আলাদিন মাদাফাকা!

ডিক্টেটর মুভিতে স্বৈর শাসক এডমিরাল আলাদীন দেশের সর্বাধিনায়ক তো বটেই, এমনকি ক্রীড়াক্ষেত্রেও সে অপরাজেয় । ছবিটির এক অংশে দেখা যায় অলিম্পিক দৌড়ে আলাদীন অংশ নেয় এবং ট্র্যাকে অপর প্রতিযোগীদের গায়ে, পায়ে গুলি করে নিজেই চ্যাম্পিয়ন হয় ।

কথায় বলে সিনেমা মানুষের জীবন থেকেই তৈরি ।
যথার্থই বলে ।
খবরে শুনলাম অবৈধ বোলিং এ্যাকশনের দায়ে অভিযুক্ত হয়েছেন দেশের তরুন স্পিডগান তাসকিন আহমেদ ও স্পিনার আরাফাত সানী ।
অভিযোগটা এনেছে ভারত নিয়ন্ত্রিত বিশ্ব ক্রিকেট সংস্থা আইসিসি ।
দেখুন, অভিযোগ আনাটা অন্যায় নয় । আইসিসি যে কাউকে পরিক্ষা, নিরীক্ষা করতে পারে । জন বোথা, সায়েদ আজমল, সুনীল নারায়ণ, মোহাম্মদ হাফিজদের উপর অভিযোগ এনে তার সত্যতা প্রমাণ করেছে আইসিসি । এমনকি আমাদের আব্দুর রাজ্জাক ও সোহাগ গাজীও অভিযুক্ত প্রমাণ হয়ে দণ্ড ভূগেছে । তাই অভিযোগ আনায় আইসিসিকে আমি কেন, কেউই দোষারোপ করতোনা । কেউই দূর্নিতী কিংবা পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ টানতোনা যদি তাদের সিস্টেমে পরিচ্ছন্নতা থাকত ।

ওয়েল, অভিযোগ আনার প্রাথমিক পর্যায় হলো বোলিংয়ের সময় বোলারদের সন্দেহজনক এ্যাকশন । প্রধাণত এই এক কারণেই বোলাদের পরিক্ষা দিতে হয় ।
আর প্রশ্নটা সেখানেই । নারিন, বোথারা অভিযুক্ত হলে হারভাজন, আশ্বিনরা কেন অভিযোগের খড়গে পড়েনি ?
এ্যাকশনে সন্দেহ থাকায় তাসকিনের উপর অভিযোগ আনা হলো কিন্তু বুমরাহ কেন লক্ষী গোপাল হয়ে বসে থাকলো ?
আমি বলছিনা তারা নিশ্চিত চাকার । কিন্তু সন্দেহজনক এ্যাকশনই অভিযোগের প্রথম ও প্রধাণ হাতিয়ার তখন তাসকিনের চেয়ে পরিস্কার সন্দেহজনক এ্যাকশনের দায়ে বুমরাহকে কেন টেস্ট করা হচ্ছেনা ?
উত্তরটা আমরা সবাই জানি ।
আদতে বিগ থ্রি হলেও আইসিসি কারা চালায় তা সবাই জানে । আইসিসির শীর্ষপদ, লভ্যাংশের অধিক মালিকানা, এফটিপি ট্যুর প্রণয়ন ক্ষমতা কাদের একক দখলে তা সবাই জানলেও কিছুই করার নেই ।
কারণ, বিসিসিআই অর্থের দাপটে সেই আগে থেকেই আইসিসির ওপর ছড়ি ঘুরিয়ে আসছে ।
তাসকিন, সানিদের ভাগ্য কি আছে জানিনা । তারা যদি সত্যিই দোষী সাব্যস্ত হয় তবে তার শাস্তি তারা পাবে । আর যদি নির্দোষ প্রমাণিত হয় তবে বলতেই হয় ‘ভারত নিয়ন্ত্রিত ICC এখন বাস্তবের আলাদীন মাদারফাকার’ ।

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

5 + 4 =