অন্তত মাঠের ক্রিকেটটা ভালো হোক

বিপিএল এলে একটা ব্যাপার দারুণ লাগে। একাডেমি মাঠে বসে যেন ক্রিকেটারের মেলা। একসঙ্গে সবচেয়ে বেশি ক্রিকেটার দেখা যায় এই সময়টায়। ওদের নিজেদের সঙ্গে নিজেদের অনেকের দেখা হয়। আমাদের সঙ্গে দেখা হয় অনেক ক্রিকেটারের, এমনিতে নিয়মিত যাদের সঙ্গে ততটা দেখা-কথা হয় না। গতকাল, আজকে যেমন তুমুল আড্ডা হয়েছে অনেকের সঙ্গে। হাই-হ্যালো, কুশলাদি জিজ্ঞেস তো ছিল অনেক অনেক জনের সঙ্গে…

তবে সমস্যা হলো, মেলাটা শুধু আর ক্রিকেট ও ক্রিকেটারের মেলা থাকে না। বারোয়ারি মেলা হয়ে যায়। ক্রিকেটের বাইরের এত লোকজনের আনাগোণা শুরু হয়! মালিকপক্ষ বা ফ্র্যাঞ্চাইজির কর্তাদের আসা-যাওয়া তো থাকবেই, স্বাভাবিক। কিন্তু আরও অনেক অনেক ‘শো পিস’ বা ‘আইটেম’ চোখে পড়ে। অনেক অনেক শো ম্যানের লাফালাফি, দাপাদাপি, শোরগোল দেখা যায়। ক্রিকেটারদের একান্ত ভূবন ড্রেসিং রুমে অনেকের অবাধ যাতায়াত শুরু হয়। মৌসুমি কিছু ক্রিকেট ভক্তেরও আবির্ভাব হয়, যাদের হাবভাব থাকে পাঁড় ভক্তের মতো। আরও অনেক মৌসুমি পাখ-পাখালির ওড়াওড়ি-ঘুরাঘুরি দেখা যায়। এসব দেখে ভীষণ অস্থির লাগে।

মাঠে যে খেলাটা হয়, সেটা ক্রিকেটই। কিন্তু তার পরও যেন ক্রিকেট ও ক্রিকেটাররা প্রায়ই গৌণ হয়ে পড়ে। মাঠের বাইরেও যে অনেক খেলা হয়! সবচেয়ে খারাপ লাগে, এসব দেখতে হয়, হজম করতে হয় এবং লিখতে হয়।

এই অস্থিরতা থেকে উদ্ধার পাওয়ার পথও ক্রিকেটই। মাঠের ক্রিকেটটা ভালো হলে অন্তত সেটাতে মুখ গুঁজে আর সব কিছু উপেক্ষা করা যায়। অন্তত উপেক্ষার ভান করা যায়… বারোয়ারি মেলায় সেটাও কম না!

সেটিই চাওয়া। মেলা তো বারোয়ারি ছাড়িয়ে তেরোয়ারি-চৌদ্দয়ারিও হয়ে যেতে পারে। অন্তত মাঠের ক্রিকেটটা ভালো হোক, কোনো রকমে মুখ গুঁজে ৫ সপ্তাহ কেটে যাক!

কমেন্টস

কমেন্টস

মন্তব্য করুন

16 + 9 =