আবারও রোমাঞ্চ দেখলো নেলসন

তাহলে নেলসন কি হয়ে গেল ২০১৫ বিশ্বকাপ ক্রিকেটের রোমাঞ্চের মঞ্চ? না, এবার আর আয়ারল্যান্ড-ওয়েস্ট ইন্ডিজ ম্যাচের মত চমকে দেওয়া ফলটা আসে নি। তবে ম্যাচ জুড়ে চমকটা কোন অংশে কম ছিলো না সে ম্যাচের চাইতেও। ম্যাচটি ছিলো দক্ষিণ আফ্রিকাকে চমকে দেয়া জিম্বাবুয়ে আর ২০১৫ বিশ্বকাপে সবচাইতে লো প্রোফাইল দল আরব আমিরাত এত মধ্যে। আঁটসাঁট বোলিং এর জন্যে জিম্বাবুয়ের সুনামটা অনেক দিনের। এর মধ্যেও রানরেট ঠিক রাখলেও দ্রুত ৪০ রানের মধ্যেই ২ উইকেট হারায় আরব আমিরাত। এর পরে থমকে যায় রানরেট এর চাকা। তবে ৫ম উইকেটে স্বপ্নিল পাতিল আর শাইমান আনোয়ারের জুটিতে আবার চাঙ্গা হয় রানরেট।

206241

তবে ২৩২ রানে ৭ম উইকেট হিসাবে শাইমান আনোয়ার আউট হবার সময় মনেই হয় নি অনেকদূর যেয়ে পারবে আরব আমিরাত। এখনো ওভার বাকি ৬ টা। পুরো ৫০ ওভার খেলতে পারবে তো আমিরাত? সব শঙ্কা দূর করে দিলো আমজাদ জাভেদ আর নাভিদের ইনিংস শেষ করা জুটি। ইনিংসে ফিফটি একটিই। শাইমান আনোয়ারের ৬৭ রান! তবে জিম্বাবুয়ের দেওয়া অতিরিক্ত ২৬ রান আর ক্যামিও ইনিংসগুলোর সুবাদে আমিরাত পেলো ২৮৫ রানের বিরাট সংগ্রহ! জিম্বাবুয়ে তাদের ব্যাটিং এর শক্তির প্রদর্শনী দিয়ে দিয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকার সাথেই। তাই ম্যাচ থেকে তাদের বাতিল করে দেবার প্রশ্নই উঠে না। ৬৪ রানের শুরুর জুটিটাও তাই চাহিদার সাথে তাল মিলিয়েই।

 

তারপর ইনফর্ম মাসাকাদজা ফিরে গেলেও ব্রেন্ডন টেলর একপাশ থেকে রানের গতিটা ভালোই ধরে রাখছিলেন। তবে ১৪৪ আর ১৭২ এ টেলর আর মিরে আউট হয়ে গেলে শঙ্কায় পড়ে জিম্বাবুয়ে। তবে ব্যাটিং লাইনটা বড্ড লম্বা জিম্বাবুয়ের। সিন উইলিয়ামস প্রথমে আরভিন আর তারপর চিগাম্বুরাকে নিয়ে গুড়িয়ে দেন সংযুক্ত আরব আমিরাতের জয়ের স্বপ্ন। ৬৫ বলে ৭৬ রান করে সীন উইলিয়ামস হলেন এই রোমাঞ্চকর ম্যাচের ম্যাচসেরা।

Zimbabwe v United Arab Emirates - 2015 ICC Cricket World Cup

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

1 × 3 =