আর্সেনাল বিশ্লেষন: ফুলব্যাক পজিশন

মূল লেখা – আহসানুল হক

আধুনিক ফুটবলে স্কোয়াড রোটেশন যে কোন ম্যানেজার এর জন্যেই গুরুত্বপুর্ন এবং সবাই চান নিজের দলের সব পজিশনে একাধিক কোয়ালিটি সম্পন্ন খেলোয়াড় থাকুক।

খেলোয়াড়দের ইনজুরি মুক্ত রাখতে এবং ইনজুরির সময়ে ব্যাকআপ হিসেবে এটি কাজে দেয়। এছাড়াও পরিস্থিতি বুঝে ট্যাকটিকস নির্ধারনের ক্ষেত্রেও ভূমিকা রাখে।

কাগজে কলমে আর্সেনালের ফুলব্যাক (রাইট/লেফট) পজিশনের গভীরতা বেশ ভালো, যেখানে পাঁচ জন আলাদা খেলোয়াড় ভাগাভাগি করে প্রায় সমসংখ্যক ম্যাচে প্রথম একাদশে ছিলেন। যদিও গোটা নব্বইয়ের দশকের আর্সেনালের “দ্যা ফেমাস ফোর” এর মত সুসংগঠিত রক্ষণবূহ্য আর্সেনালের এই রক্ষণভাগ নয় তারপরেও এই রক্ষনভাগের দুই ফুলব্যাক পজিশনের একাধিক খেলোয়াড় ম্যানেজার আর্সেনে ওয়েঙ্গারের হাতে বিকল্প ব্যবস্থার সুযোগ করে দিয়েছে।

রাইটব্যাক পজিশনে আছেন তিনজন.. ক্যালাম চেম্বার্স লিগে প্রথম একাদশে ছিলেন ১৩ ম্যাচে, হেক্টর বেয়েরিন ছিলেন ৯ ম্যাচে এবং ম্যাথিউ ডেবিউশি ছিলেন ৮ ম্যাচে।
লেফটব্যাক পজিশনে আছেন দুইজন.. কাইরন গিবস স্টার্ট করেছেন ১৬ লিগ ম্যাচে আর বাকি ১৪ ম্যাচে লেফটব্যাক পজিশনে স্টার্ট করেছেন নাচো মনরেয়াল।

তবে একটা ব্যাপার হল আর্সেনালের ফুলব্যাকদের কম্বিনেশন বারংবার পরিবর্তন হয়েছে ক্রমাগত চোট-আঘাতের জন্য। ডেবিউশি এই মৌসুমের শুরু থেকে দুটি দীর্ঘমেয়াদী ইনজুরিতে ভুগেছেন। এ সময়টাতে দায়িত্ব ভাগ করে নিয়েছেন চেম্বার্স ও বেলেরিন। এখন ডেবিউশিও তার ফিটনেস ফিরে পাচ্ছেন। সাম্প্রতিক সময়ে একটা প্রীতি ম্যাচে ৬০ মিনিট খেলেছেন।

ম্যাথিউ ডেবিউশি
ম্যাথিউ ডেবিউশি

ক্যালাম চেইম্বার্স এ মৌসুমে আর্সেনালে আসার পর একাধিক পজিশনে খেলেছেন। রাইট ব্যাক হিসেবে বেশি খেললেও সেন্টার ব্যাক হিসেবেও খোলেছেন আর একটা ম্যাচে ডিফেন্সিভ মিডফিল্ডার হিসেবে ছিলেন। এ থেকে বোঝা যায় চেম্বার্স একজন সব্যসাচী ডিফেন্সিভ খেলোয়াড়। শারীরিক শক্তিকে বুদ্ধিমত্তার সাথে ব্যাবহার করে এবং ধারনা করা যায় ভবিষ্যতে আর্সেনালের সেন্ট্রাল ডিফেন্সিভ রোলেই তাকে দেখা যাবে।

ক্যালাম চেইম্বার্স
ক্যালাম চেইম্বার্স

একটু গতিময় এবং ট্রিকি ড্রিবলার দের বিপরীতে এক বনাম এক পরিস্থিতিতে প্রচুর সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়েছে তাকে। উদাহরণ হিসেবে হ্যাজার্ড এবং মন্টেরোর নাম বলা যায়। অন্যদিকে গতিময় খেলোয়াড়েরা তাকে আউট অফ পজিশনে ফেলতে পারলে চেম্বার্সের আর কোন সুযোগ থাকে না।

ইংল্যান্ড জাতীয় দলেরও অন্যতম ভরসা ভাবা হচ্ছে চেইম্বার্স কে
ইংল্যান্ড জাতীয় দলেরও অন্যতম ভরসা ভাবা হচ্ছে চেইম্বার্স কে

মৌসুমের শুরুতে চেইম্বার্স আর্সেনাল ওয়েবসাইটকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেছিল, “আমি রাইটব্যাক হিসেবে খেলার তুলনায় সেন্টারব্যাক হিসেবে ভালো খেলি। আত্মবিশ্বাস বেশি থাকে এবং গেম রিডিং এ সুবিধা হয়।”
ম্যানেজার আর্সেনও বলেছেন, ” তাকে (চেইম্বার্স) সেন্ট্রাল রোলেই বেশি মানানসই মনে হয়, কারন আপনি চাইবেন ওয়াইড রোলে তুলনামুলক বিস্ফোরক কেউ থাকুক।”

এই গতির দিক থেকে হেক্টর বেলেরিন অনেক খানি এগিয়ে আছেন। অবিশ্বাস্য গতির অধিকারি এই রাইটব্যাক ভেঙ্গেছেন থিও ওয়ালকটের ক্লাব রেকর্ড। এই ছোটখাটো স্প্যানিয়ার্ড চেম্বার্স এর তুলনায় শারীরিকভাবে তুলনামুলকভাবে কম প্রভাবশালী। তবে সহজাত গতিময় ওভারল্যাপিং আর্সেনালের আক্রমনভাগে নতুন মাত্রা যোগ করেছে।

হেক্টর বেয়েরিন
হেক্টর বেয়েরিন

বিপক্ষ দলের উইঙ্গারদের ট্র্যাক ব্যাক করার ক্ষেত্রে অনেক উন্নতি করতে হবে। কখনো কখনো মার্কিং এ থাকা খেলোয়াড়কে বেশি সময় ও জায়গা দেবার পর গতি দিয়ে পোষানোর চেষ্টা করতে দেখা গেছে। যেইসব ভুল বড় ম্যাচে করলে আর ফেরার কোন সুযোগ নেই।

কালকেও লিভারপুলের বিপক্ষে অসাধারণ এক গোল করে বেয়েরিন রেখেছেন নিজের যোগ্যতার প্রমাণ
কালকেও লিভারপুলের বিপক্ষে অসাধারণ এক গোল করে বেয়েরিন রেখেছেন নিজের যোগ্যতার প্রমাণ

ডেবিউশিকে উপরোক্ত দুইজনের সমষ্টি বলা যায়। তাদের থেকে ৯ বছরের বড় এই রাইটব্যাকের অভিজ্ঞতা এবং রক্ষণ-আক্রমণে ভারসাম্যপূর্ন পরিস্থিতি বজায় রাখার ক্ষমতা আছে। শারীরিকভাবে শক্তিশালী এবং চমৎকার গতি তাকে একজন কার্যকরি রাইটব্যাক হিসেবে দলে অবস্থান পোক্ত করেছে।

বাকারি স্যানিয়াকে সরিয়ে ম্যাথিউ ডেবিউশিই এখন ফ্রান্সেরও মূল রাইটব্যাক
বাকারি স্যানিয়াকে সরিয়ে ম্যাথিউ ডেবিউশিই এখন ফ্রান্সেরও মূল রাইটব্যাক

সেট পিসে ডিফেন্ডিং করবার বেলায় উন্নতির প্রচুর সুযোগ রয়েছে। কখনো কখনো তাকে প্রতিপক্ষ সীমানার সেট পিসে আক্রমনভাগে যতটা কার্যকর দেখা যায়, নিজ অর্ধে সেট পিসে রক্ষনকাজে ততটা কার্যকর দেখা যায় না। ইনজুরির কারনে নিজের সেরাটা হয়তো দিতে পারেন নাই, তবে আগামী মৌসুমে তার সেরাটা দেখার প্রত্যাশা থাকবে।

বাম প্রান্তে ফুলব্যাক হিসেবে গিবস এবং মনরেয়াল তুলনামুলকভাবে কিছুটা হলেও ভিন্ন কোয়ালিটি সরবরাহ করেন।

গিবস এর মুল অস্ত্র তার গতি, অ্যাকসেলারেশন, ওভারল্যাপিং দৌড় গুলো নিঁখুত ভাবে সময় মেলানো।

কিয়েরান গিবস
কিয়েরান গিবস

অন্যদিকে মনরেয়াল সাম্প্রতিক সময়ে দলে নিয়মিত তার ভারসাম্যপূর্ন রক্ষণাত্মক পজিশনিং সেন্স এবং মধ্যমাঠের সাথে বেটার বোঝাপড়া দিয়ে।
একাধিক বড় অ্যাওয়ে ম্যাচে অত্যন্ত গুরুত্বপুর্ন অবদান রেখেছে সে। ম্যানসিটির সাথে পেনাল্টি আদায় করেছিল এবং ম্যানইউ এর সাথে দলের প্রথম গোলটিও তার করা।

নাচো মনরেয়াল
নাচো মনরেয়াল

দলের দুই ফুলব্যাকের মাঝে বিপরীত মুখি অ্যাট্রিবিউট এর ভারসাম্যকেই আদর্শ মনে করা হয়ে থাকে। একজন হবেন বিস্ফোরক ওভারল্যাপিং ক্ষমতার অধিকারি, অপরজন হবেন স্থিতধী ও রক্ষণাত্মক। বেলেরিন এবং মনরেয়াল সাম্প্রতিক সময়ের নিয়মিত ফুলব্যাক কম্বিনেশন এবং এই দুই স্প্যানিয়ার্ড বেশ ভালো করেছেন।

ফেব্রুয়ারিতে লিস্টার সিটির সাথে ২-১ গোলে জেতার ম্যাচটাকে উদাহরণ হিসেবে আনা যায় (ছবি এক দ্রষ্টব্য)। মনরেয়াল ওই ম্যাচে দলের পাসিং বিল্ডআপ এবং ওয়াইড খেলোয়ারদের সাথে লিংকআপ এ করার ক্ষেত্রে খুবই গুরুত্বপূর্ন চরিত্র ছিলেন। অন্যদিকে বেলেরিন আপাতদৃষ্টিতে ছিলেন কিছুটা বিচ্ছিন্ন। তবে প্রচুর আক্রমনাত্মক দৌড় দিয়েছেন, বক্স এ ক্রস করেছেন এবং গোলমুখে শট ও নিয়েছেন।

11080942_854582571270595_1506458068104252698_n

আবার অ্যাপ্রোচ অনেকখানি পরিবর্তিত হয় যখন ফুলব্যাক কম্বিনেশন পরিবর্তন হয়। কিউপিআর এর বিপক্ষে ২-১ গোলের জয়ের কথা চিন্তা করলে দেখা যায় (ছবি দুই দৃষ্টব্য).. প্রথম একাদশে ছিলেন বেলেরিন ও গিবস। দুই জনই আক্রমণাত্মক ফুলব্যাক। ম্যাচে আর্সেনালের দুর্দান্ত আক্রমনের মুহুর্ত গুলো ফুলব্যাকদের সমন্বয়েই আসছিল এবং সানচেজের গোলটাতেও ছিল গিবস এর অ্যাসিস্ট। পুরো ম্যাচে ক্রসের সংখ্যাও ছিল অনেক।

10425362_854582604603925_1444504166532711619_n

অন্যদিকে নিউক্যাসলের বিপক্ষে সাম্প্রতিক ২-১ গোলের জয়ের ম্যাচে (ছবি তিন দৃষ্টব্য) আর্সেনালের ফুলব্যাকদের থেকে অনেকাংশে রক্ষণাত্মক পার্ফমেন্স দেখেছি আমরা, কারন চেম্বার্স আর মনরেয়াল দুইজন প্রথম একাদশে ছিল। তাই দেখা গেছে আর্সেনাল উইং নির্ভর আক্রমনের চাইতে মধ্যমাঠের বিল্ডআপ এর মাধ্যমে আক্রমনেরগেছে বেশি এবং দুটো গোলই সেট পিস থেকে আদায় করে নিয়েছে। আর দ্বিতীয়ার্ধের উদ্দীপ্ত নিউক্যাসলের বিরুদ্ধে লিড ধরে রাখার জন্য দারুন ডিফেন্ডিং করেছে।

11134000_854582634603922_3023569423876899591_n

তিনটি ম্যাচ.. তিনটি ২-১ গোলে জয় কিন্তু সম্পুর্ন ভিন্ন তিন ধরনের পার্ফমেন্স বলে দেয় এই মুহুর্তে ফুলব্যাক পজিশনে আর্সেনে ওয়েঙ্গারের হাতে একাধিক বিকল্প আছে। এখন মৌসুমের বাকি সময়টুকুতে সঠিক সময়ে সঠিক কম্বিনেশন ক্লিক হয় কিনা সেটাই দেখার বিষয়।

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

two × four =