ইংল্যান্ডের “বিদেশী” লিগ (পর্ব-১)

১৯৬৬ সালের এক বিশ্বকাপ, একটি জমজমাট লিগ, লিগে কিছু সেরা বিদেশী খেলোয়াড়। সর্বোপরি এ ছাড়া কি আর আছে ইংলিশ ফুটবলের আজকাল। ৯০ দশকের পড় থেকে প্রিমিয়ার লিগ শুরু হয়েছে। তারপর লিগ হয়েছে অনেক বেশী জমজমাট। রাশিয়ান কিংবা আরব পেট্রো ডলার এসেছে অনেক, রাতারাতি বড় হয়েছে অনেক ক্লাব, বলতে গেলে যুগের সাথে যারা তাল মিলিয়ে চলতে পেড়েছে তারাই ইংলিশ টপ ফ্লাইট মানে প্রিমিয়ের লিগে নিজেদের ধরে রাখতে পেরেছে। নটিংহ্যাম ফরেস্ট কিংবা আস্ট্যান ভিলা আজকের দিনের ইংলিশ ফুটবলে তেমন কোন হিসাবে পড়ে নাহ। ঠিক তেমনি চেলসি, ম্যানচেষ্টার সিটি নিজের জাত চেনাচ্ছে আজ। সেটা পেট্রো ডলারের কল্যাণেই হোক আর অন্য যেকোনো কারনেই হোক। কথা সেটা নয়। প্রশ্ন হচ্ছে এই ব্যাপক বিনোদনের লিগ আসলে ইংলিশ ফুটবলকে কি দিচ্ছে ??
একটা দেশের ফুটবল লিগের প্রথম কাজ কি ?? অনেক নতুন বিদেশী বিনিয়োগকারী নিয়ে আসা ?? অনেক নামি দামী খেলোয়াড় দলে নিয়ে আসা ?? অনেক সুন্দর সুন্দর স্টেডিয়াম বানান ?? নতুন নতুন ফুটবল বাজার দখল করা ?? দুঃখের কথা হচ্ছে এই গুলর কোনটাই একটা লিগের প্রথম কাজ নয় ।
প্রথম কাজ হচ্ছে সেই দেশের নিজেদের ট্যালেন্ট বের করা। কিন্তু প্রিমিয়ার লিগ সেটা কতটুকু করতে পেড়েছে সেটা বলে দেওয়ার কিছু নাই। প্রিমিয়ার লিগ শুরু হবার পড় থেকে ইংলিশ ফুটবলের মান কমেছে, কোন ইংলিশ খেলোয়াড় আজকাল বিদেশী লিগে খেলেন না, তাঁরা বেঞ্চে বসে থাকেন। আর্সেনালের “ইনভিন্সিবল” জুগের সময় দলে ১১ দল নন- ইংলিশ খেলোয়াড় নামিয়েছিলেন ফরাসি কোচ আর্সেন ওয়েঙ্গার। ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের সেরা মানা হয় কোচ সাবেক ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের “স্কটিশ” কোচ স্যার অ্যালেক্স ফার্গুসন। ১৩ লিগ শিরোপা জয়ী সেরা খেলোয়াড় “ওয়েলস” তারকা রায়ান গিগস হয়ত সেরা প্রিমিয়ার লিগ খেলোয়াড়। সেরা স্ট্রাইকার চিন্তা করলে হয়ত থিয়েরি অরি’কে ভাল প্রতিদ্বন্দ্বিতা দিবেন আলেন সেরার। কিন্তু এক ব্লেকবার্ন রভার্সের সাথে ১৯৯৫ সালে প্রিমিয়ার লিগ শিরোপা ছড়া আর কিবা জিতেছেন সেরার ?? হয়ত থিয়েরি অরির তুলনায় কিছুই নাহ। গত দশকের অন্যতম সেরা ইংলিশ খেলোয়াড় স্টিফেন জেরার্ড কিন্তু তার ঝুলিতে নেই কোন লিগ শিরোপা। সাবেক এই ইংলিশ অধিনায়কের কোন প্রিমিয়ার লিগ শিরোপা না জেতাটা অনেকের কাছে খুব হাস্যকর মনে হলেও আসলে এটা “ইংলিশ” লিগকে কতটা অসাধারণ করে সেটা আলোচনার বিষয়।
আজকের দিনের ইংলিশ লিগ বাংলাদেশ সময় বিকাল ৫টায়ও শুরু হয়। কারণটা কি ?? কারনটা বাজার আর কিছুই নাহ। হয়ত বাজার নিজেদের করে অনেক জার্সি বিক্রি করতে পারছে ইংলিশ লিগ তবে ইংলিশ জাতীয় দলকে কতটা সাহায্য করছে এই লিগ সেটা ভাববার সময় এখন হয়ত এসেছে। চলবে………

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

six + 2 =