বিশ্বকাপ ২০১৮ : টিম প্রিভিউ – ইংল্যান্ড

বিশ্বকাপ ২০১৮ : টিম প্রিভিউ - ইংল্যান্ড

রাশিয়া বিশ্বকাপ উপলক্ষ্যে ইংল্যান্ড কোচ গ্যারেথ সাউথগেট আজ ২৩ সদস্যবিশিষ্ট চুড়ান্ত ইংল্যান্ড দল ঘোষণা করে দিলেন। এককালে ডেভিড বেকহ্যাম, স্টিভেন জেরার্ড, ফ্র্যাঙ্ক ল্যাম্পার্ড, রিও ফার্ডিনান্ড, গ্যারি নেভিল, ওয়েইন রুনি, জেমি ক্যারাঘার প্রভৃতিদের এই ইংল্যান্ড ১৯৬২ সালের বিশ্বকাপ এর পর এত অনভিজ্ঞ দল নিয়ে কখনই কোন বড় টুর্নামেন্টে যায়নি – এই বিশ্বকাপ এর স্কোয়াড দেখে এমনটাই বলছেন বিজ্ঞজনেরা। ২৩ সদস্যের এই স্কোয়াডের কারোরই বিশ্বকাপ ম্যাচ জয়ের অভিজ্ঞতা নেই, ট্রফি তো বহু দূরের কথা। দলের খেলোয়াড়দের গড় বয়শ ২৬ বছর। দল থেকে বাদ পড়েছেন অনেক চেনা পরিচিত অভিজ্ঞ মুখ, কেউ খারাপ পারফরম্যান্সের কারণে, কেউ খেলার স্টাইলের ভিন্নতার কারণে, কিংবা কেউ ইঞ্জুরির কারণে। গত বিশ্বকাপ স্কোয়াডের মাত্র ৫ জন খেলোয়াড় এই বিশ্বকাপ স্কোয়াডে সুযোগ পেয়েছেন – জর্ডান হেন্ডারসন, রাহিম স্টার্লিং, গ্যারি ক্যাহিল, ফিল জোনস ও ড্যানি ওয়েলবেক। এই পাঁচজনের কারোরই সেরকম মূল একাদশে খেলার সুযোগ নেই। এতেই বলা যায় গত চার বছরে ইংল্যান্ড স্কোয়াড কতটা তারুণ্য নির্ভর হয়েছে। স্কোয়াডে ট্রেন্ট অ্যালেক্সান্দার আরনল্ড, নিক পোপ, জর্ডান পিকফোর্ড, মার্কাস র‍্যাশফোর্ড, রুবেন লফটাস-চিক, ডেলে আলি প্রমুখের অন্তর্ভুক্তি এটাই প্রমাণ করে। গ্রুপ জি তে থাকা ইংল্যান্ডের বাকী গ্রুপসঙ্গীরা হচ্ছে পানামা, বেলজিয়াম ও তিউনিসিয়া। এক নজরে দেখে নেওয়া যাক তারুণ্যনির্ভর ইংলিশ স্কোয়াডটা কিরকম হল!

গোলরক্ষক

  • জর্ডান পিকফোর্ড (এভারটন)
  • জ্যাক বাটল্যান্ড (স্টোক সিটি)
  • নিক পোপ (বার্নলি)

ডিফেন্ডার

  • ট্রেন্ট অ্যালেক্সান্ডার-আরনল্ড (লিভারপুল)
  • কাইল ওয়াকার (ম্যানচেস্টার সিটি)
  • কিয়েরান ট্রিপিয়ের (টটেনহ্যাম হটস্পার)
  • ড্যানি রোজ (টটেনহ্যাম হটস্পার)
  • অ্যাশলি ইয়াং (ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড)
  • জন স্টোনস (ম্যানচেস্টার সিটি)
  • হ্যারি ম্যাগুইরে (লেস্টার সিটি)
  • ফিল জোনস (ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড)
  • গ্যারি ক্যাহিল (চেলসি)

মিডফিল্ডার

  • ডেলে আলি (টটেনহ্যাম হটস্পার)
  • এরিক ডায়ার (টটেনহ্যাম হটস্পার)
  • জর্ডান হেন্ডারসন (লিভারপুল)
  • ফ্যাবিয়ান ডেলফ (ম্যানচেস্টার সিটি)
  • রুবেন লফটাস চিক (চেলসি)
  • হেসে লিনগার্ড (ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড)
  • রাহিম স্টার্লিং (ম্যানচেস্টার সিটি)

স্ট্রাইকার

উল্লেখযোগ্য যারা দলে জায়গা পাননি

  • জ্যো হার্ট (গোলরক্ষক, ম্যানচেস্টার সিটি)
  • রায়ান বার্ট্রান্ড (লেফটব্যাক, সাউদাম্পটন)
  • অ্যাডাম লালানা (মিডফিল্ডার, লিভারপুল)
  • অ্যালেক্স অক্সলেড চেম্বারলাইন (মিডফিল্ডার, লিভারপুল)
  • জ্যো গোমেজ (সেন্টারব্যাক, লিভারপুল)
  • জেমস মিলনার (মিডফিল্ডার, লিভারপুল)
  • জ্যাক উইলশেয়ার (মিডফিল্ডার, আর্সেনাল)
  • জেমস টারকোস্কি (সেন্টারব্যাক, বার্নলি)
  • জনজো শেলভি (মিডফিল্ডার, নিউক্যাসল ইউনাইটেড)
  • জামাল লাসেলেস (সেন্টারব্যাক, নিউক্যাসল ইউনাইটেড)
  • ক্রিস স্মলিং (সেন্টারব্যাক, ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড)
  • ওয়েইন রুনি (স্ট্রাইকার, এভারটন)
  • মাইকেল কিন (সেন্টারব্যাক, এভারটন)

খুব সম্ভবত এবার বিশ্বকাপে ইংল্যান্ড কে ৩-৫-২ বা ৩-৪-১-২ এর মত সাহসী ফর্মেশানে দলকে খেলাতে যাচ্ছেন কোচ গ্যারেথ সাউথগেট। সেই হিসেবে বেশ কিছু খেলোয়াড় ক্লাবে যে পজিশনে খেলেন, সে পজিশনে ইংল্যান্ড দলে খেলতে পারবেন না। যেমন : ম্যানচেস্টার সিটিতে রাইটব্যাক হিসেবে খেলা কাইল ওয়াকারকে গ্যারেথ সাউথগেট তিনজন সেন্টারব্যাকের মধ্যে একজন হিসেবে খেলাতে পছন্দ করেন (একদম ডানেরটা)। তারমানে ৩ সেন্টারব্যাকের এই ফর্মেশানে কাইল ওয়াকারকে মূলত সেন্টারব্যাক হিসেবেই দলে নিয়েছেন সাউথগেট। মূল একাদশের বাকী দুইজন সেন্টারব্যাক হতে পারেন লেস্টার সিটির হ্যারি ম্যাগুইরে ও ম্যানচেস্টার সিটির জন স্টোনস। ব্যাকআপ সেন্টারব্যাক হিসেবে দলে নেওয়া হয়েছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের ফিল জোনস ও চেলসির গ্যারি ক্যাহিল কে।

বিশ্বকাপ ২০১৮ : টিম প্রিভিউ - ইংল্যান্ড

সেন্টারব্যাক হিসেবে যদি কাইল ওয়াকার খেলেন, তারমানে ৩-৫-২ ফর্মেশনে রাইট উইংব্যাক হিসেবে খেলার সম্ভাবনা সবচাইতে বেশী টটেনহ্যাম হটস্পারের কিয়েরান ট্রিপিয়েরের। আর তাঁর ব্যাকআপ হিসেবে দলে থাকবেন লিভারপুলের হয়ে দুর্দান্ত মৌসুম কাটানো ট্রেন্ট অ্যালেক্সান্দার আরনল্ড। গড়পড়তা লেফট উইঙ্গার থেকে কার্যকরী লেফটব্যাকে রূপান্তরিত হওয়া অ্যাশলি ইয়াং লেফট উইংব্যাক হিসেবে জায়গা পেয়ে যেতে পারেন ইংল্যান্ড এর মূল একাদশে। আর ঐ পজিশনে ইংল্যান্ডের দ্বিতীয় খেলোয়াড় টটেনহ্যাম হটস্পারের ড্যানি রোজ। সেন্ট্রাল মিডফিল্ডার হিসেবে দুইজন খেলবেন এই একাদশে, আর এই দুইজনের মধ্যে টটেনহ্যামের এরিক ডায়ার আর লিভারপুলের জর্ডান হেন্ডারসনের থাকার সম্ভাবনা সর্বাধিক। সেন্ট্রাল মিডফিল্ডে ইংল্যান্ডের বাকী খেলোয়াড়েরা হলেন চেলসির রুবেন লফটাস চিক ও ম্যানচেস্টার সিটির ফ্যাবিয়ান ডেলফ। ডেলফ যদিও পুরো মৌসুম ম্যানচেস্টার সিটিতে লেফটব্যাক হিসেবেই খেলেছেন, তাও তাঁকে ইংল্যান্ড দলে নেওয়া হয়েছে সেন্ট্রাল মিডফিল্ডার হিসেবে। যদিও এবারের চ্যাম্পিয়নস লিগের সর্বোচ্চ গোল সহায়তাকারী জেমস মিলনারকে কেন নেওয়া হল না তা নিয়ে একটা প্রশ্ন উঠতেই পারে। অ্যাটাকিং মিডফিল্ডার হিসেবে খেলার সম্ভাবনা সবচাইতে বেশী টটেনহ্যামের ডেলে আলির, তিনি না খেললে খেলবেন ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের হেসে লিনগার্ড। আর দুই স্ট্রাইকার হিসেবে টটেনহ্যামের হ্যারি কেইন আর লেস্টার সিটির জেইনি ভার্ডির জায়গা পাকা। রিজার্ভ স্ট্রাইকার হিসেবে দলের সাথে যাচ্ছেন আর্সেনালের ড্যানি ওয়েলবেক ও ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের মার্কাস র‍্যাশফোর্ড। ইংল্যান্ড দলে আরও আছেন ম্যানচেস্টার সিটির রাহিম স্টার্লিং।

বিশ্বকাপ ২০১৮ : টিম প্রিভিউ - ইংল্যান্ড

আর ইংল্যান্ড দলের গোলরক্ষক হিসেবে খেলবেন টানা দুই মৌসুম লিগে স্যান্ডারল্যান্ড আর এভারটনের হয়ে দুর্দান্ত খেলা গোলরক্ষক জর্ডান পিকফোর্ড। স্টোক সিটির জ্যাক বাটল্যান্ড আর বার্নলির নিক পোপ আছে সহকারীর ভূমিকায়। দল থেকে বাদ পড়েছেন গত তিন আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টে ইংল্যান্ড এর অবিসংবাদিত নাম্বার ওয়ান – জ্যো হার্ট।

আনকোরা এই স্কোয়াড নিয়ে ইংল্যান্ড কি পারবে ১৯৬৬ বিশ্বকাপ এর পুনরাবৃত্তি করতে? দেখা যাক!

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

three + 13 =