড ভূমিকায়। ওয়াইড মিডফিল্ডে ব্যাকআপ থাকবেন লেজিয়া দানস্কের স্লাওমির পেসকো।

পোল্যান্ডের হয়ে ডানদিকে এইবারও দেখা যাবে দুই ডর্টমুন্ড সতীর্থ - রাইটব্যাক লুকাশ পিশচেক ও রাইট মিডফিল্ডার ইয়াকুব ব্লাশচিকউস্কি কে
পোল্যান্ডের হয়ে ডানদিকে এইবারও দেখা যাবে দুই ডর্টমুন্ড সতীর্থ – রাইটব্যাক লুকাশ পিশচেক ও রাইট মিডফিল্ডার ইয়াকুব ব্লাশচিকউস্কি কে

পোল্যান্ডের চিন্তার বিষয় যদি কিছু থেকে থাকে তবে সেটা হল ডিফেন্স। এমনিতেই হুটহাট গুরুত্বপূর্ণ সময়ে গোল খাওয়ার একটা বদঅভ্যাস আছে দলটার, তাঁর উপর লেফটব্যাক হিসেবে নিয়মিত খেলোয়াড় মাসিয়েজ রাইবাসকে পাচ্ছেনা তারা।

লেফান্ডফস্কি অ্যান্ড কোং কি পারবে প্রথম রাউন্ডের বাধা পার হয়ে এবারের ইউরোতে চমক সৃষ্টি করতে? সেটার জন্য অপেক্ষা করতে হবে ১০ জুন পর্যন্ত!

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

16 − sixteen =